সিরাজদীখানে ভিড় করছে উত্তরবঙ্গের শ্রমিক

ইমতিয়াজ বাবুলঃ ষড়ঋতুর দেশে প্রকৃতিতে এখন হেমন্তকাল। এ ঋতুর মাঝামাঝি গ্রামাঞ্চলে শীতের আবহ ছড়িয়ে পড়েছে। শেষ কার্তিকের ভোরে কুয়াশার দেখাও মিলছে। পুব আকাশে যখন রক্তলাল সূর্যের আভা, তখন অনেকেই আরামনিদ্রায়। তবে শ্রমজীবী মানুষের ফুরসত নেই। এমনই একদল মানুষ কাজের সন্ধানে জটলা করছিলেন। শনিবার সকালে ঘড়ির কাঁটা তখন ৬টার ঘরে। মুন্সীগঞ্জের সিরাজদীখান উপজেলার নিমতলায় কয়েকশ পুরুষ উৎসুক চোখে তাকিয়ে। যে কোনো আগন্তুক দেখলেই সর্দারগোছের কেউ এগিয়ে যান। চলে দরকষাকষি।

নিমতলা বাজারটি উপজেলার কেয়াইন ইউনিয়নে। জেলার অন্য উপজেলার মতো সিরাজদীখানেও বিপুল পরিমাণ কৃষক আলু চাষ করেন। শীতে ফলনও ভালো হয়। আর এ সময়ে দেশের উত্তরাঞ্চলে তেমন কাজ থাকে না। সংসারের খরচ চালাতে অনেকেই ছুটে আসেন মুন্সীগঞ্জের বিভিন্ন বাজার ও হাটে। এ মৌসুমে নতুন ধরনের ‘মানুষ বিক্রি’র হাট যে বসে! চমকে ওঠার মতো কথা হলেও বিষয়টি আদতে বিক্রি নয়। তবে দিন-মাস হিসাবে শ্রমিকরা নিজেদের বেচে দেন চাষির কাছে। বিনিময়ে টাকা-খাদ্য মেলে। মৌখিক চুক্তির মেয়াদ শেষে তারা বাড়ির পথ ধরেন। আবারও আসেন আলু তোলার মৌসুম শুরু হলে।
শুক্রবার গাইবান্ধা জেলার সাদুল্লাপুর থেকে আটজনের একটি দল এসেছে। শনিবার তারা অপেক্ষা করছিলেন সিরাজদীখানের নিমতলায়। সেখানে কথা হয় মাইনুল ইসলামের (৩০) সঙ্গে। তিনি বলেন, এ মৌসুমে এলাকায় কাজকর্ম নেই। তাই অন্যদের সঙ্গে ছুটে এসেছেন এই এলাকায়। সকালে এক আলুচাষির সঙ্গে কথা হয়েছে। তিনি এক মাসের জন্য কাজে নিতে চান। জনপ্রতি দিনে ৫০০ টাকা করে দিতে রাজি হয়েছেন। দলটি আরেকটু অপেক্ষা করছিল দরকষাকষির জন্য।

সকাল ৬টা থেকে সাড়ে ৮টা পর্যন্ত দুই ঘণ্টা উপজেলার কেয়াইন ইউনিয়নের নিমতলা, ইছাপুরা ইউনিয়নের ইছাপুরা চৌরাস্তা, বালুচর বাজারসহ আরও কয়েকটি স্থানে বসে এমন শ্রমিক বিক্রির হাট। চাষিদের কেউ সাত দিনের জন্য, কেউ এক মাসের জন্য তাদের ‘কিনে’ নিতে আসেন। কেউ আবার তারও বেশি দিনের জন্য নেন। সিরাজদীখান উপজেলায় গত মৌসুমে আলু চাষ হয়েছিল ৯ হাজার হেক্টরের বেশি জমিতে। চলতি বছর দাম বেশি হওয়ায় কৃষকের আগ্রহও বেশি। ফলে এবার গতবারের চেয়ে বেশি জমিতে চাষ হবে বলে মনে করছেন কৃষি বিভাগ-সংশ্লিষ্টরা। এ মৌসুমে উপজেলায় আলু বপন ও পরিচর্যায় শ্রমিকের চাহিদা বেড়ে যায় কয়েক গুণ। পরে ক্ষেত থেকে তোলা ও হিমাগার পর্যন্ত বহনেও শ্রমিক লাগে। এদের বেশির ভাগই উত্তরবঙ্গের নানা জেলা থেকে আসেন।

কেয়াইন ইউনিয়নের শিকারপুর গ্রামের বাসিন্দা সাখাওয়াত হোসেন। এ মৌসুমে তিনি ৯ বিঘা জমিতে আলু চাষ করবেন। এ জন্য শ্রমিক প্রয়োজন। সাখাওয়াত বললেন, ‘আমাদের এলাকায় আগের মতো শ্রমের জন্য মানুষ পাওয়া যায় না। যাও দু-একজন আছেন– তাদের কদর বেশি। বাধ্য হয়েই নিমতলা থেকে ১০ জন শ্রমিক নিয়েছি, তাদের বাড়ি উত্তরবঙ্গে।’

ইছাপুরার ইয়াসিন মিয়া সাত বিঘা জমি বর্গা নিয়ে আলু চাষ করছেন। তিনি জানালেন, শ্রমিকপ্রতি দিনে ৪০০-৬০০ টাকা গুনতে হয় চাষিদের। ইছাপুরা চৌরাস্তা থেকে তিনি ৬ জনকে কাজের জন্য নিয়েছেন। তাঁর ভাষায়, ‘কিনেছি।’ অন্য চাষিরাও এখান থেকে প্রয়োজনীয় দিনমজুর নিয়ে যাচ্ছেন।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা আবু সাঈদ শুভ্র বলেন, গত বছর সিরাজদীখানে ৯ হাজার হেক্টর জমিতে আলুর চাষ হয়েছিল। এবার আলু বেশি দামে বিক্রি হয়েছে। ফলে চাষের লক্ষ্যমাত্রা আরও বেশি হবে বলে তাঁর ধারণা। এসব কাজের জন্য বিপুল পরিমাণ শ্রমিকের চাহিদা রয়েছে। উপজেলার বিভিন্ন হাটে দেশের নানা এলাকার শ্রমিকরা প্রতিদিন ভিড় করেন।

সমকাল

Leave a Reply