ফুটওভার ব্রিজের পাশ দিয়ে ঝুঁকি নিয়ে মহাসড়ক পারাপার

ফুটওভার ব্রিজের পাশ দিয়ে ঝুঁকি নিয়ে চলছে মহাসড়ক পারাপার। ব্যস্ততম ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে জীবনের ঝুঁকি নিয়েই প্রতিদিন রাস্তা পারাপার হতে দেখা যায় পথচারীদের। চরম ঝুঁকিপূর্ণ জানার পরেও ফুটওভার ব্রিজ ব্যবহারে বেশিরভাগ পথচারীর চরম অনীহা।

সরেজমিনে দেখা যায়, মহাসড়কের মুন্সীগঞ্জের গজারিয়া উপজেলার জামালদী এলাকায় ফুটওভার ব্রিজ থাকলেও এর ওপর দিয়ে মানুষের যাতায়াত খুবই কম। ফুটওভার ব্রিজ পার হয়ে রাস্তার ওপারে যাওয়ার চেয়ে ঝুঁকি নিয়েই সড়ক পার হতে দেখা যায় পথচারীদের। অথচ একটু হেঁটে ওভারব্রিজ হয়ে গেলে কোনো ঝুঁকি ছাড়াই রাস্তা পার হওয়া যায়।

এভাবে ঝুঁকি নিয়ে রাস্তা পার হওয়ার বিষয়ে জানতে চাইলে নাম প্রকাশ না করার শর্তে এক নারী বলেন, এখান দিয়ে দ্রুত আসা যায়। ব্রিজে উঠতে সময় লাগে, ওঠাও ঝামেলার। কিছুদূর ঘুরে আসতে হয়। যদি দুর্ঘটনা ঘটে যেত জানতে চাইলে বলেন, কী আর করার এভাবেই অভ্যস্ত হয়ে গেছি।

কলেজ পড়ুয়া শিক্ষার্থী তানভীর হোসেন বলেন, গাড়ি যখন চলাচল করে তখনতো পার হই না। গাড়ি না থাকলে পার হই। ছোটবেলা থেকে পার হতে হতে অভ্যাস হয়ে গেছি।

সড়ক ও জনপথ সূত্রে জানা গেছে, ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে বাসস্ট্যন্ড এলাকায় মানুষের জীবনের ঝুঁকি কমানোর জন্য ২০২০ সালে রোড সেফটির আওতায় সড়ক ও জনপথ বিভাগ এই ফুটওভার ব্রিজটি নির্মাণ করে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক দায়িত্বরত এক ট্রাফিক পুলিশ জানান, জামালদী এই বাসস্ট্যান্ড দিয়ে ঘণ্টায় কয়েকশ বাস, ট্রাক, ছোট গাড়ি ও মোটরসাইকেলসহ নানা ধরনের যানবাহন চলাচল করে। এজন্য যানবাহনের চাপ অনেক বেশি থাকে। আমরা যখন গাড়ি নিয়ে ব্যস্ত থাকি তখন ঝাঁকে ঝাঁকে মানুষ পার হয়। প্রায় সময়ই দেখা যায়, চলন্ত গাড়ির মধ্য দিয়েই মানুষ চলতে শুরু করে। তবুও মানুষ ফুটওভার ব্রিজটি ব্যবহার করে না।

ভবেরচর হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়ীর ইনচার্জ এএসএম রাশেদুল ইসলাম জানান, ফুটওভার ব্রিজ থাকা সত্বেও ঝুঁকি নিয়ে হাইওয়ে পার হচ্ছেন পথচারীরা। এটা আসলেই দুঃখজনক ব্যাপার। মানুষকে সচেতন হতে হবে। অন্যথায় সমাধান আসবে না।

ব.ম শামীম/আরকে
Dhaka Post

Leave a Reply