ধুলায় ঢাকা সিরাজদীখানের পথঘাট

ইমতিয়াজ উদ্দিন বাবুল: ধুলার রাজ্যে পরিণত হয়েছে মুন্সীগঞ্জের সিরাজদীখান উপজেলা। এর জন্য মাটিবাহী ড্রাম ট্রাক ও মাহেন্দ্রা নামের যানবাহনগুলোকে দায়ী করছেন উপজেলার বাসিন্দারা। তাদের অভিযোগ, উপজেলার নানা স্থানের ফসলি জমির মাটি কেটে তা না ঢেকেই এক স্থান থেকে অন্য স্থানে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। এতে ঢাকা-মাওয়া মহাসড়কসহ উপজেলার অন্যান্য সড়কে চলাচলকারী জনসাধারণকে বিপাকে পড়তে হচ্ছে। সড়কের আশপাশের ঘরবাড়ি, দোকানপাট ও গাছপালা ছেয়ে গেছে ধুলায়। অনেক সময় সামনে ট্রাক গেলে ধুলার কারণে পেছনে কিছুই দেখা যায় না। যাত্রী ও যানবাহন চালকদের শ্বাস নিতেও কষ্ট হয়।

স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মকর্তারা বলছেন, শ্বাসনালি দিয়ে ধুলাবালু প্রবেশের কারণে ফুসফুস ক্যান্সারের মতো জটিল রোগও হতে পারে। এ ছাড়া শ্বাসকষ্ট, চুলকানি, হাঁপানি, যক্ষ্ণাসহ নানা জটিল রোগে আক্রান্ত হয়ে পড়ছে মানুষ। এ থেকে রক্ষা পেতে নিয়মিত মাস্ক ব্যবহারের পরামর্শ দেন তারা।
সরেজমিন উপজেলার বালুচর, লতব্দী, বাসাইল, কেয়াইন, চিত্রকোট, রশুনিয়া, বয়রাগাদী ও শেখরনগর ইউনিয়ন ঘুরে ধুলার তাণ্ডব দেখা গেছে। বসতবাড়ি, স্কুল-কলেজ, মাদ্রাসা-মসজিদ, ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান, চায়ের দোকান, মুদি দোকান, খাবার হোটেল, সরকারি-বেসরকারি হাসপাতাল-ক্লিনিক, ব্যাংক-বীমা কোনো প্রতিষ্ঠানই ‘ধুলা সন্ত্রাসে’র আওতার বাইরে নেই।

নিমতলা সড়কের পাশের মুদি দোকানি সাগর দাস বলেন, এ সমস্যা আজকের নয়। অনেক দিন ধরে চলছে। রাস্তায় গাড়ি এসে থামার সঙ্গে সঙ্গে পেছন থেকে ধুলা এসে ভরে যায়। মিনিটের মধ্যে দোকানসহ তার শরীর সাদা হয়ে যায় বলেও জানান তিনি।

ইছাপুরা মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. নাছির উদ্দিন বলেন, ‘এ উপজেলায় চলার পথে ধুলায় আমরা নাকাল। এর কারণে বিভিন্ন রোগবালাই হচ্ছে মানুষের। এই মুহূর্তে সবার উচিত মাস্ক ব্যবহার করা।’

স্থানীয়দের অভিযোগ, উপজেলার ১৪টি ইউনিয়নের বেশিরভাগ এলাকার ফসলি জমির মাটি কেটে নিচ্ছে প্রভাবশালী ব্যবসায়ীরা। এর পাশাপাশি তারা বালু দিয়ে বিভিন্ন ডোবা-নালা ও জমি ভরাট করে চলেছে। এসব মাটি ও বালু বহনে ব্যবহার করা হচ্ছে অবৈধ মাহেন্দ্রা ও ড্রাম ট্রাক। খোলা গাড়িতে মাটি-বালু নেওয়ায় বাতাসে ধুলাবালু উড়ছে বেশি।

সিরাজদীখান উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা আঞ্জুমান আরা বলেন, ‘ধুলাবালুর কারণে শুধু যে শ্বাসনালির ক্ষতি হয় বা ফুসফুস আক্রান্ত হতে পারে তা নয়, শরীরের বিভিন্ন অঙ্গ-প্রত্যঙ্গেও তা প্রভাব ফেলতে পারে। বর্তমানে হাসপাতালে আশঙ্কাজনকভাবে বায়ুদূষণের কারণে রোগবালাইয়ে আক্রান্তের সংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছে।’

সমকাল

Leave a Reply