জমি দখলে নিতে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানির অভিযোগ

সিরাজদিখানে পূর্ব শত্রুতার জের ধরে জমি দখলে নিতে মিথ্যা মামলা দিয়ে মো. আবুল কাশেম নামে এক ভ্যক্তি ও তার পরিবারকে হয়রানির অভিযোগ উঠেছে। বর্তমানে নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন বৃদ্ধ মো. আবুল কাশেম ও তার পরিবার। এ ঘটনায় আবুল কাশেমর ছেলে দেলোয়ার হোসেন মঙ্গলবার দুপুরে সিরাজদিখান থানায় থানায় একটি সাধারণ ডাইরী করেছেন।

উপজেলার ইছাপুরা ইউনিয়নের উত্তর কুসুমপুর এলাকার বাসিন্দা দেলোয়ার হোসেন জানান, প্রায় ২২ বছর যাবৎ কুসুমপুর মৌজায় ৬০ শতাংশ জমি ক্রয় করে বসবাস করে আসছি। কুসুমপুর মৌজায় ৫২ শতাংশ বাড়ি ও ৮ শতাংশ পুকুর মোট ৬০ শতাংশ জায়গা ক্রয়সুত্রে আমার বাবা মালিক। আমাদের নিকট দলিল রয়েছে। গোলাম ফারুকের কোনো দখল নেই। দক্ষিন কুসুমপুর গ্রামের মৃত. হারুণ আর রশিদ চৌধুরীর ছেলে গোলাম ফারুক, মৃত জালালউদ্দিন আহম্মেদের ছেলে ইফতেখার আহম্মেদ, দলিলউদ্দিন আহম্মেদের ছেলে ইমরান আহম্মেদ আমার এ সম্পত্তি মিথ্যা মামলা দিয়ে জোরপূর্বক দখলে নেয়ার পাঁয়তারা করছে। গত ১৬ এপ্রিল দুপুরে লোকজন নিয়ে মিথ্যা মামলা দেয়ার কথা ও প্রাননাশের হুমকি আমাকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে। পরে বিষয়টি জানিয়ে সিরাজদিখান থানায় সাধারণ ডাইরী করি।

মো. আবুল কাশেম জানান, আমার জমি দখলে নিতে না পেরে এখন আমার নামে বিভিন্ন মিথ্যা অপপ্রচার চালাচ্ছে। তবে বাড়ি দখলের অভিযোগ উঠায় ঘটনাস্থলে পুলিশ এসে মিথ্যা অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় চলে যায়।

উত্তর কুসুমপুর গ্রামের মৃত. ইব্রাহীম শেখের ছেলে আদম আলী, মৃত বাছের শেখের ছেলে শেখ ইয়াছিন, মৃত তমিজদ্দিন শেখের ছেলে বিল্লাল শেখ বলেন, মো. আবুল কামেম ২২ বছর আগে এই ৬০ শতাংশ জায়গা ৬ লাখ টাকা দিয়ে সাবকবলা রেজিস্ট্রি করে কিনেছেন সেটা আমরা জানি। জায়গা কিনে ঘড়বাড়ি দোকান করে পুকুরে মাছ চাষ করে আবুল কাশেম ও তার পরিবার বসবাস করছেন। গোলাম ফারুক কিছু দুস্ট লোক নিয়ে আবুল কাশেম ও তার পরিবারের জায়গা দখলের চেস্টা চালাচ্ছে, আমরা গ্রামের মানুষ এর সুষ্ঠু বিচার চাই।

অভিযুক্ত গোলাম ফারুক বলেন, এই জায়গা আমার নানা জয়নাল আবেদীনের নামে আমার কাছে দলিল আছে। আমি দীর্ঘদিন দেশের বাহিরে ছিলাম তাই আমাদের জায়গার দখলে নেই।

সিরাজদিখান থানার থানার এসআই ইমরান বলেন, আমি ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখি গোলাম ফারুকের দখলে কোন জায়গা নেই। তবে মিথ্যা মামলা দেয়ার কথা ও প্রাননাশের হুমকি উল্লেখ করে মঙ্গলবার আবুল কাশেমের ছেলে দেলোয়ার হোসেন বাদী হয়ে সিরাজদিখান থানায় জিডি করেছেন।

নিউজজি

Leave a Reply