শেখরনগরে ইছামতি তীরে কালীপূজা ও গ্রামীণ মেলায় লাখো মানুষের ঢল

জেলার সিরাজদিখান উপজেলার শেখরনগরে ইছামতি নদী তীরে সনাতন ধর্মালম্বীদের ঐতিহ্যবাহী কালিপূজা ও গ্রামীণ মেলায় লাখো মানুষের ঢল নেমেছে।

৫০০ বছরের পুরনো এই পূজা ঘিরে শুরু হয়েছে গ্রামীণ মেলা। পূজা একদিনের হলেও মেলা চলবে সপ্তাহব্যাপী। ৯০১ বঙ্গাব্দ থেকে এখানে কালিপূজা ঘিরে এই উৎসব হয়ে আসছে।

মঙ্গলবার থেকে শেখরনগর কালি মন্দির প্রাঙ্গণে এ পূজা শুরু হয়েছে। উৎসব মুখর পরিবেশ বিরাজ করছে সেখানে। সনাতন ধর্মালম্বীদের পূজা হলেও মেলা ঘিরে সার্বজনীন উৎসবে রুপ নিয়েছে। আয়োজকরা জানান, বাংলাদেশের বিভিন্ন প্রান্তের পূঁজারী ছাড়াও ভারত, শ্রীলংকা ও নেপাল থেকে সাধু-সন্যাসীদের সমাগম ঘটছে দীর্ঘদিন থেকে। সাধু-সন্যাসীদের এক অভূতপূর্ব মিলনমেলায় পরিণত হয়েছে।

এ পূজার প্রধান আকর্ষণ হচ্ছে পাঠাবলি। আর পাঠাবলি দেখতে সেখানে ভিড় পড়ে যায়। বুধবার ভোর থেকে পাঠাবলি দেয়া শুরু হয়। বলি দেয়া হবে কবুতরও। শেখরনগর ইউপি চেয়ারম্যান দেবব্রত সরকার টুটুল বলেন, ‘এবার ৪ হাজারের বেশি পাঠাবলি দেয়া হচ্ছে। আর কয়েক হাজার কবুতর বলি দেয়া হবে।

উৎসবটি ঘিরে বসেছে বিশাল মেলা। শতাধিক স্টল বরাদ্দ দেয়া হয়েছে মেলায়। রাত যত বাড়তে থাকে পুজা ও মেলা প্রাঙ্গণে লোক সমাগম তত বাড়তে থাকে। লাখো মানুষ সমাগম ঘটে এ পূজায়। শিশুদের জন্য নাগর দোলা, হর্স রেস ও রেলওয়ে ভ্রমন ব্যবস্থা রয়েছে রয়েছে মেলায়। লোহার তৈরী দা, কুড়াল, বটি, কাচি, হাসুয়া, কোদালসহ গৃহস্থালী কাজের রকমারি জিনিসপত্র পাওয়া যায়। বাঁশ ও কাঠের তৈরী নানা আসবাপত্র, কুটির শিল্পের নানা পন্য এবং মিষ্টান্নের সঙ্গে কসমেটিকস সামগ্রীতে সেজেছে মেলার স্টল গুলো।

মেলা কমিটির আহবায়ক সিরাজদিখান উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি হাজী মহিউদ্দিন আহমেদ বলেন, করোনার কারণে গত বছর পূজা হলেও বন্ধ রাখা হয়েছিল মেলা। তবে এবার পূনাঙ্গ উৎসব ও মেলা হচ্ছে। তাই এবার লোক সমাগম বেশী। তাই বিপুল সংখ্যক আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী নিরাপত্তার চাঁদরে ঢেকে রেখেছে পুরো এলাকা।

সিরাজদিখান থানার ওসি মোহাম্মদ বোরহানউদ্দিন বলেন- নিরাপত্তায় সাড়ে ৩০০ আইন-শৃঙখলা বাহিনী কাজ করছে।’

শেখরনগর কালি মন্দিরের সভাপতি রতন দাস বলেন- কালি পুজা ও মেলায় লাখো মানুষের সমাগম ঘটেছে। বুধবার ভোর ৫টা থেকে কালি মন্দিরে পাঠাবলি ঘিরে বিশেষ ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। অনেকেই মানত করা পাঠা নিয়ে আসছেন এখানে বলি দিতে। আর কবুতর অসংখ্য।

বাসস

Leave a Reply