টঙ্গিবাড়ীতে কৃষিজমির মাটি বেচে দিচ্ছেন ইউপি সদস্য

মুন্সীগঞ্জের টঙ্গিবাড়ীতে এক ইউপি সদস্য অনুমতি ছাড়াই কৃষিজমির মাটি কেটে বিক্রি করছেন। পাঁচ-ছয় মাস ধরে উপজেলার কামারখাড়া ইউনিয়নের পশ্চিম কামারখাড়া গ্রামে চলছে মাটি কাটার এ যজ্ঞ। এতে আনুমানিক ৪-৫ একর জমিতে বিশাল পুকুর তৈরি হয়েছে। এর ফলে আশপাশের কৃষিজমিতে ভাঙন দেখা দিয়েছে বলে স্থানীয় কৃষকের অভিযোগ। তারা আরও জানিয়েছেন, ট্রলিতে করে মাটি বহনের সময় সরকারি কাঁচা সড়কেরও ব্যাপক ক্ষতি হচ্ছে।

কৃষি জমির মাটি বিক্রির এ ব্যবসা করছেন কামারখাড়া ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) ১ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য মামুন পেয়াদা। তাঁর এখান থেকে মাটি কিনে অন্য জায়গার লোকেরা কৃষিজমি ভরাট করছেন। স্থানীয় সূত্র জানায়, গত মৌসুমেও এসব জমিতে আলু ও শাকসবজির আবাদ হয়েছে। আলু তোলা শেষ হওয়ার পর এক্সক্যাভেটর (ভেকু) দিয়ে মাটি কাটা শুরু হয়। কয়েক মাসে জমির পূর্বাংশ বিশাল পুকুরে রূপান্তরিত হয়েছে। সম্প্রতি সেখান থেকেও তিন খননযন্ত্র (ড্রেজার) বসিয়ে মাটি তুলতে দেখা গেছে।

স্থানীয় লোকজন জানায়, কৃষিজমির ওই মাটি উপজেলার কামারখাড়া, বেসনাল, বাঘিয়া, যশলং এলাকায় কয়েক একর কৃষি জমিতে ফেলছেন ইউপি সদস্য মামুন পেয়াদা। এ জন্য বিপুল অঙ্কের টাকাও নিচ্ছেন। পুকুরের পশ্চিম পাশের কৃষিজমি থেকে এখনও মাটি কাটা চলছে।

এলাকাবাসী বলেন, উপরের মাটি বিক্রি করেছেন আগেই। এখন নিচের মাটি তুলছেন ড্রেজার বসিয়ে। পুকুরের গভীরতা বাড়তে থাকায় আশপাশের কৃষিজমি ভাঙনের মুখে পড়েছে। কারও কারও জমি ইতোমধ্যে ভেঙে পড়েছে। তবে ইউপি সদস্যের ভয়ে কেউ প্রতিবাদের সাহস পাচ্ছেন না।

বুধবার সেখানে কথা হয় শ্রমিক সোহেল ও বাবুল মিয়ার সঙ্গে। কয়েক মাস ধরে কাজ করছেন সোহেল। তাঁর ভাষ্য, ড্রেজার দিয়ে মাটি কেটে বিভিন্ন জায়গায় বিক্রি করছেন ইউপি সদস্য মামুন পেয়াদা। তিনি শ্রমিক হিসেবে হুকুম পালন করছেন। একই রকম বক্তব্য দেন দেড় মাস ধরে মাটি কাটায় সম্পৃক্ত বাবুল।

পশ্চিম কামারখাড়ার বাসিন্দা সিরাজ মিয়া (৭০) বলেন, মামুন পেয়াদা ৫-৬ মাস ধরেই ভেকু দিয়ে মাটি কেটে বিক্রি করছেন। এখন আবার ড্রেজার বসিয়েছেন। যে জমির মাটি কাটা হচ্ছে, সেখানে আগে চাষাবাদ হতো। ওই মাটি নেওয়ার সময় কাঁচা রাস্তার ক্ষতি হচ্ছে।

কৃষিজমি থেকে মাটি উত্তোলন বা ভরাট করলে এর শ্রেণি পরিবর্তন হয়। সরকারি নিয়ম অনুযায়ী, এর জন্য ভূমি মালিককে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের এসএ শাখায় আবেদন করতে হয়। সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা পরিদর্শনের পর প্রয়োজনীয় সুপারিশ করবেন। এর পরিপ্রেক্ষিতে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) অনুমোদন দেবেন। কোনো ক্ষেত্রে জেলা প্রশাসকও এ অনুমতি সরাসরি দেন। তবে এর কোনোটাই করেননি ইউপি সদস্য মামুন পেয়াদা। তবে তিনি মাটি কাটার বিষয়টি স্বীকার করেন। তাঁর ভাষ্য, ‘নিজের জমি থেকেই আমি মাটি কাটতেছি।’

কামারখাড়া ইউপি চেয়ারম্যান লুৎফর রহমান হালদার বলেন, জমির শ্রেণি পরিবর্তনের কোনো তথ্য ইউপি সদস্য মামুন পেয়াদা তাঁকে জানাননি। বিষয়টি তিনি খোঁজ নিয়ে দেখবেন।

টঙ্গিবাড়ী উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি) রেজওয়ানা আফরিন এ বিষয়ে তথ্য পেয়েছেন। তিনি বলেন, ‘আমি স্থানীয় তহসিলদার পাঠিয়ে খোঁজ
নিতে বলব। তাঁর কাছে সত্যতা পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেব।’

সমকাল

Leave a Reply