মোল্লাকান্দিতে আওয়ামী লীগের ৩ শতাধিক নেতাকর্মী গ্রামছাড়া

মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার মোল্লাকান্দি ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের ৩ শতাধিক নেতাকর্মী গ্রামছাড়া। গত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে পরাজিত চেয়ারম্যান প্রার্থীর সমর্থক হওয়ায় তারা গ্রামছাড়া। ইউনিয়নটিতে জয়ী চেয়ারম্যান রিপন হোসেন পাটোয়ারীর সমর্থকদের একচেটিয়া আধিপত্য বিস্তারে পরাজিত চেয়ারম্যান প্রার্থী ও সাবেক চেয়ারম্যান মহসিনা হক কল্পনার সমর্থকরা গ্রামছাড়া হয়ে পড়ে।

গত বছরের ২৮শে নভেম্বর মুন্সীগঞ্জ সদরের চরাঞ্চলের মোল্লাকান্দি ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন হয়। এই নির্বাচনে আওয়ামী লীগ সমর্থিত সাবেক চেয়ারম্যান মহসিনা হক কল্পনা পরাজিত হলে জয়ী চেয়ারম্যান রিপন হোসেন পাটোয়ারির সমর্থকদের দখলে চলে যায় মোল্লাকান্দি ইউনিয়ন। ইউনিয়নের কয়েকটি গ্রামের ৩ শতাধিকের বেশি লোক গ্রামছাড়া হয়ে পড়ে। এসব গ্রামছাড়া লোকদের গ্রামে ফিরিয়ে নেয়ার জন্য স্থানীয় পুলিশ প্রশাসনের কাছে ভুক্তভোগীরা যোগাযোগ করেও কোনো প্রতিকার পাননি বলে অভিযোগ। খোদ ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আজহার মোল্লাই বর্তমান চেয়ারম্যান গ্রুপের সন্ত্রাসীদের ভয়ে গ্রামছাড়া রয়েছেন।
মুন্সীগঞ্জ-৩ আসনের এমপি ও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক সম্পাদক এডভোকেট মৃণাল কান্তি দাসও গ্রাম থেকে বিতাড়িত দলীয় নেতাকর্মীদের গ্রামে উঠিয়ে দেয়ার চেষ্টা করছেন। কিন্তু চেয়ারম্যান রিপন হোসেন পাটোয়ারির সন্ত্রাসীদের একচ্ছত্র আধিপত্যের কারণে গ্রামছাড়া লোকজন পরিবার পরিজন নিয়ে অন্যত্র দিনযাপন করছেন।

জানা গেছে, কংশপুরা গ্রামের মোল্লাকান্দি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক মেম্বার আজাহার মোল্লা, মধ্য মাকহাটি গ্রামের সাবেক মহিলা মেম্বার হালিমা বেগম, রাজারচর গ্রামের জাকির সরকার, চরডুমুরিয়া গ্রামের মোহন মাদবর, রাজারচর গ্রামের সাবেক মেম্বার আলমগীর হোসেন, মাকহাটি গ্রামের আজিজুল মোল্লা, মহেশপুর গ্রামের ইউসুফ ফকির, জাহাঙ্গীর সরকারসহ বিভিন্ন গ্রামের প্রায় ৩ শতাধিক দলীয় নেতাকর্মী গ্রামছাড়া হয়ে মানবেতর দিনযাপন করছেন। গ্রামছাড়া লোকজনের মধ্যে অধিকাংশই রয়েছে মহেশপুর গ্রামের। এ গ্রামের অনেকের নামে মিথ্যা মামলা দেয়ারও অভিযোগ রয়েছে।

মধ্য মাকহাটি গ্রামের হালিমা বেগম গতবার ১, ২ ও ৩নং ওয়ার্ডের সংরক্ষিত মেম্বার ছিলেন। গত বছরের ২৮শে নভেম্বর অনুষ্ঠিত নির্বাচনে তিনি পুনরায় মেম্বার পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে পরাজিত হন। পরাজিত হওয়ার পর গত ৩রা ফেব্রুয়ারি মোল্লাকান্দি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আওয়ামী লীগ নেতা রিপন হোসেন পাটোয়ারির সমর্থক মুন্সীগঞ্জ জেলা বিএনপি নেতা ও তার লোকজন হালিমা বেগমের বাড়িতে হামলা চালায়। সাবেক মহিলা মেম্বার হালিমা বেগমের বাড়িঘর ভাঙচুর ও লুটপাট করে। এ সময় হালিমা বেগমের স্বামী শাহাবুদ্দিন মাদবর (৬৫)কে বেধড়ক পিটিয়ে জখম করে গ্রামছাড়া করে। এ ঘটনায় মুন্সীগঞ্জ সদর থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। গত ২০শে জানুয়ারি মহেশপুর গ্রামের ইউসুফ ফকিরের বাড়িঘর ভাঙচুর করে লুটপাট করা হয়। পরে ঘরে অগ্নিসংযোগ করা হয়। বাড়ির বিদ্যুত সংযোগও বিচ্ছিন্ন করে দেয়া হয়। এ ঘটনায় আদালতে মামলা করা হয়েছে। প্রতিপক্ষ অনেকের বিরুদ্ধে সাজানো মামলা দেয়ারও অভিযোগ আছে।

মোল্লাকান্দির গ্রামছাড়া লোকজনের বিষয়ে মুন্সীগঞ্জ পৌরসভার মেয়র হাজী মোহাম্মদ ফয়সাল বিপ্লব বলেন, এই বিষয়ে আমার জানা নেই। তবে, সবাই মিলেমিশে শান্তিতে থাকুক এটা আমি চাই।

এ ব্যাপারে স্থানীয় সংসদ সদস্য ও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক সম্পাদক এডভোকেট মৃণাল কান্তি দাস জানান, মোল্লাকান্দির বিষয়ে আমি জ্ঞাত রয়েছি। দলমত নির্বিশেষে প্রতিটি মানুষ তাদের ঘরে থাকবে, দলের মধ্যে মতপার্থক্য থাকতেই পারে। এজন্য তাদের গ্রামছাড়া করে রাখবে- এটা ঠিক নয়। দলমতের ঊর্ধ্বে গ্রামছাড়া মানুষগুলোকে তাদের গ্রামে থাকার ব্যবস্থা ও নিরাপত্তা দেয়ার জন্য প্রশাসনের কাছে তিনি আহ্বান জানান।

এ ব্যাপারে মুন্সীগঞ্জ পুলিশ সুপার আব্দুল মোমেন পিপিএম জানান, মোল্লাকান্দির ঘটনায় আগে দুই পক্ষের শীর্ষ রাজনীতিবিদদের এগিয়ে আসতে হবে। যারা বাড়িতে নেই, তারা বাড়িতেই থাকবে। কেউ প্রতিবন্ধকতার সৃষ্টি করলে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

মানবজমিন

Leave a Reply