মুন্সীগঞ্জে আলু উৎপাদন কমছে

আলু উৎপাদনে শীর্ষে মুন্সীগঞ্জ জেলাজুড়ে চলছে আলু উত্তোলনের মহোৎসব। এই কাজে পুরুষের পাশাপাশি সমানতালে কাজ করছেন নারী শ্রমিকরা। সম্প্রতি সিরাজদিখান উপজেলার কাকালদি এলাকায় টানা লোকসানে মুন্সীগঞ্জে আলু আবাদে কৃষকের আগ্রহ কমেছে। চলতি বছর জেলায় কমেছে আলু আবাদি ফসলি জমির পরিমাণ। এতে এ বছরও জেলায় আলু উৎপাদন কম হয়েছে। পরিসংখ্যান বলছে, গেল পাঁচ বছরে জেলায় ধারাবাহিকভাবে আলু উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ও উৎপাদন কমেছে। অন্যদিকে চলতি বছর তেল ও বিদ্যুতের দাম বাড়ায় আলু উৎপাদন-পরিবহন ও সংরক্ষণে কৃষকের খরচ বেড়েছে।

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অফিস জানায়, আলু উৎপাদনে শীর্ষ জেলা মুন্সীগঞ্জে প্রতিবছর গড়ে প্রায় সাড়ে ১০ লাখ মেট্রিক টন আলু উৎপাদন হয়। যেখানে জেলার ৬৮টি কোল্ডস্টোরেজের ধারণক্ষমতা প্রায় সাড়ে ৫ লাখ মেট্রিক টন সেখানে উৎপাদিত বাকি আলু নিয়ে প্রতিবছরই কৃষকের হিমশিম খেতে হয়। আবার কোল্ডস্টোরেজে সংরক্ষণে খরচ বাড়ায় কম লাভে খেতে থেকেই আলু বিক্রি করে দেন তারা। এতে লোকসানে পড়েন তারা। জেলায় এ বছর ৩৫ হাজার ৭৯৬ হেক্টর জমিতে আলু আবাদের লক্ষ্যমাত্রা থাকলেও আবাদ হয়েছে ৩৪ হাজার ৩৪৬ হেক্টর জমিতে। লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে এক হাজার ৪৫০ হেক্টর কম জমিতে আলুর আবাদ হলেও বিষয়টিকে ইতিবাচক হিসেবেই দেখছে কৃষি অফিস। তারা বলছে, যেহেতু কৃষক প্রতিবছরই বলছে আলুতে তাদের ে লোকসান হচ্ছে তাই তাদের বিকল্প হিসেবে ভুট্টা ও সরিষা চাষের পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। এ বছর তারা সেটি শুনেছেন। তা ছাড়া বিদেশে রপ্তানিযোগ্য আলুর জাত চাষে কৃষকের মাঝে প্রচার চালানো হচ্ছে।

জেলা কৃষি অফিস জানায়, মুন্সীগঞ্জ জেলার ৬টি উপজেলাতে এ বছর ৩৪ হাজার ৩৪৬ হেক্টর জমিতে আলুর আবাদ করেছে কৃষক। এর মধ্যে সদর, টঙ্গীবাড়ি ও সিরাজদিখানে বেশি চাষ হয়েছে। বর্তমানে জেলাজুড়ে চলছে আলু উত্তোলনের মহোৎসব। কৃষকের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, তেলের দাম বাড়ায় গত বছরের তুলনায় আলু পরিবহনে কৃষকের দেড়গুণ খরচ বেড়েছে। অন্যদিকে বিদ্যুতের দাম বাড়ায় বস্তাপ্রতি কোল্ডস্টোরেজ ভাড়াও বেড়েছে ২০-৩০ টাকা।

সরেজমিন ঘুরে দেখা গেছে, খেত থেকে আলু তুলে বস্তাবন্দি করে নেওয়া হচ্ছে জেলার বিভিন্ন কোল্ডস্টোরেজে। আলু খেতে ব্যস্ত সময় পার করছেন আলু চাষি ও শ্রমিকরা। খেত থেকে ৫০ কেজি ওজনের প্রতি বস্তা আলু কৃষক পাইকারদের কাছে বিক্রি করছেন ৬০০ টাকা দরে। অন্যদিকে, কোল্ডস্টোরেজে প্রতি বস্তা আলু সংরক্ষণে কৃষকের ব্যয় হচ্ছে ২৪০-২৬০ টাকা। বাজার ঘুরে খুচরা বিক্রেতাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, প্রতি কেজি আলু খুচরা বাজারে বিক্রি হচ্ছে ২৩-২৫ টাকায়। অর্থাৎ প্রতি বস্তা বিক্রি হচ্ছে ১২৫০ টাকায়। মুন্সীগঞ্জ শহর বাজারের খুচরা সবজি বিক্রেতা মো. রাহাত জানান, প্রতি বস্তা আলু তারা পাইকারদের কাছ থেকে এক হাজার টাকায় কেনেন। কেজিতে পরে ২০ টাকা। কৃষকের কাছ থেকে কিনলে আরও কম দামে কেনা যায়। এরপর খুচরা পর্যায়ে প্রতি কেজি আলু বিক্রি হয় ২৪-২৫ টাকায়। আরেক বিক্রেতা স্বপন জানান, ২০ টাকা কেজি দরে পাইকারদের কাছ থেকে আলু কিনে আনেন তারা।

খুচরা ক্রেতাদের কাছে প্রতি কেজি আলু বিক্রি করেন ২৩-২৪ টাকা দরে। টঙ্গীবাড়ি উপজেলার হাসাইল এলাকার কৃষক মুজিব বেপারি জানান, গত বছরের তুলনায় এ বছর খেত থেকে কোল্ডস্টোরেজে আলু পরিবহনের খরচ দেড়গুণ বেড়েছে। দেশে জ্বালানি তেলের দাম বাড়ায় বাড়তি খরচ বহন করতে হচ্ছে। এ ছাড়া গত বছর যেখানে প্রতিবস্তা আলু কোল্ডস্টোরেজে সংরক্ষণে ব্যয় হতো ২১০ টাকা এ বছর বিদ্যুতের দাম বাড়ায় কোল্ডস্টোরেজ মালিকরা প্রতি বস্তায় ২৬০ টাকা রেট নির্ধারণ করেছে। এতে অনেক কৃষক কোল্ডস্টোরেজে আলু না দিয়ে খেত থেকেই কম লাভে বিক্রি করে দিচ্ছেন। তিনি বলেন, গেল বছরের তুলনায় এবার আলুর দাম ভালো যাচ্ছে বাজারে। এতে লাভবান হচ্ছেন কৃষক। আবির এগ্রো কোল্ডস্টোরেজের স্বত্বাধিকারি মোশাররফ হোসেন পুস্তি জানান, বিদ্যুতের দাম বাড়ায় লোকসান এড়াতে বাংলাদেশ কোল্ডস্টোরেজ অ্যাসোসিয়েশন থেকে প্রতি বস্তা আলু সংরক্ষণে ২৬০ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। কিন্তু ২৩০-২৪০ টাকার বেশি কৃষকরা দিতে চাচ্ছেন না। এতে কোল্ডস্টোরেজগুলো লোকসানে পড়ার আশঙ্কা রয়েছে। মুন্সীগঞ্জ সদরের মোল্লাকান্দি এলাকার আলুচাষি বাদল বেপারি বলেন, ৪০ লাখ টাকা ব্যয়ে এ বছর ২০ কানি জমিতে আলু আবাদ করেছি। গত বছরও লোকসান হয়েছে। এর পরও এ বছর লাভের আশায় আলুচাষ করেছি। খেত থেকে আলু সব তুলে কোল্ডস্টোরেজে রেখেছি। দাম আরও বাড়লে বিক্রি করব।

তিনি বলেন, আলুর পাশাপাশি জমির আইলে সামান্য পরিমাণ সরিষার আবাদ করেছি। ভালো দামে বিক্রি হলে সামনের বছর আলুর আবাদ কমিয়ে সরিষা করব। সিরাজদিখানের মধ্যপাড়া ইউনিয়নের কাকালদি গ্রামের কৃষক আহমদ খান বলেন, এ বছর আমি ৪০ শতাংশ জমিতে আলুর আবাদ করেছি। বাকি ২০ শতাংশ জমিতে স্থানীয় কৃষি অফিসের পরামর্শে সরিষা চাষ করেছি। তিনি বলেন, আমার মতো এই এলাকার অনেক কৃষক আলুর আবাদ কমিয়ে বিকল্প সবজি চাষ করেছে। আলুখেতের শ্রমিক বিল্লাল মোল্লা বলেন, এ বছর একেবারেই বৃষ্টি হয়নি। আবার খাল-বিল শুকনা থাকায় আলু খেতের আশপাশে চাহিদা মোতাবেক যথেষ্ট পানিও পাওয়া যায়নি।

এতে আলু গাছে সকাল-বিকেল পানি দিতে কৃষকের খরচ বেশি হয়েছে। আবার সার-কীটনাশকের দামও বেশি ছিল। সব মিলিয়ে খরচ বেশিই হয়েছে। তবে বর্তমানে বাজারে আলুর চাহিদা থাকায় দাম ভালো পাওয়া যাচ্ছে। জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক ড. মো. আব্দুল আজিজ জানান, ইতোমধ্যে খেত থেকে ৭০ শতাংশের ওপরে আলু তুলে নিয়েছে কৃষক। বাকিটাও কয়েকদিনের মধ্যে তুলে নেবে। এ বছর আমাদের হেক্টরপ্রতি ফলনের টার্গেট ছিল ৩০ দশমিক ৬৪ মেট্রিক টন। গড় ফলন পাওয়া গেছে ২৭ মেট্রিক টন করে। কারণ হলো- আগাম জাতের আলু তাড়াতাড়ি তুলে নেওয়ায় ফলন কম হয়েছে। চলতি দফায় যে আলু উঠছে সেগুলোর ফলন ভালো। তিনি বলেন, সার্বিকভাবে যদিও আবাদ কম হয়েছে কিন্তু কৃষক লোকসানে পড়েনি। যেহেতু কৃষকও বলছে, আলুতে তাদের প্রতিবার লোকসান হচ্ছে তাই তাদের আলুর বিকল্প সরিষা, ভুট্টা ও শাক-সবজি চাষ করার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।

জনকন্ঠ

Leave a Reply