মুন্সীগঞ্জে আ. লীগের দুই পক্ষের হট্টগোল, মানববন্ধন পন্ড

ভাঙন প্রতিরোধে বালু উত্তোলন বন্ধের দাবি
আওয়ামী লীগের দুই পক্ষের মধ্যে হট্টগোলের জেরে মুন্সীগঞ্জের লৌহজংয়ে পদ্মা নদী থেকে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন বন্ধের দাবিতে আয়োজিত মানববন্ধন পন্ড হয়ে গেছে।

গতকাল শনিবার সকাল ১০টার দিকে লৌহজং উপজেলার ঘোড়দৌড় বাজারের পদ্মার তীরে স্থানীয় গ্রামবাসীর ব্যানারে এ মানববন্ধনের প্রস্তুতি নেওয়া হয়।

সপ্তাহখানেক ধরে উপজেলার লৌহজং-তেউটিয়া ইউনিয়নের বড় নওপাড়া গ্রামে পদ্মা নদীতে ভাঙন চলছে। অবৈধভাবে বালু উত্তোলন ও তীব্র স্রোতের কারণে এ ভাঙন দেখা দিয়েছে বলে স্থানীয়দের অভিযোগ। তাই ভাঙন প্রতিরোধের জন্য অবৈধভাবে বালু উত্তোলন বন্ধের দাবিতে ওই মানববন্ধনের আয়োজন করেন তারা।

এদিকে, সকালে উপজেলা তাঁতী লীগের সভাপতি বাবুল শেখ ও উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক অনয় হাসান বেপারীর নেতৃত্বে মানববন্ধন করার জন্য জড়ো হন পদ্মা তীরের ভাঙনকবলিত নারী-পুরুষরা। এ সময় লৌহজং-তেউটিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক শেখ আবু নাসের রতনের নেতৃত্বে শতাধিক নেতাকর্মী সেখানে উপস্থিত হয়ে মানববন্ধনের স্থান নির্ধারণ নিয়ে আপত্তি জানালে উভয় পক্ষের লোকজন তর্কে জড়িয়ে পড়ে। এতে হট্টগোল দেখা দেয়। পরে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। মানববন্ধন প- হয়ে যায়।

উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক অনয় হাসান বেপারী বলেন, আমরা এলাকাবাসীর পক্ষে বালুদস্যুদের বিরুদ্ধে মানববন্ধন করতে চেয়েছিলাম। শুক্রবার মানববন্ধন করার কথা ছিল। কিন্তু পুলিশের অনুরোধে সময় পরিবর্তন করে শনিবার মানববন্ধনের প্রস্তুতি নিই। তাই সকাল ১০টার দিকে ৪ শতাধিক লোক নিয়ে মানববন্ধনের জন্য পূর্বনির্ধারিত জায়গায় গেলে আমাদের মানববন্ধন পন্ড করে দেয়।

লৌহজং-তেউটিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক শেখ আবু নাসের রতন বলেন, বাধা দেব কেন। আমারও তো রিসোর্ট পদ্মাগর্ভে চলে গেছে। আসলে সেখানে বহিষ্কৃত ছাত্রলীগ নেতা অনয় হাসান বেপারী বিএনপির অর্থায়নে লোকজন জড়ো করে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করার চেষ্টা করছিল। আমরাও চাই অবৈধ বালু কাটা বন্ধ হোক।

লৌহজং থানার ওসি আব্দুল্লাহ আল তায়েবীর বলেন, মানববন্ধন নিয়ে নিজেদের মধ্যে হট্টগোল শুরু হলে পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করে। তবে মানববন্ধনের জন্য পূর্ব অনুমতি ছিল না বলে জানান তিনি।

দেশ রুপান্তর

Leave a Reply