বিদেশীদের প্রবেশাধিকারের উপর আরোপিত নিষেধাজ্ঞা শিথিল করছে জাপান ।

রাহমান মনি: জাপান সরকার আগামী মার্চ মাস থেকে দেশে আগত প্রবেশাধিকারের উপর আরোপিত নিষেধাজ্ঞা শিথিল করার নীতিগত সিদ্ধান্ত গ্রহন করার ঘোষণা দিয়েছে । ১মার্চ থেকে কার্যকর করা হবে ।

ক্ষমতাসীন জোটের লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টি এবং কোমেইতো বর্তমানের প্রবেশ নিষিদ্ধ থাকার বিষয়টি দ্রুত পর্যালোচনা করে দেখার আহ্বান জানানোর প্রেক্ষিতে কেন্দ্রীয় সরকার এ ঘোষণা দেয় ।

আজ বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় প্রধানমন্ত্রী ফুমিও কিশিদা তার কার্যালয়ে ডাকা এক সংবাদ সম্মেলনে এ ঘোষণা দেন ।

সংবাদ সম্মেলনে কিশিদা বলেন, বিদেশীদের প্রবেশাধিকার সংখ্যার সর্বোচ্চ সীমা বৃদ্ধি করে নেয়া এবং বিশেষ শর্তের আওতায় বিদেশিদের গ্রহণ করার বিষয়টি বিবেচনা করে দেখছে সরকার। বিদেশি সহ জাপানে প্রবেশের দৈনিক সর্বোচ্চ সংখ্যা সম্ভবত ৩,৫০০ থেকে ৫,০০০-এ বৃদ্ধি করা্র পরিকল্পনা গ্রহন করা হয়েছে বলে কিশিদা জানান ।

ভাইরাসের এই ধরন নিয়ে পাওয়া আরও বেশি উপাত্তের দৃষ্টান্ত এবং টিকার বুস্টার ডোজ বিতরণে অগ্রগতির সম্ভাবনা তুলে ধরেন কিশিদা । তিনি বলেন , আগামী দিন থেকে প্রতিদিন ১০ লাখ ডোজ করে টিকা দেয়ার ব্যবস্থা গ্রহন করা হয়েছে ।

ভাইরাসের এই রুপের বিষয়ে বিশেষজ্ঞদের কাছ থেকে পাওয়া বৈজ্ঞানিক প্রমাণের উপর ভিত্তি করে বর্তমানে নিষেধাজ্ঞা শিথিল করে তোলার বিষয়টি বিবেচনা করে দেখছে সরকার।

টিকার বুস্টার ডোজ যারা নিয়েছেন এবং যেসব অঞ্চলে ওমিক্রন ধরন ছড়াচ্ছে না সেখান থেকে এসেছেন, স্ব-বিচ্ছিন্ন অবস্থায় তাদের আর থাকতে হবে না বলে প্রত্যাশা করা হচ্ছে।

এছাড়া আগমনের তৃতীয় দিনে পরীক্ষায় নেগেটিভ প্রতীয়মান হলে স্ব-বিচ্ছিন্ন থাকা অবস্থার সমাপ্তি টানার অনুমতি দেয়াও বিবেচনা করে দেখছে সরকার ।

কিশিদা বলেন , সাতটি শিল্পোন্নত দেশগুলোর মধ্যে জাপানের আরোপিত সীমান্ত নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থা সবচেয়ে কঠোর । দেশে ও বিদেশে ব্যবসায়ী এবং শিক্ষার্থীদের কাছে জাপানের সীমান্ত নিয়ন্ত্রন ব্যাপক সমালোচনার মুখে পড়ে এবং ভাবমূর্তি নষ্ট হয় ।

বিষয়টি পর্যালোচনা করার জন্য ক্ষমতাসীন জোটের লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টি এবং কোমেইতো মঙ্গলবার চিফ ক্যাবিনেট সেক্রেটারি মাৎসুনো হিরোকাযু এবং অন্যান্যদেরকে পৃথক ভাবে প্রস্তাব পেশ করেছে। বিদেশি শিক্ষার্থীরা সরকারি বৃত্তি পাচ্ছে কি না তা বিবেচনা না করে তাদেরকে দেশে প্রবেশের অনুমতি দেয়ার জন্য দুটি দলই আর্জি জানায় ।

লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টির প্রস্তাবে বলা হয় যে বিদেশি প্রবেশকারীর দৈনিক সর্বোচ্চ সীমা যাই হোক না কেন বিদেশি শিক্ষার্থীদের জন্য সরলীকৃত পদ্ধতি অনুসরণ করে তারা যাতে দেশে প্রবেশ করতে পারে সেই ব্যবস্থা করা উচিত।

কোমেইতো’র প্রস্তাবে বলা হয় , সরকারের উচিত বিদেশি শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে আবেদনপত্র গ্রহণ পুনরায় শুরু করা যাতে করে পয়লা মার্চ থেকেই তারা দেশে প্রবেশ করতে পারে।

উল্লেখ্য ওমিক্রন রুপের বিস্তারের মুখে গত বছর নভেম্বর মাসে অনাবাসিক বিদেশিদের জন্য প্রবেশ নিষিদ্ধ করেছিল সরকার। এছাড়াও ওমিক্রন ধরনের করোনাভাইরাসের আরও বিস্তার বন্ধ করার উদ্দেশ্যে দেশে ফিরে আসা জাপানি এবং অন্যান্য দেশের বসবাসকারীদের জাপানে পৌঁছুবার পর সাত দিন ধরে স্ব-বিচ্ছিন্ন থাকতে হতো । নতুন ঘোষণায় তা ৩ দিন করার কথা বলা হয়েছে।

আজ জাপান ব্যাপী সনাক্তের সংখ্যা ছিল ৯১ হাজার ৫১ জন । এর মধ্যে টোকিওতে ১৭ হাজার ৩৩১ জন ।

Leave a Reply