মুন্সীগঞ্জে কাঠের সেতু এখন মরণফাঁদ !

মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগর উপজেলার কুকুটিয়া ইউনিয়নের বিবন্দী বাজার সংলগ্ন খালের ওপর কাঠের সেতুটি যেন মরণ ফাঁদে পরিণত হয়েছে। সেতুটির এক পাশে চলাচলের অনেকাংশে পাটাতনের কাঠ উঠে যাওয়া মানুষ পারাপারে ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে উঠেছে। ১০ গ্রামের মানুষ প্রয়োজনীয় কাজকর্মে ও স্থানীয় স্কুল, ক্লিনিক, হাটবাজার, ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানসহ সরকারী বেসরকারী প্রতিষ্ঠানে যাতায়াতের ক্ষেত্রে জরাজীর্ণ এ কাঠের সেতুটি ব্যবহার করছেন। এতে করে ভাঙ্গা পুলে পথচারীরা দুর্ঘটনার শঙ্কা করছেন।

সরেজমিনে দেখা গেছে, কুকুটিয়া ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ডের বিবন্দী বাজারের পূর্ব পাশে সাবেক ইউপি সদস্য আবুল মেম্বারের বাড়ি সংলগ্ন খালের ওপর প্রায় ৩৫ ফুট দীর্ঘ কাঠের সেতুটি সংস্কারের অভাবে বেহাল হয়ে পড়েছে। জরাজীর্ণ পুলটির পশ্চিম দিকে পাটাতনের বেশকিছু কাঠ উঠে চলাচলের স্থান ফাঁকা হয়ে পড়েছে। বিশেষ করে এলাকার বৃদ্ধ ও শিশুদের জন্য এ সেতু পারাপারে অনেকটাই ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে উঠেছে।

একদিকে ঝুঁকিপূর্ণ কাঠের সেতু অপরদিকে বিবন্দী-পাঁচলদিয়া নাজুক রাস্তা, সব মিলিয়ে এ অঞ্চলের মানুষের যোগাযোগ ব্যবস্থা ব্যাহত হচ্ছে এমনটাই মনে করছেন ভুক্তভোগীরা। স্থানীয়রা জানায়, কুকুটিয়া ইউনিয়নের পূর্ব অঞ্চলের ১০টি গ্রামে প্রায় ৩০ হাজার মানুষের বসবাস। এখানকার বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, হাটবাজার, ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান ও নানামুখী কাজকর্মে প্রতিনিয়ত মানুষ জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ভাঙ্গা কাঠের সেতু পারাপার হচ্ছেন। স্থানীয় ইউপি সদস্য আব্দুল কাইয়ুম মিন্টু এ ব্যাপারে সত্যতা স্বীকার করে বলেন, বিবন্দী মোল্লাবাড়ির সামনে খালের ওপর জরাজীর্ণ কাঠের সেতুটির বিষয়ে ইউপি চেয়ারম্যান সাবের সঙ্গে আলোচনা হয়েছে। তিনি পুলটি সংস্কারের জন্য আশ্বাস দিয়েছেন। স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গের সঙ্গে কথা বলে কাঠের সেতুটি সংস্কার কাজ শুরু করা হবে। অন্যদিকে বিবন্দী-পাঁচলদিয়া এলজিইডির রাস্তার কাজ তাগিদের জন্য সংশ্লিষ্ট জনদের সঙ্গে কথা হচ্ছে জানান তিনি।

জনকন্ঠ

Leave a Reply