মুন্সীগঞ্জে ৮ লাখ টাকা আত্মসাৎ মামলায় আসামি কারাগারে

মুন্সীগঞ্জের গজারিয়া উপজেলায় আট লাখ টাকা আত্মসাৎ করা মামলায় আসামি মো: আসাদ উল্লাহকে (৩৭) জেল হাজতে প্রেরণের নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। সোমবার (৪ সেপ্টেম্বর) দুপুর ১টার দিকে আসামিকে মুন্সীগঞ্জ চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে আত্মসমর্পণ করলে আদালতের বিচারক রোকেয়া রহমান তাকে জামিন নামঞ্জুর করে জেল হাজতে প্রেরণের নির্দেশ দেন।

আসামি আসাদ উল্লাহ গজারিয়া উপজেলার পুরান বাউসিয়া (পূর্বপাড়া) গ্রামে ভোটার হলেও তার সঠিক বাড়ি এখন পর্যন্ত নিশ্চিত করতে পারেনি পুলিশ।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ওই আদালতের বেঞ্চ সহকারি মো: আব্দুস সাত্তার।

জানা গেছে, আসাদ উল্লাহ গজারিয়া উপজেলার বিভিন্ন লোকের কাছে সাংবাদিক পরিচয়ে বিদেশে কিংবা সরকারি চাকরি দেয়া প্রলোভন দেখিয়ে লাখ লাখ টাকা আত্মসাৎ করেছে। আসামির বিরুদ্ধে এমন অভিযোগে সাত-আটটি প্রতারণা ও টাকা আত্মসাৎ মামলা হয়েছে।

মামলা সূত্রে জানা গেছে, আসামি আসাদ উল্লাহ বাদিকে বৈধ ভিসায় সুইডেন পাঠানোর কথা বলে গত ২০২২ সালের ২৫ এপ্রিল অট লাখ টাকা নেয়। দুই মাসের মধ্যে বাদিকে সুইডেন পাঠাবে বলে আশ্বাস দেয়। কিন্তু দীর্ঘদিন হয়ে যাওয়ার পরে ও বাদিকে সুইডেন পাঠায়নি কিংবা আট লাখ টাকা ফেরতও দেয়নি।

আসামি বাদির পাওনা টাকা ফেরতের বিষয়ে অস্বীকার করলে গজারিয়া উপজেলার বৈদ্যারগাঁও শিকদার বাড়ি গ্রামের মরহুম আব্দুল করিমের ছেলে ফেরদৌস হাসান (৪২) ২০২২ সালের ৬ সেপ্টেম্বর মুন্সীগঞ্জ আদালতে এসে আসাদ উল্লাহকে আসামি করে মামলা করেন।

বাদি ফেরদৌস হাসান জানান, ‘আসাদ উল্লাহ আমাকে বৈধ ভিসায় সুইডেন পাঠাবে বলে আট লাখ টাকা নিয়েছে। দীর্ঘদিন হলেও আসাদ উল্লাহ আমাকে সুইডেনও নেয়নাই, আমার টাকা ফেরতও দেয় নাই। এমন অনেকের সাথেই প্রতারণা করছেন।

মুন্সীগঞ্জ কোর্ট পুলিশের পরিদর্শক মো: জামাল উদ্দিন জানান, মামলায় আসামি আসাদ উল্লাহ মহামান্য হাইকোর্টে জামিনের আবেদন করলে হাইকোর্ট তাকে ছয় সপ্তাহের মধ্যে মুন্সীগঞ্জ চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে আত্মসমর্পনের আদেশ দেয়।

পরে আজ সোমবার আসামি ওই আদালতে আত্মসমর্পন করলে আদালত তাকে জামিন না মঞ্জুর করে জেল হাজতে প্রেরণের নির্দেশ দেন।

নয়া দিগন্ত

Leave a Reply