মুন্সীগঞ্জে ছেলেদের বিরুদ্ধে বাবাকে হত্যার অভিযোগ

মুন্সীগঞ্জে পারিবারিক কলহের জেরে বাবাকে হত্যার অভিযোগ উঠেছে ছেলেদের বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নিহতের তিন ছেলেকে আটক করেছে পুলিশ। সোমবার ভোরে সদর উপজেলার চরাঞ্চলের আধারা ইউনিয়নের ভাসানচর এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

নিহত ব্যক্তির নাম মো: নুরুল ইসলাম হাওলাদার (৫০)। তিনি ভাষানচর মিজিকান্দি এলাকার মরহুম সুবেদ আলীর ছেলে। পেশায় একজন কাঠ মিস্ত্রী ছিলেন। নুরুল ইসলামের স্ত্রীর নাম তাছলিমা বেগম। এ দম্পতির পাঁচ ছেলে ও এক মেয়ে রয়েছে।

এ ঘটনায় নুরুল ইসলামের বড় ছেলে মো: সুমন হাওলাদার, সুমনের স্ত্রী ও আরেক ছেলে মোহাম্মাদ আলী হাওলাদারকে জিঙ্গাসাবাদের জন্য আটক করেছে পুলিশ।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, নুরুল ইসলামের সাথে তার স্ত্রী ও সন্তানদের পারিবারিক কলহ ছিল। রোববার স্ত্রী তাছলিমা বেগমের সাথে নুর ইসলামের ঝগড়া হয়। তাছলিমাকে নুরুল মারধর করেছিলেন। পরে তাদের বড় ছেলেরা তাকে মারধর করতে খোঁজাখুঁজি করছিল। সোমবার ভোর রাতে শোনা যায়, নুরুল ইসলামকে কে বা করা হত্যা করেছে।

নিহত নুরুল ইসলামের ছোট বোন হামিদা বেগম বলেন, ‘কিছু হলেই আমার ভাবি ও ভাতিজারা আমার ভাইকে মেরে ফেলার হুমকি দিত। আমার ভাই তার জমিতে ধান লাগিয়েছিলেন। তার ছেলেরা কেউ কোনো কাজ করত না। কয়েক দিন ধরে তিনি একা একা জমির ধান কাটছিলেন। এ নিয়ে ভাই ভাতিজাদের গালিগালাজ করেন এবং ভাবিও ভাতিজাদের পক্ষ নিয়ে ভাইকে গালিগালাজ করেন। পরে ভাই-ভাবীর মধ্যে ঝগড়া হয়। তখন ভাই ভাবিকে মারধর করেন। এ ঘটনার শুনে তার ছেলেরা ক্ষিপ্ত হয়ে যায়। ভাইকে মারধর করার জন্য প্রস্তুতি নেয়। বিষয়টি আমার ভাই আমাকে জানিয়েছিল। শুনেছিলাম এ ঘটনায় আমার ভাই থানায়ও গিয়েছিল।’

তিনি আরো বলেন, ‘আমার ভাই রাতে আমাকে মোবাইল ফোনে বলেছিল, বাড়িতে গেলে তার ছেলেরা তাকে মেরে ফেলবেন। স্থানীয় মাতব্বরদের ভরসায় তিনি বাড়িতে গিয়েছিলেন। ভোরবেলা ছোট ভাতিজা সুজন ফোন করে জানাল যে তার বাবাকে মেরে ফেলা হয়েছে।’

তবে নিহতের ছেলে সুমন হাওলাদার আটকের আগে গণমাধ্যমকে জানিয়েছিলেন, তার বাবা রোববার গভীর রাতে মেঘনা নদীতে মাছ ধরতে যান। ভোরে মাছ ধরে ফিরে আসার সময় জলদস্যুরা নৌকায় হামলা চালিয়ে নগদ টাকা, মাছ ও জাল ছিনিয়ে নেয়ার চেষ্টা করে। এ সময় বাধা দিলে জলদস্যুররা লাঠি দিয়ে তাকে আঘাত করে। তিনি মাথায় গুরুতর আঘাত পেয়ে নদীতে পড়ে যান। পরে তাকে উদ্ধার করে মুন্সিগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক এম এ কালাম বলেন, ভোর সোয়া চারটার দিকে নুরুল ইসলামকে হাসপাতালে আনা হয়। হাসপাতালে আনার আগেই তার মৃত্যু হয়। তার শরীরে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে।

হামিদা বেগম আরো বলেন, ‘আমার ভাই একজন কাঠমিস্ত্রি। সে কখনো মাছ ধরতেন না। তাকে হত্যা করে ঘটনা ধামাচাপা দেয়ার জন্য মাছ ধরার কথা বলা হচ্ছে। আমার ভাইকে আমার ভাতিজারা তাদের মামাদের সহযোগিতা নিয়ে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করেছে।’

মুন্সীগঞ্জ অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (গজারিয়া সদর সার্কেল) থান্দার খাইরুল হাসান বলেন, ‘সোমবার ভোরে হত্যা খবরটি জানতে পারি। হাসপাতালে গিয়ে ওই ব্যক্তির লাশ দেখতে পাই। নিহতের মাথায় ও শরীরে ধরালো অস্ত্রের আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। হাসপাতালে তার তিন ছেলে উপস্থিত ছিলেন। তাদের মধ্যে একজন বলছিলেন যে সে তার বাবার সাথে মাছ ধরতে গিয়েছিলেন। সেখানে কয়েকজন জলদস্যু এসে তাদের কাছ থেকে মাছ ও মাছ ধরার জাল ছিনিয়ে নিতে চায়। তার বাবা বাধা দিলে তাকে হত্যা করা হয়। ইতোমধ্যে আমরা অন্য একটি ঘটনাও জানতে পেরেছি। জলদস্যুদের আক্রমণে তিনি নিহত হয়েছেন নাকি তাকে হত্যা করা নাটক সাজানো হচ্ছে বিষয়টি তদন্ত করা হচ্ছে। এই ঘটনায় নিহতের দুই ছেলে ও বড় ছেলের স্ত্রীকে পুলিশের হেফাজতে নেয়া হয়েছে। তাদেরকে সন্দেহভাজন হিসেবে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।’

নয়া দিগন্ত

Leave a Reply