করোনায় আক্রান্তদের পাশে জাপান সরকার

রাহমান মনি: একটি দেশের গণতান্ত্রিক সরকার প্রতিষ্ঠা হয় সে দেশের জনগনের অংশ গ্রহনে এবং জনগনের অধিকার রক্ষায় । এইজনই গণতন্ত্রের সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ সংজ্ঞা হিসাবে ‘জনগণের সরকার জনগণের দ্বারা জনগণের জন্য’ বাক্যটিকেই গণ্য করা হয়। আর এই কথাটি প্রথম উচ্চারিত হয়েছিল বিশ্বজয়ী নেতা আব্রাহাম লিংকনের মুখ থেকেই।

জাপানে রাজতন্ত্র কায়েম থাকলেও সরকার পরিচালনায় তাঁর কোন ভুমিকা থাকে না।

দলীয় সরকার প্রতিষ্ঠিত হয় জনগনের প্রত্যেক্ষ ভোটে । তাই জনগনের প্রতি দায়বদ্ধ থাকে সরকার। সম্পূর্ণ নাগরিক অধিকার ভোগ করেন এখানকার জনগন । করোনা মহামারীর এই সময়ে করোনা সার্বিক মোকাবেলায় যেখানে হিমশিম খেতে হচ্ছে সেখানে প্রতিটি নাগরিকের ব্যক্তি স্বার্থ দেখা সরকারের স্বদিচ্ছা থাকলে যে সম্ভব তার প্রমান জাপান ।

আমি ঠাণ্ডা , জ্বর নিয়ে ৬ ফেব্রুয়ারি স্থানীয় একটি হাসপাতালে গেলে আমাকে করোনা টেস্ট করার অনুরোধ জানালে আমি রাজী হয়ে পি,সি,আর টেস্ট করাই। পরেরদিন সকালে ফোনে আমাকে জানানো হয় যে আমার করোনা সনাক্ত হয়েছে এবং আমি যেন ১০ দিন বাসা থেকে বের না হই । স্বাস্থ্য বিভাগ থেকে পরবর্তী দিক নির্দেশনার জন্য অপেক্ষা করতে বলা হয়। ১০ মিনিট পর মোবাইলে বিভিন্ন নির্দেশনা সম্বলিত একটি শর্ট ম্যাসেজ আসে এবং স্বাস্থ্য বিভাগ থেকে টেলিফোন পাওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করার অনুরোধ করা হয়।

দিন গড়িয়ে পড়ন্ত বিকেলে স্বাস্থ্য বিভাগ থেকে ফোন আসে। অতিরিক্ত চাপ বিলম্বের কারন উল্লেখ করে প্রথমেই ক্ষমা চেয়ে নেন জাপানি ম্যানার অনুযায়ী । ফোনে আমার প্রয়োজনীয় তথ্য নিয়ে অক্সিমিটার এবং থার্মোমিটার আছে কিনা জানতে চাওয়া হয় । নেই জানানো হলে স্বাস্থ্য বিভাগ থেকে পাঠালে আপত্তি আছে কিনা জানতে চাওয়া হয় ।

আপত্তি নেই বরং কৃতজ্ঞ থাকবো জানালে পার্সেল করে পাঠানোর কথা উল্লেখ করেন এবং একটু অপেক্ষার কথা বলেন। কারন হিসেবে অতিরিক্ত চাহিদা এবং লোকবল স্বল্পতার কথা বিনয়ের সহিত জানান।

একদিন পর আজ বিকেলে পার্সেলটি আসে। করোনার কারনে সাইন না নিয়ে রেখে যাওয়ার কথা কলবেল এর মাধ্যমে জানান দিয়ে ডেলিভারীম্যান চলে যান । কিন্তু সাথে ঢাউস আকৃতির আরও ৩টি বক্স ! দরোজা খুলে আমার চোখ একেবারে চড়কগাছ । ভুল দেখছি নাতো ১ ডেলিভারিম্যান ভুল করেননি তো । ঘরে প্রবেশ করানোর পূর্বে স্বাস্থ্য বিভাগে ফোন করে কনফার্ম হই যে বক্স গুলো আমার জন্যই এবং এগুলো টোকিও মেট্রপলিটান গভর্নমেন্ট থেকে । করোনায় আক্রান্ত সবাইকে তা পাঠানো হচ্ছে বলে আশ্বস্থ করেন।

১০ দিনের খাদ্য সামগ্রী এবং বিভিন্ন পানীয় দিয়ে প্যাকেট গুলো পরিপূর্ণ ।

খাদ্য সামগ্রীর মধ্যে শুষ্ক , তরল , প্যাকেটজাত , প্রক্রিয়াজাত , নুডুলস , স্পাগেটি , বিভিন্ন স্যুপ , বিস্কিট , সাদা ভাত, ক্যালোরি মেড—- ।

পানীয়’র মধ্যে মিনারেল ওয়াটার , জুস , স্পোর্টস ড্রিঙ্কস , এনার্জি ড্রিঙ্কস , কফি , গ্রীন টি — কি নেই সেখানে ?

একজন লোক স্বাভাবিক জীবন যাপনে ১০ দিনের অতিরিক্ত হিসেবেই বিবেচ্য । কিন্তু রুচির উরপর নির্ভর করেই বিকল্প হিসেবে একাধিক রাখার উল্লেখ করা হয় সঙ্গে দেয়া নির্দেশাবলীতে।

এছাড়াও স্বাস্থ্য বিভাগ থেকে নিয়মিত খোঁজ নেয়া হচ্ছে । দেয়া হচ্ছে জরুরী সেবা দানের বিভিন্ন দিকনির্দেশনা ।

আমি একজন বিদেশী নাগরিক। জাপানে বৈধভাবে বসবাস করার কারনে একজন জাপানি নাগরিক যে সব সুযোগ সুবিধা পান , আমিও ঠিক একই । এটাকেই বলা হয় নাগরিক অধিকার । সরকার প্রতিটি নাগরিকের দেখভাল করে থাকেন নাগরিকদের প্রতি দায়বদ্ধতা থেকে। আর এই জন্যই জাপান ।।

ধন্যবাদ এবং কৃতজ্ঞতার শেষ নেই ।

rahmanmoni@gmail.com

Leave a Reply