ভাঙনের ঝুঁকিতে বাজার-গ্রাম

স্থায়ী বাঁধ নির্মাণে ধীরগতি
ক্রমাগত ভাঙনে মুন্সিগঞ্জ জেলার এক সময়ের সবচেয়ে বড় ও ঐতিহ্যবাহী দীঘিরপাড় বাজারটি বিলীন হওয়ার পথে।
‘তিনবার আমাগো বাড়িঘর পদ্মায় ভাইঙা নিছে। সব হারাইয়া দুই বছর ধইরা অন্যের জায়গায় ঘর কইরা আছি। এইবার আবার পদ্মার ভাঙন শুরু হইতাছে। হুনছি, সরকার দুই বছর আগে এইহানে বেরিবাঁধ বানাইতে টেকা দিছে, হেইডা হেরা বানায় নাই। ভাঙন আটকাইতে বালুর বস্তা বানাইছে, হেগিলিও নদীতে ফালায় নাই। বাড়িঘর ভাইঙা শেষ অইলে কি বালুর বস্তা ফালাইবো? বাঁধ বানাইবো?’

আক্ষেপের সঙ্গে কথাগুলো বলছিলেন মুন্সিগঞ্জের টঙ্গিবাড়ী উপজেলার দীঘিরপাড় ইউনিয়নের দক্ষিণ মূলচর এলাকার বাসিন্দা শাহানারা বেগম (৬০)। পদ্মা নদীসংলগ্ন এ গ্রামে এক আত্মীয়ের জায়গায় স্বামী–সন্তানসহ দুই চালার একটি ঘরে থাকেন তিনি। দুই বছর আগে পদ্মার ভাঙনে বসতভিটা হারিয়ে পথে বসে পরিবার। পরে আত্মীয়স্বজন ও স্থানীয় লোকদের সহযোগিতায় দক্ষিণ মূলচর এলাকায় ঘর তুলেছেন। এখন ওই বাড়িও ভাঙনের শঙ্কায়। শাহানারা বেগম বলেন, ‘সব সময় ভয়ে থাকি, কখন জানি আবার বাড়িঘর ভাইঙা নদীতে যায়।’ শুধু শাহানারা বেগমই নন, এমন শঙ্কা নিয়ে দিন পার করছেন দীঘিরপাড় বাজারের ব্যবসায়ী এবং দক্ষিণ মূলচর গ্রামের হাজারো মানুষ।

ভাঙনের শঙ্কায় ঐতিহ্যবাহী দীঘিরপাড় বাজার। তীব্র স্রোত ও বাল্কহেডের ঢেউয়ে জিও ব্যাগ সরে ভাঙছে নদীর তীরবর্তী দোকানপাট। গত শনিবার মুন্সিগঞ্জের টঙ্গিবাড়ী উপজেলার দীঘিরপাড় বাজার এলাকায়ছবি: প্রথম আলো

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, পদ্মার ভাঙনরোধে গত বছরের মে মাসে লৌহজং উপজেলার খড়িয়া থেকে টঙ্গিবাড়ী উপজেলার দীঘিরপাড় বাজার পর্যন্ত পদ্মার বাঁ তীরের ৯ দশমিক ১০ কিলোমিটার অংশে স্থায়ী বাঁধ নির্মাণ প্রকল্পের কাজ শুরু হয়। এতে ব্যয় ধরা হয় ৪৪৬ কোটি টাকা। কয়েকটি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান কয়েকটি ভাগে এ বাঁধ নির্মাণের কাজের দায়িত্ব পায়। তাদের মধ্যে সিগমা ইঞ্জিনিয়ারিংকে দীঘিরপাড় অংশের দায়িত্ব দেওয়া হয়। ২০২৪ সালের সেপ্টেম্বরে কাজ শেষ হওয়ার কথা। তবে এখনো কাজ শুরু করতে পারেনি প্রতিষ্ঠানটি।

তবে বাঁধের কাজ নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যেই শেষ হবে বলে জানিয়েছেন ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের কারিগরি বিভাগের দায়িত্বে থাকা আবদুস সালাম। প্রথম আলোকে তিনি বলেন, ব্লক বসানোর আগে যেসব কাজ করা দরকার, সেগুলো শেষ হয়েছে। কাজের মেয়াদ শেষ হওয়ার আগেই কাজ শেষ করা হবে।

স্থানীয় বাসিন্দা ও বাজারের ব্যবসায়ীরা জানান, ৩০ বছরেরও বেশি সময় ধরে টঙ্গিবাড়ী উপজেলার দীঘিরপাড় ইউনিয়নে ভাঙন চলছে। ভাঙনে দক্ষিণ মূলচর, মিতারা, হাইয়ারপারের কয়েক শ বাড়িঘর, মসজিদ, আবাদি জমি বিলীন হয়েছে। মুন্সিগঞ্জ জেলার এক সময়ের সবচেয়ে বড় ও ঐতিহ্যবাহী দীঘিরপাড় বাজারটির অন্তত ২০০ মিটার বিলীন হয়েছে। দুই বছর আগে ভাঙন তীব্র ছিল। এ সময় কিছু জায়গায় জিও ব্যাগও ফেলা হয়। এরপর ভাঙন বন্ধ করতে ব্লক দিয়ে স্থায়ী বেড়িবাঁধের প্রকল্প হাতে নেওয়া হয়। এবার বর্ষায় দীঘিরপাড় বাজার ও দক্ষিণ মূলচর গ্রামের বিভিন্ন স্থানের জিওব্যাগ সরে গিয়ে আবারও ভাঙতে শুরু করেছে। অথচ দীঘিরপাড় ইউনিয়নে বাঁধ নির্মাণে দায়িত্বে থাকা ঠিকাদার কাজে গাফিলতি করছেন। স্থায়ী বাঁধের ব্লক বসানো দূরে থাক, যেসব স্থানের জিও ব্যাগ সরে গেছে, সেখানেও বালুর ব্যাগ ফেলছেন না। এক মাসের বেশি সময় ধরে বালুর বস্তা ভরে রেখেছেন।

দীঘিরপাড় বাজার এলাকায় গিয়ে দেখা যায়, বাজারের পাশ দিয়ে প্রবাহিত পদ্মায় তীব্র ঘূর্ণিস্রোত বয়ে যাচ্ছে। নদীতে বাল্কহেড চলাচল করায় বড় বড় ঢেউ নদীর কিনারায় আছড়ে পড়ছে। কয়েক বছর আগে ফেলা জিও ব্যাগুলো কয়েকটি স্থান থেকে সরে গিয়ে আবার ভাঙন দেখা দিয়েছে। বাজারের ঘাটসংলগ্ন দোকানগুলোর মাটি সরে বাঁশ, খুঁটি বেরিয়ে আছে। ব্যক্তি উদ্যোগে কয়েকটি স্থানে বাঁশের বেড়া ও বালুর বস্তা ফেলেছেন ব্যবসায়ীরা। পাশেই স্তূপ করে ফেলে রাখা হয়েছে জিওব্যাগ। তবে বাজার ও দক্ষিণ মূলচর গ্রামের কোথাও স্থায়ী বাঁধের কোনো অস্তিত্ব দেখা যায়নি।

দুই বছর ধরে বাজার ভাঙতে ভাঙতে অনেকটা ছোট হয়ে গেছে জানিয়ে দীঘিরপাড় বাজারের ব্যবসায়ী সজীব খান বলেন, ‘ভাঙন রোধে ঠিকাদারকে দায়িত্বও দিয়েছে সরকার। অথচ কার্যকর কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে না। শুকনা মৌসুমে ভাঙন ঠেকানোর ব্যাপারে কোনো কাজ করেননি তাঁরা। নদীর স্রোত আর ঢেউয়ে আমার দোকানের নিচের মাটি সরে গেছে। যেকোনো সময় নদীতে বিলীন হয়ে যেতে পারে।’

ইউনিয়নের ২ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য ও দক্ষিণমূলচর এলাকার বাসিন্দা শ্যামল মণ্ডল বলেন, ‘দীঘিরপাড় বাজারের কয়েক শ ব্যবসায়ী ও দক্ষিণ মূলচরের কয়েক হাজার মানুষ ভাঙনের শঙ্কায় দিন পার করছেন। ভাঙন রোধে জিও ব্যাগ ফেলার কাজই শেষ করতে পারেননি ঠিকাদারের লোকজন। স্থায়ী বেড়িবাঁধেরও কোনো খবর নেই। আমাদের ঘরবাড়িও বিলীন হবে, এরপর এখানে বাঁধ নির্মাণের কাজ হবে না।’

পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী রণেন্দ্র শংকর চক্রবর্ত্তী প্রথম আলোকে বলেন, প্রকল্পের সব জায়গায় ভালোভাবেই কাজ চলছে। কাজের মানও ভালো। তবে দীঘিরপাড় এলাকায় ঠিকাদার ধীরগতিতে কাজ করছেন। তাঁকে দ্রুত ভাঙনকবলিত ও ভাঙনের শঙ্কা রয়েছে এমন স্থানে জিওব্যাগ ফেলতে বলা হয়েছে। সেই সঙ্গে নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে বাঁধের স্থায়ী কাজ শেষ করার জন্য নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

প্রথম আলো

Leave a Reply