মুন্সীগঞ্জে হিমাগারগুলোতে আলু সংরক্ষণ শুরু, নির্দিষ্ট করা হয়নি ভাড়া

মুন্সীগঞ্জের হিমাগারগুলোতে আলু সংরক্ষণ শুরু হয়েছে। ইতিমধ্যেই হিমাগারগুলোতে আসতে শুরু করেছে প্রচুর পরিমাণ আলু। তবে এই সমস্ত আলু অধিকাংশই আসছে উত্তরবঙ্গ হতে। এখনো মুন্সিগঞ্জে পুরোপুরি আলু উত্তোলন শুরু হয়নি।

তাই মুন্সিগঞ্জের পাইকাররা উত্তরবঙ্গের রাজশাহী দিনাজপুর, নাটোর, রংপুর হতে আলু কিনে এনে হিমাগারে সংরক্ষণ করছেন। মুন্সিগঞ্জের প্রধান ফসল আলু। প্রতিবছর এ জেলায় প্রচুর আলুর আবাদ হয়। মৌসুমের শুরুতে বাজারে আলুর দাম কিছুটা কম থাকায় প্রতি বছর এখানে উৎপাদিত বিপুল আলু হিমাগারে সংরক্ষন করেন কৃষক ও আলু ব্যবসায়ীরা। পাশাপাশি অন্য জেলা হতেও আলু এনে এ জেলার হিমাগারে সংরক্ষন করা হয়। পরে যখন আলু চাহিদা ও দাম বাজারে বৃদ্ধি পায় তখন হিমাগারগুলো হতে সরবরাহ করেন কৃষক, ব্যবসায়িরা। আলু উৎপাদনের তুলনায় কৃষকের সংরক্ষনের জায়গা স্বল্পতার কারণে প্রতিবছর হিমাগারে আলু রাখতে কৃষকরা ভিড় করেন। এ সুযোগ কাজে লাগিয়ে প্রতিবছরই মালিকেরা হিমাগারে আলু রাখার ভাড়া বাড়িয়ে দেন। তবে এ বছর মুন্সিগঞ্জের হিমাগার গুলোতে ভাড়া বাড়বেনা বলে জানাচ্ছেন সংশ্লিষ্টরা।

সিদ্ধেশ্বরী হিমাগারের ব্যবসায়ী মোশাররফ হোসেন বলেন, এখনো মুন্সিগঞ্জের আলু উত্তোলন শুরু হয়নি। তাই রাজশাহী, দিনাজপুর হতে আলু কিনে এনে হিমাগারে রাখতেছি। এ বছর ওই অঞ্চলের জমিতে ১৫ টাকা কেজি দরে আলু বিক্রি হচ্ছে। কোল্ড ষ্টোরর ভাড়াসহ ২০থেকে ২১টাকা প্রতি কেজি আলু পড়বে। গত বছর আলুর দাম কম হওয়ায় লোসকান হয়েছে।

অপর এক ব্যবসায়ী রিপন বলেন, গতবছর লোকসান হয়েছে। এবার আবার আলু কিনা রাখতেছি। প্রতি কেজি আলু এখন রাজশাহী, দিনাজপুর হতে ১৫ টাকা কেজি দরে কিনে আনছি।

মুন্সিগঞ্জ কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানাযায়, চলতি মৌসুমে জেলায় ৩৫ হাজার ৮শ হেক্টর জমিতে আলু আবাদ হয়েছে। এবছর এখন পর্যন্ত প্রতি হেক্টরে ২৫ মেট্রিকটন করে আলু পাওয়া গেছে। সে হিসেবে এ এবছর ৮ লাখ ৯৫ হাজার মেট্রিকটন আলু উৎপাদন হতে পারে।

জেলায় আলু সংরক্ষণের জন্য ৬৪টি সচল হিমাগার রয়েছে। এসব হিমাগারের সাড়ে পাঁচ লাখ মেট্রিকটন আলু সংরক্ষণ করা যাবে। ফলে প্রায় ৩ লাখ মেট্রিকটন আলু সংরক্ষণের বাহিরে থাকে।

ইউনুস কোল্ডস্টোরেজ লিমিটেড এর ক্যাশিয়ার মোঃ রাজিব হোসেন বলেন, আমাদের ভাড়া এবছর এখনো নির্ধারণ করা হয়নি। তবে মনে হয়না এবার ভাড়া বাড়ানো হবে।

বাংলাদেশ কোল্ডস্টোরেজ অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি মোসারফ হোসেন বলেন, বিদ্যুৎ বিল, গ্যাস বিল, জেনারেটর চার্জ, হিমাগার লোড- আনলোড খরচ, লেবার খরচ ও আনুষঙ্গিক খরচসহ হিমাগারে প্রতি কেজি আলু সংরক্ষণের ন্যূনতম ৪টাকা ৮০ পয়সা ব্যয় হয়। গত বছর হিমাগারে আলু সংরক্ষণের জন্য কেজি প্রতি ৫ টাকা ভাড়া নির্ধারণ করা হয়েছিল। এবছর খরচ বেশি হওয়ায় আরো ২৫ পয়সা বেশি ভাড়া নির্ধারন করা হয়েছে। এর কম হলে লোকসান গোনা ছাড়া উপায় থাকবেনা। মুন্সিগঞ্জে হিমাগারের সংখ্যা বেশি। সেখানে হিমাগারে আলু ঢোকানো নিয়ে প্রতিযোগিতা হয়। তাই অন্য জেলার তুলনায় ভাড়াও কম।

দেওয়ান কোল্ড স্টোরেজের মালিক আরশ দেওয়ান বলেন, তার হিমাগারে সাত লক্ষ বস্তা আলু রাখা হয়। গত বছর ৫০ কেজির বস্তা ২০০ টাকা করে ভাড়ায় রাখা হয়েছিল। এবারও এ ভাড়ায় রাখা হবে।

মাল্টিপারপাস হিমাগারের মালিক গোলাম মুস্তাফা বলেন, গত বছর ৫২-৫৫ কেজির বস্তা হিমাগারে রাখতে ২৩০ টাকা ভাড়া নির্ধারণ করা হয়। চলতি মৌসুমে হিমাগারে আলু সংরক্ষণের ভাড়া নির্ধারণ করা হয়নি।

রিভারভিউ কোল্ড স্টোরেজের ব্যবস্থাপক রেজাউল করিম বলেন, আমাদের হিমাগারে ১ লাখ ৭০ হাজার বস্তা আলু রাখা হয়। শুনেছি বিদ্যুত বিল আগের চেয়ে বাড়ানো হবে।সেটার উপর ভিত্তি করে হয়তো ভাড়া নির্ধারণ হবে। আগের চেয়ে বাড়বে কিনা সেটা এখনো নিশ্চিত না।

মুন্সিগঞ্জ সদর উপজেলার যোগনীঘাট এলাকার আলুচাষি সাইফুল ইসলাম বলেন,এমনিতেই গত মৌসুমে আলুতে অনেক বড় লোকসান হয়েছে। আলুর দাম কম।অন্যান্য খরচ বেশি। ৫০ কেজির বস্তা আলু হিমাগারে সংরক্ষণ করতে ২০০ টাকার বেশি নেওয়া হলে সেটা জুলুম হবে।

আলুতে লোকসান কমিয়ে আনার বিষয়ে কোল্ডস্টোরেজ অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি মোসারফ হোসেন আরো বলেন, ১০-১৫ বছর আগে মুন্সিগঞ্জ জেলায় ব্যাপক আলুর উৎপাদন হতো। সে হিসেবে মুন্সিগঞ্জে অসংখ্য হিমাগার গড়ে ওঠে। তবে এখন দেশের উত্তরাঞ্চলের জেলাগুলোতে আলুর ব্যাপকভাবে আবাদ শুরু হয়েছে। এর ফলে দেশে আলু উৎপাদনের পরিমাণ অনেক বেড়েছে। আলু সংরক্ষণের পরেও অনেক আলু থেকে যাচ্ছে। এতে আলুর দাম কমে যাচ্ছে। এতে প্রতি বছরই কৃষক, ব্যবসায়ী ও হিমাগার মালিকদের মোটা অংকের টাকা লোকসান গুনতে হচ্ছে। সরকারের উচিত আলুকে শিল্পে রূপ দেওয়া। আলু ভিত্তিক শিল্প শিল্প প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলা। ভাতের বিকল্প হিসেবে আলুকে খাদ্য হিসেবে গ্রহণ করা। সব শেষে যে বছর আলুর উৎপাদন বেশি হবে,তখন ভর্তুকি হিসেবে আলু কিনবে সরকার।

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মো. খুরশিদ আলম বলেন দেশে আলুর ভবিষ্যৎ ভালো নয়। দেশে যে পরিমাণ আলু উৎপাদন হয়। প্রয়োজনের তুলনায় ৪০ ভাগ বেশি আলু উৎপাদ হয়। বিদেশে আলু রপ্তানি করা যাচ্ছে না। প্রয়োজনের তুলনায় আলু বেশি হওয়ায় দাম কমে যাচ্ছে। কৃষক ও ব্যবসায়ীদের লোকসান গুনতে হচ্ছে। এর মধ্যে হিমাগার ভাড়া বাড়ানো হলে কৃষকরা আরো বেশি ক্ষতিগ্রস্থ হবে।

সোনালীনিউজ

Leave a Reply