গজারিয়ায় প্রতিপক্ষের হামলায় গুলিবিদ্ধ ৪

মুন্সীগঞ্জের গজারিয়ায় প্রতিপক্ষের হামলায় চারজন গুলিবিদ্ধসহ অন্তত ছয়জন আহত হয়েছে। গতকাল সোমবার সন্ধ্যায় গুয়াগাছিয়া ইউনিয়নের কদমতলী গ্রামে পাশের বালুয়াকান্দি গ্রামের লোকজন ওই হামলা চালায়।

এদিকে সদর উপজেলার চরঝাপটা এলাকায় গত রবিবার রাতে আধিপত্য বিস্তার নিয়ে স্থানীয় আওয়ামী লীগের দুপক্ষের সংঘর্ষে অর্ধশতাধিক ককটেল বিস্ফোরণ এবং ৪০টি বাড়িঘর ভাঙচুর ও লুটপাটের ঘটনা ঘটেছে।

গজারিয়ায় গুলিবিদ্ধরা হলেন হারুন-অর-রশীদ (৬০), ফারুক (৪১), নুরুল হক (৭০) ও মোখলেস (৪৫)। আহত অন্য দুজন হলেন আবদুস সাত্তার (৬২) ও ফয়সাল (২০)। তাদের গজারিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রাথমিক চিকিৎসার পর উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়।

এলাকাবাসী জানায়, দুদিন আগে কদমতলী গ্রামের বাসিন্দা ফয়সালের সঙ্গে বালুয়াকান্দি গ্রামের কয়েকজন যুবকের কথাকাটাকাটি হয়। এর জেরে বালুয়াকান্দি গ্রামের ৩০-৩৫ জন জোট বেঁধে কদমতলী গ্রামে হামলা চালায়। তারা সাবেক ইউপি সদস্য সুরুজ প্রধানের বাড়ি ভাঙচুর ও গুলি ছোড়ে।

গজারিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক আশরাফুল ইসলাম বলেন, কয়েকজনকে শটগান জাতীয় আগ্নেয়াস্ত্র দিয়ে গুলি করা হয়েছে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে। এ ছাড়া আরও কয়েকজনকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে আঘাত করা হয়েছে। গজারিয়া থানার ওসি মোল্লা সোয়েব আলী জানান, হামলার খবর পেয়ে তাৎক্ষণিক ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়। বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

সদরে আওয়ামী লীগের দুপক্ষের সংঘর্ষ : পূর্ববিরোধ ও আধিপত্য বিস্তার নিয়ে রবিবার রাত ৯টা থেকে ১০টা পর্যন্ত সদর উপজেলার চরাঞ্চলের চরকেওয়ার ইউনিয়নের চরঝাপটা গ্রামে মন্টু দেওয়ান গ্রুপের সঙ্গে জিন্নত মিজি ও নাজমুল প্রধান গ্রুপের সংঘর্ষ হয়। উভয়পক্ষের লোকজনই আওয়ামী লীগের সমর্থক। রবিবার রাতে মন্টু দেওয়ান এবং তার পক্ষের নান্নু হাজি, দ্বীন ইসলাম ও ইউসুফ আলীর নেতৃত্বে প্রতিপক্ষ জিন্নত মিজি ও নাজমুল প্রধান গ্রুপের লোকজনের বাড়িতে হামলা করে লুটপাট চালানো হয়। এ সময় দফায় দফায় হামলা, ককটেল বিস্ফোরণ ও বাড়িঘর ভাঙচুর করা হয়। এতে উভয়পক্ষের বেশ কয়েকজন আহত হন। এ ঘটনার পর গ্রামে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। গতকাল সকালেও এলাকায় অবিস্ফোরিত ককটেল পড়ে থাকতে দেখা গেছে। সকালে এলাকায় থমথমে অবস্থা বিরাজ করায় আতঙ্কে পাঠদান না করে স্কুল ছুটি দিয়ে দেওয়া হয়।

সদর থানার ওসি মো. তারিকুজ্জামান বলেন, ‘দুপক্ষের সংঘর্ষের খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে পুলিশ। বর্তমানে সেখানে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন রয়েছে।’

দেশ রুপান্তর

Leave a Reply