হঠাৎ বৃষ্টিতে ফের আলু নিয়ে বিপাকে মুন্সিগঞ্জের চাষিরা

এবার মাঘের শেষ সময়ে হঠাৎ বৃষ্টিতে তলিয়ে গেছে মুন্সিগঞ্জের আলুখেত। কৃষকরা সেচ মেশিন দিয়ে ও বালতি ভরে তলিয়ে যাওয়া জমির পানি সেচ দিচ্ছেন। গতকাল শুক্রবার (০৪ ফেব্রুয়ারি) দুপুর থেকে মুন্সিগঞ্জে শুরু হয় বৃষ্টি। রাতভর টানা বৃষ্টিতে অনেক আলুখেত তলিয়ে যাওয়ায় ফের বীজ পচে আলুগাছ নষ্ট হয়ে যাওয়ার শঙ্কায় রয়েছেন কৃষকরা।

শনিবার (০৫ ফেব্রুয়ারি) ভোর থেকে টঙ্গিবাড়ী উপজেলার পাঁচগাঁও, কাইচমালধা, খলাগাঁও, চাঠাতিপাড়া, মান্দ্রা, গনাইসার, মটুকপুর, ধীপুর, ভিটি মালধা, ডুলিহাটা, রংমেহার বিল ঘুরে দেখা গেছে, কোদাল এবং বালতি হাতে কৃষকরা জমির দিকে ছুটছেন। এক জমি থেকে অন্য জমিতে ঘুরে ঘুরে পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থা করছেন।

এ বছর আলু রোপণ শুরুর মৌসুমে ঘূর্ণিঝড় জাওয়াদের প্রভাবে টানা বৃষ্টিতে কৃষকের আলুর বীজ নষ্ট হয়ে যায়। পরে ধারদেনা করে কৃষক আবার আলু চাষ করেন। একদিকে বিলম্বে চাষ করার কারণে আলুর উৎপাদন নিয়ে যখন কৃষকরা শঙ্কায় রয়েছেন, তখন ফের বৃষ্টিতে তলিয়ে গেছে আলুখেত। এসব জমিতে ২০-২৫ দিন আগে আলু রোপণ করেছিলেন কৃষকরা। এরই মধ্যে বৃষ্টিতে পানি জমে গাছসহ আলু বীজ পচে নষ্ট হওয়ার উপক্রম হয়েছে।

কৃষক রতন মোল্লা বলেন, আগে প্রায় ২ কানি (৩০০ শতাংশ) জমির আলু পচে নষ্ট হয়েছে। আবার ধারদেনা করে ওই সমস্ত জমিতে আলু রোপণ করেছিলাম। এখন আবার বৃষ্টিতে তলিয়ে গেল। কি করব ভেবে পাচ্ছি না। সরকার যদি আমাদের সহায়তা না করে, তাহলে সন্তান নিয়ে আর বাঁচার অবলম্বন থাকবে না।

কৃষক নাজমা বেগম বলেন, একবার আলু রোপণ করলাম, বৃষ্টিতে সব তলিয়ে গেল। আবার সুদের ওপর টাকা এনে আলু রোপণ করলাম। এখন আবার বৃষ্টিতে তলিয়ে গেছে আলুখেত। সুদের টাকা কোথা থেকে দিব? ছেলে-মেয়ে নিয়ে কী খেয়ে বাঁচব? সরকারতো আমাদের কোনো সহয়তা করে না।

কৃষক আনোয়ার হোসেন তার তিন বছরের ছেলে তামিমকে নিয়ে জমির কোণে গর্ত করে সেই গর্তের মধ্যে পানি সেঁচের কাজ করছেন। আনোয়ার বলেন, আগে রোপণ করা আলু তলিয়ে যাওয়ার পর ধারদেনা করে আবার আলু রোপণ করলাম। এখন আবারও বৃষ্টিতে তলিয়ে গেল সব । ধারদেনা কোথা হতে দিব? সরকার যদি সহয়তা করত, তাহলে বাঁচতে পারতাম।

কৃষক শফি দেওয়ান (৫৫) দুই হাতে দুই বালতি নিয়ে জমি থেকে পানি ভরে ফেলছেন পাশের পুকুরে। তিনি বলেন, একবার তলিয়ে যাওয়ার পর আবার আলু চাষ করলাম। এখন আবার তলিয়ে গেল। কয়দিন পরপরই বৃষ্টি হচ্ছে। আলুর দাম নেই, তারপর দুইবার বৃষ্টিতে জমি তলিয়ে গেল। এ বছর কিছুতেই লোকসান পুষিয়ে নিতে পারব না।

এদিকে চলতি মৌসুমের শুরুতে বৃষ্টিপাতের কারণে আলু বীজ পচে নষ্ট হয়ে যাওয়ায় মুন্সিগঞ্জে পূরণ হয়নি আলু আবাদের লক্ষ্যমাত্রা। কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের তথ্য মতে, লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে এবার ২ হাজার ১০৪ হেক্টর কম জমিতে আলু আবাদ হয়েছে। তাছাড়া বৃষ্টির কারণে অধিকাংশ জমিতে আলুর আবাদ হয়েছে বিলম্বে। এতে জমিতেও ফলন কম হওয়ায় উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা পূরণ হওয়ার সম্ভবনা আগে থেকেই ছিল না।

চলতি মৌসুমে জেলায় ৩৭ হাজার ৯০০ হেক্টর জমিতে আলু আবাদের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছিল। তবে বৃষ্টির কারণে আবাদ হয়েছে ৩৫ হাজার ৭৯৬ হেক্টর জমিতে। এর মধ্যে সদর উপজেলায় ৯ হাজার ৬৮০ হেক্টর, টঙ্গীবাড়ীতে ৯ হাজার ৫০০ হেক্টর, শ্রীনগরে ২ হাজার হেক্টর, সিরাজদিখানে ৯ হাজার ১৫১ হেক্টর, লৌহজংয়ে ৩ হাজার ৩৬০ হেক্টর ও গজারিয়ায় ২ হাজার ১০৫ হেক্টর জমিতে আলুর আবাদ হয়েছে। এসব জমিতে মোট উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ১১ লাখ ৫ হাজার ৮৯৩ মেট্রিক টন নির্ধারণ করেছে কৃষি বিভাগ।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের তথ্য মতে, হেক্টর প্রতি ৩০ মেট্রিক টনের কিছুটা বেশি আলু উৎপাদন হওয়ার কথা। আর লক্ষ্যমাত্রার মধ্যে অনাবাদি রয়েছে ২ হাজার ১০৪ হেক্টর জমি। সে হিসেবে অনাবাদি জমিগুলোতে ৬ হাজার ৩০০ মেট্রিক টন আলু উৎপাদন হওয়ার কথা থাকলেও জমি অনাবাদি থাকায় সেটি আর হচ্ছে না।

এদিকে কৃষকদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, নভেম্বর মাসের প্রথম সপ্তাহ থেকে ডিসেম্বর মাসের মাঝামাঝি পর্যন্ত আলু রোপণের উত্তম সময়। তবে এ বছর আবাদ শুরুর সময় ঘূর্ণিঝড় ও বৃষ্টির কারণে একদিকে যেমন আলু বীজ পচে নষ্ট হয়েছে, অন্যদিকে অধিকাংশ জমিতেই আলু আবাদ হয়েছে দেরিতে। অনেক জমিতে বীজ নষ্ট হওয়ায় দ্বিতীয় দফায় আবাদ করেনি অনেকে। এতে আবাদও হয়েছে কম জমিতে। বৃষ্টির কারণে অনেক জমিতে আবাদ করতে হয়েছে দুই দফা। এতে আলু উৎপাদনের খরচও বেড়েছে দ্বিগুণ।

এ বিষয়ে জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক খুরশীদ আলম ঢাকা পোস্টকে বলেন, গতকালের বৃষ্টিতে কী পরিমাণ আলুখেত তলিয়েছে তার সঠিক তথ্য এখন আমাদের হাতে নেই। বৃষ্টিতে নিচু জমির কিছু আলু তলিয়ে গেলেও উচুঁ জমিতে বৃষ্টি হওয়ায় ভালো হয়েছে। কৃষকের সেঁচের কাজটি হয়ে গেছে। নিচু যেসব জমিতে পানি জমেছে, সেসব জমি থেকে দ্রুত পানি বের করে দিতে হবে। তাহলে নিচু জমির আলু নষ্ট হবে না।

ব.ম শামীম/ঢাকা পোষ্ট

Leave a Reply