কোলাপাড়ায় ইউপি সদস্যের ড্রেজার বাণিজ্যে ভোগান্তি

শ্রীনগর উপজেলার কোলাপাড়া ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ডের নবনির্বাচিত ইউপি সদস্য মাহাবুব সাহার ড্রেজার বাণিজ্যে মানুষের ভোগান্তি বেড়েছে। ওই ইউনিয়নের গাবতলা ওয়াসা রোড সংলগ্ন চকে কৃষিজমি ও মানুষের চলাচলের রাস্তার ওপর দিয়ে যত্রতত্রভাবে ড্রেজার পাইপলাইন টানার ফলে এ প্রতিবন্ধকতার সৃষ্টি হয়।

অপরদিকে ড্রেজার বাণিজ্যকে কেন্দ্র করে প্রায় সপ্তাহ খানেক আগে সিন্ডিকেটটি এলাকায় বিরোধে জড়িয়ে পড়ে। এ নিয়ে মেম্বার মাহাবুব সাহার লোকজন একই এলাকার অপর ড্রেজার ব্যবসায়ী মো. শাহিনুর হাওলাদারের ওপর হামলা চালায়। এ ঘটনায় শাহিনুর শ্রীনগর থানায় অভিযোগ দায়ের করেন।

সরেজমিনে দেখা যায়, কোলাপাড়া গাবতলার ঢাকা ওয়াসা সড়কের কালভার্টের নিচ দিয়ে ড্রেজারের ১২টি পাইপলাইন দক্ষিণ কোলাপাড়া রাস্তার ওপর দিয়ে নেয়া হয়েছে। অপরদিকে কবুতরখোলা বাজার থেকে প্রায় ১ কিলোমিটার কৃষিজমির ওপর দিয়ে যত্রতত্রভাবে ওয়াসা রোডের কালভার্ট পর্যন্ত ড্রেজারের লাইনটি টেনে আনা হয়। এতে ফসলি জমিগুলো হুমকির মুখে পড়েছে। দীর্ঘ পাইপলাইনের কারণে ধানি জমি পরিচর্যা ও বিভিন্ন কাজকর্মে কৃষক ভোগান্তি শিকার হচ্ছেন। এমনটাই জানান ভুক্তভোগীরা।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন স্থানীয় কৃষক জানায়, ড্রেজারের পাইপ থেকে বালু ও পানি পড়ে জমিতে ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হচ্ছে। তাছাড়া, যত্রতত্রভাবে ড্রেজার পাইপের কারণে আবাদি জমিগুলোতে কাজ করতে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। ড্রেজার ব্যবসায়ীরা এলাকায় প্রভাবশালী হওয়ায় ভয়ে কেউ মুখ খুলতে সাহস পায় না।

অপর একটি সূত্র জানায়, গেলো ইউপি নির্বাচনে কোলাপাড়া ইউনিয়নের এক ওয়ার্ডের নবনির্বাচিত মেম্বার মাহাবুব সাহা ও প্রতিদ্বন্দ্বী ইউপি চেয়ারম্যান প্রার্থী মোস্তাফিজুর রহমান জনেট ড্রেজার সিন্ডিকেট ও দক্ষিণ কোলাপাড়ার সাবেক মেম্বার হুমায়ুন মেম্বারের ভাই শাহিনুরের ড্রেজার পাইপলাইন টানা নিয়ে বিরোধের সৃষ্টি হয়। এ নিয়ে মাহাবুবের লোকজন শাহিনুরকে মারধর করে। যে কোনও সময়ে ড্রেজার বাণিজ্যকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা করছেন স্থানীয়রা।

শাহিনুর হাওলাদারের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমি অন্য ড্রেজারে কাজ করি। আমি কাজে গেলে মাহাবুব সাহার ব্যবসায়ীক পার্টনার জনেট ও তার লোকজন আমাকে মারধর করে। ইউপি সদস্য মাহাবুব সাহা’র কাছে এ বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, সারা দেশে এভাবে ড্রেজার ব্যবসা করছে। আমিও করছি। আমার ড্রেজারের ছাড়পত্র নেই।

মারধরের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমি তখন ছিলাম না। এ বিষয়ে মোস্তাফিজুর রহমান জনেটের কাছে জানতে চাইলে তিনি, আওয়ামী লীগের আমলে বিএনপির লোকজন আমাদের ড্রেজার পাইপ ভাঙ্গায় উত্তেজনার সৃষ্টি হয়েছিল। তবে মারামারির ঘটনা ঘটেনি।

স্থানীয় ভূমি উপ-সহকারী কর্মকর্তা উত্তম কুমার জানান, আমি বেশ কিছুদিন আগে উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের ড্রেজারটির বিষয়ে অবহিত করেছি। অসুস্থতার জন্য ছুটিতে আছি কাজে ফিরে ঘটনাস্থলে যাব।

এ ব্যাপারে শ্রীনগর থানার অফিসার ইনচার্জ মো. আমিনুল ইসলাম জানান, ড্রেজার সংক্রান্ত বিষয়ে একটি অভিযোগ হয়েছে। তদন্ত চলছে।

নিউজজি

Leave a Reply