দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মুন্সিগঞ্জ ২ আসনের নতুন মুখ!

মুন্সীগঞ্জ -২ সংসদীয় লৌহজং ও টঙ্গিবাড়ী পদ্মা পাড়ের দুই উপজেলার ভোটার সংখ্যা প্রায় ২ লাখ আশি হাজার। টঙ্গিবাড়ী উপজেলায় চল্লিশ হাজার ভোটার বেশি হলেও গত তিন মেয়াদে নৌকা মার্কায় জিতে এই আসনে সংসদ সদস্য হিসেবে সফল ভাবে দায়িত্ব পালন করে আসছেন লৌহজং উপজেলার গাঁওদিয়া ইউনিয়নের ঐতিহ্যবাহী খান পরিবারের অধ্যাপিকা সাগুফতা ইয়াসমিন এমিলি। এই দীর্ঘ সময় তিনি নিজের অপ্রতিদ্বন্ধী অবস্থান ধরে রেখেছেন।

এবার মুন্সিগঞ্জ – ২ আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন দৌড়ে নেমেছেন এক ঝাঁক নতুন সম্ভাব্য প্রার্থী। আলোচিত সম্ভাব্য নতুন প্রার্থীদের মধ্যে আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মুন্সিগঞ্জ – ২ আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেতে রাজনৈতিকভাবে সক্রিয় আছেন এডভোকেট সোহানা তাহমিনা। তিনি সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবি ও মুন্সিগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও বঙ্গবন্ধুর মহিউদ্দিন খ্যাত মো: মহিউদ্দিনের স্ত্রী। এছাড়া তিনি মুন্সিগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের মেয়ে।

অন্যদিকে সাধারণ মানুষের কাছে সবচেয়ে জনপ্রিয়তার দিকে এগিয়ে আছেন টঙ্গিবাড়ী উপজেলা পরিষদের তিন বারের সফল চেয়ারম্যান, শেরেবাংলা হল ছাত্র সংসদের (বুয়েট) সাবেক ভিপি, মুন্সিগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার কাজী ওয়াহিদ। ঐতিহ্যগতভাবেই তিনি গণমানুষের কাছের মানুষ।

সাধারণ মানুষ মনে করেন অধ্যাপিকা সাগুফতা ইয়াসমিন এমিলির পর এই এলাকায় সবচেয়ে যোগ্য, মেধাবী, অভিজ্ঞ ও অভিভাবক সুলভ নেতা একমাত্র ইঞ্জিনিয়ার কাজী ওয়াহিদ। তাকে সারা বছর পাওয়া যায়, তার সাথে সব সময় কথা বলা যায়, তার কাছে গিয়ে কেউ খালি মুখে বা খালি হাতে ফিরে আসেন না, তার কাছে কাউকে ধরে যেতে হয় না, তার দরজা সকলের জন্য সকল সময়ে খোলা।

পচিশ বছর ধরে বাড়ীতে দাওয়াত করে নিয়ে নিজ হাতে বিয়ে বাড়ীর মতো আপ্যায়ন করে হাজার হাজার লেপ বিতরণ, নিজ খরচে কয়েক হাজার রোগীর ছানি অপারেশন করিয়ে দেওয়া ও করোনার সময় একটানা দুই বছর গ্রামে থেকে মানুষকে সার্বক্ষণিক সহায়তা করার মতো কাজগুলো কাজী ওয়াহিদকে জনগণের আস্থার জায়গায় এনে দিয়েছে। যে কোন পাবলিক পরীক্ষায় অভিভাবকদের জন্য বসা ও আপ্যায়নের ব্যবস্থা, এসএসসি পরীক্ষায় জিপিএ- ৫ পাওয়া ছাত্র ছাত্রীদের কক্সবাজার বেড়াতে নেয়া, চতুর্থ শ্রেণির শিক্ষার্থীদের বৃত্তি দেয়ার মতো কাজগুলো তাকে শিক্ষা সংশ্লিষ্ট সকলের কাছে গ্রহনযোগ্য করেছে।

টঙ্গিবাড়ী উপজেলার প্রতিটি বাড়িতে যেয়ে গণসংযোগ, স্কুলে স্কুলে মা সমাবেশ, গ্রামে গ্রামে মুরুব্বিদের নিয়ে বউয়া মিটিং ও প্রতিটি মসজিদে নামাজ পড়তে যেয়ে মুসুল্লিদের সাথে কুশল বিনিময় করে তিনি ব্যাপক জনগোষ্ঠীর সাথে ব্যাক্তিগত পর্যায়ের যোগাযোগ স্থাপন করেছেন। সব সময়ে সত্য বলা, বিনয়ী ব্যবহার আর প্রতিশ্রুতি রক্ষা করে চলায় তিনি আছেন সাধারণ মানুষের বিশ্বাসের জায়গায়।

উপজেলা চেয়ারম্যান হিসেবে তার সফলতা, গত পনের বছরের সকল উন্নয়ন কর্মকান্ডে সক্রিয় থাকা, সকল উন্নয়ন প্রতিশ্রুতি রক্ষা করা, সকল শ্রেণী পেশার মানুষকে ব্যাক্তিগত পর্যায়ের আদর আপ্যায়নের কারণে দলীয় ভোটের বাইরে টঙ্গিবাড়ী উপজেলায় তার আছে ব্যাক্তিগত ভোট ব্যাংক। আর লৌহজংয়ে ঐতিহ্যগতভাবেই নৌকা এগিয়ে। দলীয় এই ভোটের সাথে ব্যাক্তিগত ভোট ব্যাংক মিলে কাজী ওয়াহিদের নৌকার তরী তীরে ভিড়ার রয়েছে উজ্জ্বল সম্ভাবনা।

যাযাদি

Leave a Reply