কালের সাক্ষী পাঁচশ বছরের বাবা আদম মসজিদ

আরাফাত রায়হান সাকিব: মুন্সিগঞ্জ সদরের দরগাহবাড়ি এলাকায় ইসলামী আধ্যাত্মিক সাধক শহীদ বাবা আদমের নামে ১৪৮৩ সালে নির্মিত মসজিদটি কালের সাক্ষী হয়ে দাঁড়িয়ে আছে। নির্মাণের পর ৫৩৯ বছর পেরিয়ে গেলেও প্রতি ওয়াক্তে মসজিদ থেকে ভেসে আসে মুয়াজ্জিনের আযানের ধ্বনি। সেই ধ্বনিতে ছুটে যান মুসল্লিররা। সমবেত কাতারে আদায় করেন নামাজ, শত শত বছরেও একদিনের জন্যও বন্ধ হয়নি নামাজ।

জানা যায়, সৌদি আরবের পবিত্র মক্কা নগরের ৮০ কিলোমিটার দূরের তায়েফ নগরীতে ১০৯৯ সালে জন্মগ্রহণ করেন ইসলাম ধর্ম প্রচারক বাবা আদম। তার জন্মের ১৫ দিন আগে তার বাবা ফিলিস্তিনে ক্রুসেডে মৃত্যুবরণ করেন। পরবর্তী সময়ে আধ্যাত্মিক জ্ঞান সাধনায় বড় পীর হজরত আবদুল কাদের জিলানী (রহ.) সহচর্যায় বর্তমান ইরাকের বাগদাদে শিক্ষাগ্রহণ করেন তিনি। শিক্ষাগ্রহণ শেষে মাত্র ১২ জন অনুসারী নিয়ে বাংলাদেশে এসেছিলেন ইসলামী আধ্যাত্মিক সাধক বাবা আদম। তারা প্রথমে ইসলামাবাদ (চট্টগ্রাম) ও পরে বগুড়া যান।

এরমধ্যে তার এক অনুসারী তৎকালীন বিক্রমপুর তথা আজকের মুন্সিগঞ্জের আসেন। সে সময় বিক্রমপুর ছিলো অত্যাচারী রাজা বল্লাল সেনের শাসনে। বড়পীর আব্দুল কাদের জিলানী (রহ.) এর ওরশ উপলক্ষে বাবা আদমের ওই অনুসারী একটি গরু জবাই করলে বল্লাল সেন ক্ষিপ্ত হয়ে তাকে ধরে নিয়ে অন্ধকার কূপে ফেলে হত্যা করেন।

এ খবর শুনে ১১ শতকের শেষের দিকে অনুসারীদের নিয়ে মুন্সিগঞ্জে আসেন বাবা আদম। একই বছরে বল্লাল সেনের বিরুদ্ধে ধর্মযুদ্ধ শুরু করেন। প্রথম পর্যায়ে জয়ী হলেও ওই বছরই একদিন এশার নামাজ পড়ার সময় বল্লাল সেনের হাতে প্রাণ দিতে হয় তাকে। শহীদ বাবা আদমকে মিরকাদিমের দরগাবাড়িতে দাফন করা হয়।

এর ৩১৯ বছর পর মাজারের পাশে ১৪৮৩ সালে সুলতান ফতেহ শাহের শাসনকালে মালিক কাফুর নির্মাণ করেন বাবা আদম মসজিদ। সেই থেকে মসজিদটিতে প্রতিদিন প্রতি ওয়াক্তে নামাজ আদায় করছেন স্থানীয় ধর্মপ্রাণ মুসল্লিরা। প্রতিদিনই মসজিদটি দেখতে দরগাবাড়িতে আসেন দেশ-বিদেশের পর্যটক ও দর্শনার্থীরা। বর্তমানে এটি প্রত্নতত্ত্ব অধিদপ্তরের তত্ত্বাবধানে রয়েছে।

সরজমিনে দেখা যায়, মুন্সিগঞ্জ সদর উপজেলার সিপাহীচৌরাস্তা থেকে উত্তর দিকে রিকাবীবাজার অভিমুখের সড়ক ধরে এগুলে দরগাবাড়ি এলাকায় বাবা আদম মসজিদ। মসজিদের প্রবেশ সড়কেই রয়েছে বাবা আদমের মাজার কমপ্লেক্স। মসজিদের ছাদে ৬টি গম্বুজ রয়েছে। দৈর্ঘ্যে ৪৩ ফুট এবং প্রস্থে ৩৬ ফুট। এর দেয়াল ইটে নির্মিত যা প্রায় ৪ ফুট প্রশস্ত। ইটের আকার ১০ ইঞ্চি, ৭ ইঞ্চি, ৬ ইঞ্চি ও ৫ ইঞ্চি। এগুলো লাল পোড়ামাটির ইট। সম্মুখভাগে তিনটি খিলানাকৃতির প্রবেশ পথ রয়েছে যার মাঝেরটি বর্তমানে ব্যবহৃত হয়।

অভ্যন্তরভাগে পশ্চিম দেয়ালে তিনটি মেহরাব রয়েছে আর পূর্ব দেয়ালে রয়েছে আরবি লিপিতে উৎকীর্ণ একটি শিলাফলক। নির্মাণ নকশা বা স্থাপত্যকলা অনুযায়ী মসজিদ ভবন উত্তর-দক্ষিণে লম্বা। সম্মুখের দিকে খিলান আকৃতির প্রবেশপথ। দুই পাশে সম আকারের দুটি জানালা। কোণায় চারটি ত্রিভুজাকৃতির স্তম্ভ চোখে পড়ে। মাঝখানে রয়েছে দুটি পিলার।

জনশ্রুতি আছে দুটি পিলারের একটি গরম ও একটি ঠান্ডা থাকে। মসজিদের খিলান, দরজা, স্তম্ভের পাদদেশ, মেঝে ও ছাদের কার্নিশের নিচে ইট কেটে মুসলিম স্থাপত্যকলার অপূর্ব নকশাও লক্ষ্য করা যায়। মসজিদের ভেতরে ৫ কাতারে একসঙ্গে ২ শতাধিক লোক নামাজ আদায় করেতে পারেন।

তবে বর্তমানে সঠিক রক্ষণাবেক্ষণের অভাবে ঐতিহাসিক মসজিদটির কয়েকটি স্থানে ফাটল ও মুসল্লি সংকুলান হচ্ছে না বলে জানান মসজিদের ইমামসহ স্থানীরা।

জানা যায়, ভারতবর্ষ প্রত্নতত্ত্ব জরিপ বিভাগ ১৯০৯ সালে একবার এ মসজিদটি সংস্কার করে সংরক্ষণের উদ্যোগ নেয়। কিন্তু এরপর আর কোনো কাজ হয়নি। ১৯৯১ সালে লোহার সীমানা বেড়া দেয় বাংলাদেশ প্রত্নতত্ত অধিদপ্তর। ১৯৯১ সালে বাংলাদেশ ডাক বিভাগ বাবা আদম মসজিদের ছবি সংবলিত একটি ডাকটিকিট প্রকাশ করেছে।

মসজিদের ইমাম মাওলানা মাহবুব রহমান সালেহী জাগো নিউজকে জানান, এই মসজিদটিই স্থানীয় এলাকায় ইসলাম প্রচারে একটি কেন্দ্রবিন্দু ছিল এবং আজও আছে। বিভিন্ন অঞ্চল থেকে এখানে মানুষ আসছেন এবং নামাজ আদায় করে তৃপ্তি লাভ করেন। বহু দর্শনার্থীদের সমাগম ঘটে নিয়মিত। মসজিদের অভ্যন্তরে ও বাইরে মিলে প্রতি জুম্মায় ৫ থেকে ৭শ লোক নামাজ আদায় করতে পারেন।

তিনি আরো বলেন, এই মসজিদে জায়গার সংকুলান হচ্ছে না মুসল্লিদের। বিভিন্ন স্কুল-কলেজের দর্শনার্থীরা আসে। প্রত্নতাত্ত্বিক অধিদপ্তর ও সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতি অনুরোধ, মসজিদটিতে ফাটল ধরেছে কয়েকটি স্থানে। এটি যেন সংস্কার করা হয়। আল্লাহর এই অলিদের মাধ্যমেই আমরা বাংলাদেশে ইসলাম পেয়েছি। প্রায় সাড়ে ৫শ বছরের মতো সময় পার হলো, কখনো মসজিদে নামাজ বন্ধ হয়নি।

জাগো নিউজ

Leave a Reply