শ্রীনগরে কোটি কোটি টাকা ব্যায়ে নির্মিত বাস স্টেশনগুলো ফাঁকা পড়ে আছে: বাস থামছে যত্রতত্র

আরিফ হোসেনঃ শ্রীনগরে কোটি কোটি টাকা ব্যায়ে নির্মিত ঢাকা-মাওয়া এক্সপ্রেসওয়ের বাস স্টেশনগুলো ব্যবহার হচ্ছে না। পুরাতন স্ট্যান্ডে বর্তমানে রাস্তা হলেও সেখানেই বাস থামছে। নিজেদের ইচ্ছেমত বাস থামার কারনে যাত্রীদেরকে দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। একারনে প্রায় সময়ই ঘটছে নানা রকম দুর্ঘটনা।

গত ১ মার্চ মঙ্গলবার সকাল ১০ টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত ছনবাড়ী ফ্লাইওভারের নীচে ২ পাশের বাস স্ট্যান্ড ২টিতে লক্ষ করা যায় একটিও বাস থামছে না।

ঢাকা থেকে মাওয়াগামী বাসগুলো নির্ধারিত এই বাস স্ট্যান্ড থেকে প্রায় ৩শ গজ উত্তরে ফøাইওভারের উত্তর পাশের মাথায় যাত্রী নামিয়ে দিয়ে চলে যাচ্ছে। আবার মাওয়া থেকে ঢাকা গামী বাসগুলো একই স্থানের উল্টো পাশ থেকে যাত্রী তুলে নিচ্ছে। একারনে কোটি কোটি টাকা ব্যায়ে নির্মিত ২ পাশের স্টেশন দুটি যাত্রী ছাউনিসহ বেকার পরে আছে।

ঢাকা থেকে-মাওয়াগামী বসুমতি পরিবহনের ১টি বাসকে দেখা যায় এই বাস স্ট্যান্ডের আগেই যাত্রীদেরকে নামিয়ে দিচ্ছে। সেই বাসের যাত্রী উপজেলার আটপাড়া গ্রামের আমেনা বেগম(৬২)তার হাতে থাকা ডাক্তারি ফাইল দেখিয়ে বলেন, আমি অসুস্থ্য মানুষ। ঢাকায় ডাক্তারের কাছে গিয়েছিলাম। এখন এই রৌদ্রের মধ্যে নাতির কাধে ভর দিয়ে হেঁটে বাস স্টেশনে গিয়ে অটোরিক্সায় নিয়ে বাড়িতে যেতে হবে।

বিকাল ৩টা থেকে ৫টা পর্যন্ত ষোলঘর বাস স্ট্যান্ডগুলোর চিত্রও ছিল অনুরুপ। একটি বাসও স্টেশন গুলোতে থামেনি। ঢাকা থেকে মাওয়াগামী বাসগুলো থামছে নির্ধারিত স্টেশন থেকে প্রায় ৪শ গজ দক্ষিনে। মাওয়া থেকে ঢাকাগামী বাসগুলোও বিপরীত পাশ থেকে যাত্রী তুলে নিচ্ছে।

গত ২ মার্চ বুধবার সকাল ৯টা থেকে ১১ টা পর্যন্ত একই চিত্র দেখা যায় হাঁসাড়া বাজার স্টেশনের ক্ষেত্রেও। হাঁসাড়া এলাকায় আশরাফুল ইসলাম নামে এক পথচারী বলেন, কি কারণে যে এই বাস স্ট্যান্ডগুলো বানানো হয়েছে তা ভেবে পাচ্ছি না। যেখানে খুশি সেখানেই বাসগুলো যাত্রী নামাচ্ছে উঠাচ্ছে। কিন্তু স্টেশনে কখনোই থামছে না। তবে বেঁজগাও বাস স্ট্যান্ডে প্রতিনিয়ত বাস থামছে এবং সুশৃংখল ভাবে যাত্রী উঠানামা করছে।

২ দিনে এই ৩টি স্টেশনে কোন বাস না থামার ব্যাপারে হাইওয়ে পুলিশেরও কোন তৎপরতা চোখে পরেনি।

হাঁসাড়া হাইওয়ে থানার ওসি আফজাল হোসেন বলেন, বাস স্ট্যান্ডের যাত্রী ছাউনিগুলোর কারনে বাস থামতে অসুবিধা হয়। তবে যত্রতত্র যাত্রী উঠা নামার বিষয়ে তদারকি করা হবে।

Leave a Reply