মৃত স্ত্রীকে নিয়ে হাসপাতালে স্বামী

মুন্সীগঞ্জে বর্ষা (২৬) নামে এক নারীর লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। মঙ্গলবার মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার বজ্রযোগীনি ইউনিয়নের আজিমপুর এলাকায় রাত সাড়ে ৮টার দিকে তার মৃত্যু হয় বলে জানা যায়। রাতে স্বামী লাশ নিয়ে মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে এলে জরুরি বিভাগের কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে জরুরি বিভাগের চিকিৎসক ডা. শৈবাল বসাক বলেন, ‘সন্ধ্যার পর মৃতের স্বামীসহ শ্বশুরবাড়ির লোকজন মৃত অবস্থায় তাকে হাসপাতালে নিয়ে আসে। তার গলায় দাগ রয়েছে।’

১১ বছর আগে সদর উপজেলার আজিমপুর এলাকার সৌদি আরব প্রবাসী আমিনুল ইসলামের সঙ্গে পারিবারিকভাবে বর্ষার বিয়ে হয়। আমিনুল সৌদি আরব থেকে কিছুদিন আগে দেশে এসেছেন।

আমিনুল বলেন, ‘আমার সঙ্গে বর্ষার কথা কাটাকাটি হয়। আমি রাগের মাথায় ঘর থেকে বেরিয়ে যাই। কিছুক্ষণ পরে এসে দেখি, আমার স্ত্রী ঘরের দরজা লাগিয়ে রেখেছে। আমি এসে ডাক দিলে সে অনেকক্ষণ যাবৎ কোনও শব্দ না করায় আমি দরজা ভেঙে দেখি সে ফ্যানের সঙ্গে দড়ি দিয়ে গলায় ফাঁস লাগিয়ে ঝুলছে। পরে তাকে দ্রুত হাসপাতালে নিলে ডাক্তার মৃত ঘোষণা করেন।’

বর্ষার স্বজন হাবিবুর রহমান এবং তার পরিবার জানায়, দীর্ঘদিন যাবৎ পারিবারিক কলহের জের ধরে বর্ষাকে তার শাশুড়ি, ভাসুর ও ভাসুরের স্ত্রী নির্যাতন করে আসছিল। এই বিরোধ নিয়ে স্থানীয়ভাবে কয়েকবার সমাধান করা হলেও বর্ষার ওপর নির্যাতন থামায়নি তার শ্বশুরবাড়ির লোকজন।

বর্ষার মা পারুল বেগম বলেন, ‘মেয়ের শাশুড়ি, ভাসুর ও ভাসুরের স্ত্রী পারিবারিক বিভিন্ন বিষয়কে কেন্দ্র করে বর্ষাকে সব সময় নির্যাতন করতো। মেয়ের মৃত্যুর জন্য যারা দায়ী তাদের বিচার চাই।’

এ বিষয়ে মুন্সীগঞ্জ সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা তারিকুজ্জামান বলেন, ‘এই ঘটনায় কেউ আটক হয়নি। লাশ ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে। পরিবারের কাছ থেকে এখনও অভিযোগ পাইনি। অভিযোগ পেলে তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

/এমএএ/

Leave a Reply