সড়ক ভেঙে ‘খাল’, বাঁশের সাঁকোই ভরসা

সদর উপজেলার চরকেওয়ার ইউনিয়নের আলিরটেক বাজার থেকে কাউয়াদি হয়ে জনমাদবর গ্রাম পর্যন্ত প্রায় ৩ কিলোমিটার সড়কের বেহাল দশা। এ সড়কটি যান ও জন চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। এতে প্রতিনিয়ত চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে স্থানীয় গ্রামবাসীদের। প্রায় ৭ বছর আগে সড়কটি নির্মাণ করা হয়। এরপর সড়কটির কোনো উন্নয়ন বা সংস্কার করা হয়নি। ফলে পর্যায়ক্রমে ছোট-বড় গর্ত সৃষ্টি হয়ে সড়কটি ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে।

গত ২ বছর যাবত সংস্কারের অভাবে এটি এতই ঝুঁকিপূর্ণ যে,যানবাহন চলাচল তো দূরের কথা, হেঁটে চলাচলেরই অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। ইটের রাস্তা হলেও বর্তমানে তা দেবে গিয়ে ইট খুঁজে পাওয়াই দুষ্কর হয়ে পড়েছে। একমাত্র এই সড়কটি দিয়ে স্থানীয় চরঝাপটা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, দক্ষিণ চরমশুরা উচ্চ বিদ্যালয় ও দক্ষিণ চরমশুরা আদর্শ দাখিল মাদ্রাসার শিক্ষার্থীরাও যাতায়াত করে থাকে। সামান্য বৃষ্টিতেই সড়কটি দিয়ে চলাচল ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়ে।

স্থানীয়রা মনে করছেন,সড়কটি সংস্কার করা হলে এলাকার মানুষের যোগাযোগের সুবিধা ছাড়াও কৃষকদের উৎপাদিত ফসল ও কৃষি পণ্য পরিবহনে সহজ হবে। এ ছাড়া মুন্সীগঞ্জ শহরের কাছের এ এলাকাটিতে উন্নয়নের ছোঁয়া লাগবে।

সরেজমিনে দেখা যায়, ইট উঠে গিয়ে সড়কে অসংখ্য ছোট-বড় খানা খন্দে পরিণত হয়েছে। পাশে বয়ে যাওয়া মেঘনা শাখা নদী। পানির স্রোতের কারণে সড়কের মাটি একাধিক স্থানে ভেঙে গেছে। আলিরটেক বাজার থেকে কাউয়াদির সড়কের সামনে মাটি সরে যাওয়ার ফলে সাঁকো ব্যবহার করছে স্থানীয়রা। এতে গাড়ি চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে।

স্থানীয় এক বাসিন্দা জানান, কিছুদিন আগে তার মা অসুস্থ হয়ে পড়েন। তাকে হাসপাতালে নিতে প্রায় দুই ঘণ্টা সময় লেগেছে। কাউয়াদি গ্রামের সড়কটি চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। রাস্তাটি দিয়ে মোটরসাইকেলও চলাচল করতে পারছে না। তিনি সড়কটির দ্রুত সংস্কারের দাবি জানান।

স্থানীয় কৃষক মো. সুরুজ বেপারি জানান, ‘আমাদের কৃষিপণ্য শহরে নিয়ে যেতে বিভিন্ন সমস্যায় পড়তে হচ্ছে। নদীতে বর্তমানে পানি শুকিয়ে নালায় পরিণত হয়েছে। কৃষিপণ্য বাজারে বিক্রি করতে হলে এই সড়কটি ব্যবহার করতে হয়। এটি সংস্কার করা হলে এলাকার দৃশ্য পালটে যাবে। এ ছাড়াও ছেলে মেয়েরা নির্ভয়ে স্কুলে যাতায়াত করতে পারবে।’

স্থানীয় ইউপি মেম্বার মন্টু দেওয়ান জানান, প্রায় ৩ কিলোমিটার সড়ক সংস্কারের অভাবে চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। এটি সংস্কার করা একান্ত প্রয়োজন।

চরকেওয়ার ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান হাজী মো. আফসার উদ্দিন ভূঁইয়া জানান, সড়কটি দীর্ঘদিন যাবত সংস্কারের অভাবে মানুষের চলাচলে খুব কষ্ট হচ্ছে। এটি অতি শিগগিরই উন্নয়ন করা প্রয়োজন। সড়কটি নিয়ে এলজিইডিসহ একাধিক সংশ্লিষ্ট দপ্তরের সঙ্গে কথা হচ্ছে। আশাকরি যতদ্রুত সম্ভব উন্নয়নকাজ শুরু হবে।

ইত্তেফাক

Leave a Reply