৭ ঘণ্টা অপেক্ষায় রেখেও থানায় নেয়নি মামলা, আদালতে শতবর্ষী বৃদ্ধা

আছিয়া খাতুন বয়স ১০০ ছুঁইছুঁই। একা চলাফেরা করতে পারে না। তাই মুন্সিগঞ্জ আদালতে নাতিনির হাত ধরে এসেছেন ছেলে ও পুত্রবধূর বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করতে।

জানা গেছে, আছিয়া খাতুনের স্বামী চাঁন মিয়া খান মারা গেছে প্রায় ১২ বছর আগে। সে উপজেলার পূর্ব বালিগাও গ্রামের বাসিন্দা ছিলেন। স্বামীর মৃত্যুর পর ছেলে মুক্তার খান কোন খোঁজ খবর নেন না। দেন না কোনো ভরণ পোষণও। আছিয়া খাতুন স্বামীগৃহে থেকে জীবিকা নির্বাহ করেন মেয়েদের দেয়া টাকায়। কিন্তু সেই মেয়েদের দেয়া টাকাও আত্মসাৎ করেছে ছেলে মোক্তার খান এবং পুত্রবধূ। ২০ এপ্রিল (বুধবার) রাতে ওই বৃদ্ধার আলমারীতে থাকা স্বর্ণের কানের দুল ও চেইন চুরি করে নিয়ে যায়। পরে বৃদ্ধা জিজ্ঞাসা করলে তাকে চর থাপ্পর মারে এবং বালিশ চাপা দিয়ে খুন করার হুমকি দেয়। এরপর হতে ঘরের বাহির হলেই বৃদ্ধাকে গালিগালাজ করছে তার ছেলে ও পুত্রবধূ।

পরে বাধ্য হয়ে ওই বৃদ্ধা শনিবার (২৩ এপ্রিল) টঙ্গিবাড়ী থানায় যান। কিন্তু থানা কর্তৃপক্ষ দীর্ঘক্ষণ থানায় অপেক্ষায় রেখেও নেয়নি কোনো অভিযোগ। তাই আদালতে এসেছেন মামলা দায়ের করেতে। ওই বৃদ্ধা রোববার (২৪ এপ্রিল) দুপুরে মুন্সিগঞ্জ আমলী আদালতে ছেলে মুক্তার খান ও পুত্রবধূ মারিয়া ইসলাম মিতা টাকা আত্মসাৎ ও ঘর হতে স্বর্ণের চেইন এবং কানের দুল চুরি করে নেয়ার অভিযোগ দায়ের করেন। শুনানি শেষে ওই আদালতের বিচারক সিনিয়র জুডিসিয়্যাল ম্যাজিষ্ট্রেট আবদুল্লাহ আল-ইউসুফ মামলাটি গ্রহণ করে আসামিদের প্রতি সমন ইস্যুর আদেশ দিয়েছেন।

আদালত চত্বরে বৃদ্ধা বলেন, আমার স্বামী প্রায় ১২ বছর আগে মারা গেছে। ছেলে মুক্তার খান এবং ছেলের বৌ ভরণ পোষণ সেবা যত্ন করে না। আমার দুই মেয়ে জেরিন খান ও জেনিফার আমার নামে অগ্রনী ব্যাংকে হিসাব নাম্বার খুলে দিয়াছে। ওই হিসাবে প্রতিমাসে তারা টাকা পাঠায়। কিন্তু আমার ছেলে কৌশলে আমাকে দিয়ে চেকে সই করিয়ে আমার অ্যাকাউন্ট হতে আমার অনেক টাকা তুলে নিয়ে গেছে। পরে আমি আমার নিরাপত্তার কথা চিন্তা করে আমার নাতিন সেবা আক্তারকে আমার কাছে আনিয়া রাখছি। কিন্তু ওরা আমার নাতিনের নামে বিভিন্ন বদনাম রটাইতাছে এবং বলতেছে আমার নাতিনের নামে অশ্লিল ছবি বানাইয়া ফেসবুকে ভাইরাল করিয়া দিবে। গত ২০ এপ্রিল রাতে ১১টায় ওদের কাপড় আমি উঠান হতে নিয়ে আসছি বলে ওরা আমার ঘরে আসিয়া তন্নতন্ন করে খুঁজে। পরে আমার ঘরের কাঠের আলমারীতে থাকা এক জোড়া স্বর্ণের কানের দুল ও চেইন চুরি করে নিয়া যায়। আমি পরের দিন ওদের জিজ্ঞাসা করলে ওরা আমার ঘরে ঢুকে আমাকে চর থাপ্পর মারে ধাক্কা দিয়া আমাকে আমার খাটের উপর ফেলে দেয়। আর বলে এ বিষয়ে কাউকে জানালে এবং আমি বেশি বাড়াবাড়ি করলে আমাকে বালিশ চাপা দিয়া খুন করে আমার নাতিনি আমাকে খুন করছে বলে মানুষের কাছে প্রচার করবে।

সে আরও জানায়, শনিবার (২৩ এপ্রিল) সকালে আমি মামলা করতে টঙ্গিবাড়ি থানায় গিয়েছিলাম আমাকে সকাল ১০টা হতে ৫টা পর্যন্ত বসাইয়া রাখছে। কিন্তু থানার পুলিশ আমার কোনো মামলা নেয় নাই। পরে আমি বাধ্য হয়ে আদালতে আসছি মামলা করতে।

এ বিষয়ৈ টঙ্গীবাড়ি থানা ওসি মোল্লা সোয়েব আলী বলেন, আমার সাথে ওই মহিলার কোনো সাক্ষাৎ হয় নাই। আমি বিষয়টি জানি না।

নিউজজি

Leave a Reply