শ্রীনগরে এক্সপ্রেসওয়ের জায়গায় স্প্রীড বোটের কারখানা

শ্রীনগরে বঙ্গবন্ধু এক্সপ্রেসওয়ের সার্ভিস লেনের পাশে সড়কের জায়গা দখল করে গড়ে উঠেছে স্প্রীড বোটসহ ফাইবার গ্যাসের যাবতীয় মেটারিয়াল তৈরীর কারখানা। সড়কের সার্ভিস লেনের ব্লকের ওপরে লাইন ধরে রাখা হয়েছে স্প্রীড বোডসহ কারখানার যাবতীয় মালামাল। এতে ব্যস্ততম সড়কে যানবাহন চলাচলে ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে উঠেছে।

অপরদিকে সড়কের পাশে ভরাট ও স্থাপনা নির্মাণের ফলে সার্ভিস লেনের পানি নিস্কাশণের ড্রেনগুলো সম্পূর্ণরূপে বন্ধ হয়ে গেছে। প্রায় ৩০০ ফুট সার্ভিস লেন সড়কে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে। বঙ্গবন্ধু এক্সপ্রেসওয়ে শ্রীনগর উপজেলার সমষপুর ও দোগাছির মাঝামাঝি রেল স্টেশনের বিপরীত দিকে অথাৎ সড়কের পশ্চিম পাশের সার্ভিস লেনের জায়গায় গড়ে উঠেছে ‘রূপা মটর ওয়ার্কসপ এন্ড ফাইবার গ্যাস নামক ছাড়পত্রবিহীন কারখানাটি। কারখানাটির মালিক মো.খলিল বেপারী। সে পার্শ্ববর্তী লৌহজং উপজেলার উত্তর মেদেনী মন্ডলের আলাউদ্দিনের ছেলে।

অভিযোগ উঠেছে আজাহার উকিল নামে এক ব্যক্তি এক্সপ্রেসওয়ের ওই জায়গা ভরাট করে কারখানার মালিকের কাছে ভাড়া দিয়েছে মাসিক ভাড়া আদায় করছেন।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, দোগাছিতে মহাসড়কের সার্ভিস লেন সংলগ্ন টিনের শেড কারখানার যাবতীয় কাজকর্ম করা হচ্ছে। বিভিন্ন ক্যামিকেলের সংমিশ্রনে ফাইবার তৈরি করছেন শ্রমিকরা। এক্সপ্রেসওয়ের সার্ভিস লেন সমান করে সড়ক ব্লকের ওপর রাখা হয়েছে স্প্রীড বোডসহ অন্যান্য জিনিসপত্র। লক্ষ্য করা যায়, যত্রতত্রভাবে কারখানাটি স্থাপণের কারণে বৃষ্টির পানি সড়কে জমে যাচ্ছে। মাটি ভরাট করায় সড়কের ড্রেজেন ব্যবস্থা সম্পূর্ণরূপে বন্ধ হয়ে গেছে। এতে বৃষ্টির পানিতে সার্ভিস লেনের এখানে জলাবদ্ধতা হচ্ছে। কারখানাটির পূর্ব পাশে জায়গা রাখা হয়েছে বিশাল বালুরস্তুপ।

জানা গেছে, সড়কের জায়গাসহ জমি ভরাট করে আবু বক্কর নামে এক ড্রেজার ব্যবসায়ী এখানে বালু কেনাবেচা করছেন। মো. শফিক নামে একজন বলেন, তিনিসহ ৬ জন স্প্রীড বোট কারখানায় কাজ করেন। কারখানার বিষয়ে কিছু জানতে হলে ম্যানেজারের সাথে কথা বলুন।

ম্যানেজার মো. তপু শেখ বলেন, প্রায় দেড় মাস যাবত এখানে কারখানাটি আনা হয়েছে। এর আগে মাওয়া এলাকায় ছিল। এক্সপ্রেসওয়ের জায়গায় এভাবে কারখানা দেয়ার কোন অনুমতি আছে কি না এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, এটা মালিক বলতে পারবে।

কারখানার মালিক মো. খলিল বেপারীর কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আজাহার উকিলের কাছ থেকে মাসিক ১৫ হাজার টাকায় জায়গাটি ভাড়া নিয়েছেন। তবে জানতে পেরেছি সড়কের পশ্চিম দিকে বিদ্যুৎ খুঁটির পর থেকে মালিনা জমি রয়েছে। সড়কে বৃষ্টির পানি জমার কারণ সমন্ধে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ড্রেনের মুখ বন্ধ আছে তাই পানি যেতে পারছে না।

এ বিষয়ে সড়ক ও জনপথের প্রকৌশলী (শ্রীনগর জোন) দেবাশীষ বিহারী দাস জানান, এক্সপ্রেসওয়ে আমাদের আওতায় নেই। তবে আমি এখনই বিষয়টি সংশ্লিষ্টজনদের জানাচ্ছি।

নিউজজি

Leave a Reply