মুন্সীগঞ্জে বাঁশের ব্যবসা : ঐতিহ্য ধরে রাখতে টিকে থাকার লড়াই

তোফাজ্জল হোসেন শিহাব : মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার শত বছরের পুরনো মাকহাটি বাজারটি ঐতিহ্যবাহী হাট হিসেবে বেশ পরিচিত। তবে সময়ের বিবর্তনে ঐতিহ্য হারাতে বসেছে হাটটি। বাজারটির ব্যবসা-বাণিজ্য এখন অনেকটাই বিলুপ্তির পথে। তবে ঐতিহ্য ধরে রাখতে এখনো বাঁশের ব্যবসা টিকিয়ে রাখার চেষ্টা করছেন স্থানীয় ব্যবসায়ীরা। জানা যায়, ২৫/৩০ বছর আগে এই বাজারটিতে ব্যবসা-বাণিজ্য ছিল রমরমা। নদী এবং সড়কপথে এই হাটে আসত শিলই, আদারা, বাংলাবাজার, মোল্লাকান্দিসহ প্রায় ৫টি ইউনিয়নের হাজারো মানুষ।


কৃষকরা তাদের উৎপাদিত কৃষিপণ্য বিক্রি এবং কৃষি জমিতে ব্যবহৃত সার ও বীজসহ অনুষঙ্গিক জিনিসের জন্য এই হাটের ওপর নির্ভরশীল ছিল। প্রতি বুধবার এবং রবিবার বসত সাপ্তাহিক হাট। হাটের দিন এবং অন্যান্য দিনে ৫টি ইউনিয়নের মানুষগুলো বাঁশ কেনার জন্য এই হাটে আসত। কিন্তু মাকহাটি বাজারের সেই বাঁশের ব্যবসা নেই আগের মতো। এখানে আর আগের মতো লোকজন বাঁশ কিনতে আসছে না। স্থানীয় কয়েকটি গ্রাম আর পার্শ্ববর্তী টঙ্গীবাড়ি উপজেলার আলদি, পুরা, যশলং, কাঠাদিয়াসহ বেশ কিছু এলাকার লোকজনের কারণে এখনো বাঁশের ব্যবসাটি টিকে আছে।

তবে ঐতিহ্য ধরে রাখতে ব্যবসায়ীরা বাঁশের ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছেন। লোকসানও গুনছেন নিয়মিত। বেচাকেনা কম থাকায় আর্থিকভাবে লাভবান হতে পারছেন না ব্যবসায়ীরা। জানা গেছে, জেলা সদরের প্রত্যান্ত অঞ্চলের মানুষজন তাদের চাহিদা মতো পণ্য কেনার জন্য আসতো মাকহাটি বাজারে। তবে বাজারটি শুরু থেকেই বাঁশ বিক্রির জন্যই জনপ্রিয় ছিল। নদী এবং নদী সংযুক্ত খালগুলোতে নাব্য সংকট সৃষ্টির কারণে নৌপথে সৃষ্টি হয় নানা ধরনের প্রতিবন্ধকতা। বর্তমানে বর্ষার সময়েও অধিকাংশ খালে নৌযান চলাচল করতে পারছে না।

আগে মানুষ নৌপথে বাঁশসহ প্রয়োজনীয় জিনিস কিনতে এই হাটে আসত। এখন নদী পথে আর আগের মতো কোনো ক্রেতা এই হাটে আসছেন না। রিকশা, ভ্যানে করে বিভিন্ন স্থান থেকে কিছু লোকজন এখনো বাঁশ কিনতে আসেন। তাছাড়া এই বাজারটি বাঁশ বিক্রির কেন্দ্রবিন্দু হলেও এখন বিভিন্ন এলাকায় বাঁশের ব্যবসা শুরু করেছেন স্থানীয় ব্যবসায়ীরা। ফলে ময়মনসিংহ থেকে প্রতি পিস বাঁশ ১২০ থেকে ১৩০ টাকায় কেনা হলেও নদী পথে বাঁশ এনে মাকহাটি পৌঁছাতে ব্যবসায়ীদের খরচ দ্বিগুণ হয়ে যায়। সরজমিনে ঘুরে দেখা গেছে, মাকহাটি বাজারের রজতরেখা নদীর তীরে থাকা ঐতিহ্যবাহী বাঁশের দোকানগুলোতে ক্রেতাদের নেই তেমন পদচারণা। আগে যেখানে প্রতি মুহূর্তে বাঁশের দোকানে শত শত ক্রেতার ভিড় ছিল এখন সেখানে ২/৩ জনের বেশি ক্রেতার উপস্থিতি নেই। প্রতিটা দোকানে বিভিন্ন সাইজের বাঁশের পসরা সাজিয়ে বসে আছেন বিক্রেতারা।

বাঁশ বিক্রেতা আয়নাল দপ্তরি জানান, ময়মনসিংহের ফুলবাড়ীয়া থেকে এবারও অধিক পরিমান বাঁশ কিনে এনেছি বর্ষায় বিক্রির জন্য। নদী পথে নানা ধরনের প্রতিবন্ধকতার কারণে বাঁশ এখানে এনে পৌঁছাতে বাঁশপ্রতি খরচ দ্বিগুন। ১৫০ টাকা কেনা বাঁশ মাকহাটি পৌঁছাতে খরচ হচ্ছে আরো ১৫০ টাকা। যে দামে বাঁশ কিনি তার সমান পরিমাণ খরচ হচ্ছে এখানে নিয়ে আসতে।

আরেক ব্যবসায়ী বলেন, বর্ষার শুরুতে কিছুটা বেচাকেনা হলেও এখন বেচাকেনা কম। খালের পানি চলে গেলে বাঁশগুলো শুকিয়ে নষ্ট হবে। মাকহাটি বাজারটি চালু করার পাশাপাশি নদীপথে নাব্য দূর করা হলে ব্যবসাটি টেকানো সম্ভব হবে। মাকহাটি বাজারটি আগের মতো সচল না হলে এই ব্যবসাটিও এক সময় বন্ধ হয়ে যাবে। মাকহাটি বাজারের ঐতিহ্য ধরে রাখতে এখনো এই ব্যবসাকে টিকিয়ে রাখার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি।

মাকহাটি বাজারের ঐতিহ্য ধরে রাখতে নদী সংযুক্ত খালগুলো খনন করা জরুরি বলে মনে করছেন সুশীল সমাজের ব্যক্তিরা। এ বিষয়ে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানান তারা।

ভোরের কাগজ

Comments are closed, but trackbacks and pingbacks are open.