জাপান-বাংলাদেশ শিক্ষা ব্যবস্থা, বাস্তবতা এবং প্রতিবন্ধকতা

রাহমান মনি: অতি সম্প্রতি বাংলাদেশী কোমলমতি শিক্ষার্থীদের উপর চাপিয়ে দেয়া শিক্ষা কারিকুলাম নিয়ে পক্ষে-বিপক্ষে অনেক যুক্তি, প্রত্যাখান, তর্ক-বিতর্ক চলছে। এ নিয়েও দেশবাসী দুইটি ভাগ বা দুইটি পক্ষে বিভক্ত হয়ে গেছে ।

একদিকে একপক্ষ বলছে এ শিক্ষা কারিকুলাম জাতিকে ধ্বংস করার পায়তারা, আরেকদিকে অন্যপক্ষ বলছে সময়োপযোগী, যুগান্তকারী কারিলুলাম।

বাংলাদেশে আগামী বছর প্রাথমিক ও মাধ্যমিক স্তরের কয়েকটি শ্রেণিতে নতুন একটি কারিকুলাম বা শিক্ষাক্রম চালু করতে যাচ্ছে সরকার। এতে শিক্ষার্থীদের পাঠ্যসূচি ও মূল্যায়ন পদ্ধতিতে ব্যাপক পরিবর্তন আসছে, যা নিয়ে বিভিন্ন মহলে নানা আলোচনা-সমালোচনা হতে দেখা যাচ্ছে।

নতুন শিক্ষাক্রমে দশম শ্রেণির আগের সব পাবলিক পরীক্ষা তুলে দেওয়া হয়েছে। এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষা পদ্ধতিতেও আনা হয়েছে পরিবর্তন। এছাড়া থাকছেনা নবম শ্রেণিতে বিভাগ পছন্দের সুযোগ। এর বদলে একাদশ শ্রেণিতে গিয়ে শিক্ষার্থীরা পছন্দমতো বিভাগে পড়তে পারবেন।

তবে, ধাপে ধাপে এই কারিকুলাম বাস্তবায়ন করা হবে। চলতি বছর প্রথম, দ্বিতীয়, ষষ্ঠ এবং সপ্তম শ্রেণিতে নতুন পাঠ্যক্রম বাস্তবায়ন করা হয়েছে। ২০২৪ সালে বাস্তবায়ন করা হবে তৃতীয়, চতুর্থ, অষ্টম ও নবম শ্রেণিতে। এরপর ২০২৫ সালে পঞ্চম ও দশম শ্রেণিতে, ২০২৬ সালে একাদশ শ্রেণিতে এবং ২০২৭ সালে দ্বাদশ শ্রেণিতে ধাপে ধাপে নতুন শিক্ষাক্রম চালু হওয়ার কথা বলা হয়েছে ।

শিক্ষার্থীদের আনন্দময় পরিবেশে পড়ানোর পাশাপাশি মুখস্থ নির্ভরতার পরিবর্তে দক্ষতা, সৃজনশীলতা, জ্ঞান ও নতুন দৃষ্টিভঙ্গি সম্পর্কে শেখাতেই নতুন এই শিক্ষাক্রম চালু করা হচ্ছে বলে জানিয়েছে জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ড।

নতুন শিক্ষাক্রমে পরীক্ষার চেয়ে ব্যবহারিকের প্রতি বেশি গুরুত্ব দেয়া হয়েছে। যার ফলে পড়ার চেয়ে শিক্ষার্থীদের ব্যবহারিক নানান কাজের চাপ বাড়বে, যা অনেক অভিভাবকের ভাবনার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে।

এদিকে, শিক্ষাবিদদের কেউ কেউ মনে করছেন নতুন শিক্ষাক্রম বাস্তবায়নের জন্য যে ধরনের প্রস্তুতি নেওয়া প্রয়োজন ছিল, সেটি না নিয়েই কাজ শুরু করেছে সরকার। মাঠ পর্যায়ে বাস্তবায়নের জায়গায় অনেক দুর্বলতা রয়ে গেছে। এ অবস্থায় নতুন শিক্ষাক্রমটি কতটা কাজে দিবে, সেটি নিয়ে যথেষ্ট সন্দেহ রয়েছে।

এ ধরনের একটি উদ্যোগ গ্রহণের আগে প্রয়োজনীয় গবেষণার পাশাপাশি এর সাথে জড়িত প্রতিটি অংশীদারের সাথে আলাপ-আলোচনা ও পরামর্শ করা উচিত ছিল বলে মনে করেন শিক্ষাবিদরা।

আমি মনে করি, অভিভাবক এবং শিক্ষকরা এই উদ্যোগের সবচেয়ে বড় দুই অংশীদার। কিন্তু শিক্ষাক্রম পরিবর্তনের আগে তাদের সাথে কি বসা হয়েছে? বসা হলে কয়জনের সাথে আলাপ-আলোচনা বা পরামর্শ করা হয়েছে? তাদের সাথে আলোচনা করে ধাপে ধাপে এটি বাস্তবায়ন করা হলে এই পরিস্থিতি তৈরি হতো না বলে আমি মনে করি।

জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ডের তথ্য অনুযায়ী, ২০১৭ সালে নতুন শিক্ষাক্রমের চাহিদা নিরূপণ ও বিশ্লেষণের কাজ শুরু হয়। এরপর একাধিক গবেষণা ও বিশেষজ্ঞদের সাথে পরামর্শক্রমে ২০২১ সালে ‘জাতীয় শিক্ষাক্রম রূপরেখা-২০২১’ তৈরি করা হয়।

সরকারের অনুমতিক্রমে ২০২২ সালে ৬০টি স্কুলে পরীক্ষামূলকভাবে এটি চালু করা হয়। এর ফলাফলের ভিত্তিতে ২০২৩ সালে সারা দেশে ষষ্ঠ ও সপ্তম শ্রেণিতে নতুন পাঠ্যক্রম চালু করা হয়।

যুগের সাথে তাল মেলাতে এর কোনও বিকল্প নেই বলে সংশ্লিষ্টরা উল্লেখ করেন।

তাই, তারা জাপানসহ উন্নত বিশ্বের সাথে তুলনা করেন।

জাপানে বসবাসের সুবাদে এবং জাপানের কারিকুলামে নিজ সন্তানদের সর্বোচ্চ বিদ্যাপীঠ পর্যন্ত শিক্ষাপর্ব শেষ করানোর কারনে জাপানের শিক্ষা কারিকুলাম কিছুটা জানা আছে বৈ কি !

বিশ্বের অন্যতম আধুনিক শিক্ষা ব্যবস্থা হচ্ছে জাপানের শিক্ষা ব্যবস্থা। প্রতিবছর অসংখ্য মানুষ পৃথিবীর বিভিন্ন দেশ থেকে জাপানে আসে শুধু জাপানের শিক্ষা পদ্ধতি দেখার জন্য।

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর ১৯৪৭ সালে জাপানে শিক্ষার জন্য আইন পাশ করে। সেই আইনের জন্য বর্তমানের জাপানের শিক্ষা ব্যবস্থায়ও এই আইনের প্রভাব রয়েছে।

জাপানে প্রাথমিক এবং নিম্ন মাধ্যমিক স্তরের শিক্ষা বাধ্যতামূলক। জাপানে নিম্ন মাধ্যমিক শিক্ষার জন্য সরকারি বিদ্যালয় জনপ্রিয়।

জাপানের শিক্ষাব্যবস্থা ৫ ভাগে বিভক্ত। কিন্ডারগার্টেন স্কুলে ৩-৫ বছর, প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ৬-১১ বছর, জুনিয়র হাইস্কুল/মিডল স্কুলে ১২-১৪ বছর এবং সিনিয়র হাইস্কুলে ১৫-১৭ বছরের ছেলে-মেয়েদের শিক্ষা দেয়া হয়। আর বিশ্ববিদ্যালয় অথবা ভোকেশনাল কলেজ ২-৪ বছর মেয়াদি হয়।

জাপানের প্রাথমিক বিদ্যালয় আর জুনিয়র হাইস্কুল হচ্ছে বাধ্যতামূলক শিক্ষার পর্যায়। প্রাথমিক স্কুল ৬ (৬থেকে ১২) বছর আর জুনিয়র হাই স্কুল ৩ (৯ থেকে ১৫) বছর। ৬ বছর হলে শিশুরা প্রাথমিক স্কুলে যেতে পারে। সরকারি এবং বেসরকারি দুই ধরনের প্রাথমিক স্কুল রয়েছে। দুই ধারাই বেশ জনপ্রিয়।

একজন শিক্ষার্থীর তার শিক্ষা জীবন শেষ করার জন্য সর্বাপেক্ষা অতীব জরুরী প্রয়োজন হচ্ছে নিশ্চয়তা (শিক্ষা উপকরন প্রাপ্তির নিশ্চয়তা, মাসিক বেতন এবং খাদ্য বা আহার প্রাপ্তির নিশ্চয়তা)।

জাপানের সাথে তুলনা করে যারা বাংলাদেশী শিক্ষা ব্যবস্থা গড়ার পক্ষপাতি তাদের কাছে জানতে চাই, বাংলাদেশে বাধ্যতামূলক প্রাথমিক শিক্ষা ব্যবস্থায় কি উপরোল্লেখিত নিশ্চয়তাগুলো নিশ্চিত করতে পেরেছেন ?

প্রথমেই আসি জাপানের কথায়। জাপানে শিক্ষা ব্যবস্থায় উপরোল্লিখিত নিশ্চয়তাগুলি নিশ্চিত । যে পরিবারগুলো আর্থিকভাবে অসচ্ছল স্থানীয় প্রশাসন (সরকার) তাদের সহযোগিতা করে থাকে।

‘জীবনযাপন সহযোগিতা’ নামে ৯ বছরের (প্রাথমিক শিক্ষা ৬ বছর+জুনিয়র হাই স্কুল ৩ বছর) শিক্ষা জীবন তো বটেই ১৮ বছর বয়স পর্যন্ত জীবনধারণে যাবতীয় (যদিও পাঠ্যবই সম্পূর্ণ বিনামুল্যে সরবরাহকৃত এবং অবৈতনিক) সহায়তা দেয়া হয় প্রশাসন থেকে । এই সহায়তার মধ্যে অন্ন, বস্ত্র, বাসস্থান, স্বাস্থ্য এবং শিক্ষা অর্থাৎ জীবন ধারনের অন্যতম পাঁচটি মৌলিক চাহিদার সবগুলির যোগানের নিশ্চয়তা রয়েছে।

বাংলাদেশে কি সম্ভব? বাস্তবতার প্রেক্ষিতেই সম্ভব নয়।

তা নিরসনে দৃশ্যমান কোন উদ্যোগ দেখা যাচ্ছে না । শিক্ষা উপকরণের অপ্রতুলতা, ভগ্ন স্বাস্থ্য, নিরাপদ আশ্রয় বিহীন অর্ধাহার, অনাহারে থেকে যে শিক্ষায় আগ্রহ থাকেনা তথাকথিত নীতিনির্ধারকরা কি মাথায় রেখে শিক্ষা কারিকুলাম প্রস্তুত করেছেন ?

নতুন শিক্ষাক্রমে পরীক্ষার চেয়ে ব্যবহারিকের প্রতি বেশি গুরুত্ব দেয়ায় গ্রুপ ডিসকাশন, এসাইনম্যান্ট কম্পিউটার কিংবা মোবাইল ফোনের প্রয়োজন হয়। এখন প্রশ্ন হচ্ছে বাংলাদেশী সব পরিবারেরই কি সেই সক্ষমতা রয়েছে ? বিশেষ করে গ্রামের স্বল্প আয়ের পরিবারগুলোতে । যেখানে তিনবেলা খাদ্য’র যোগান দিতেই হিমশিম খেতে হয় । তারচেয়েও বড় প্রশ্ন কয়টা পরিবার নিয়মিত তিন বেলা খাবারের যোগান দিতে পারে ?

সেখানে স্মার্টফোন/টাচফোন কেনা একটি পরিবারের জন্য উটকো ঝামেলা ছাড়া আর কিছুই নয়। নীতি নির্ধারকদের দায়িত্ব হচ্ছে শিক্ষার পরিবেশ তৈরি করা , উটকো ঝামেলায় ফেলা নয় ।

এছাড়া রক্ষনশীল আমাদের সমাজে টিনএজার একজন শিক্ষার্থীর হাতে যখন স্মার্টফোন/টাচফোন থাকবে ( গ্রুপ ডিসকাশন, এসাইনম্যান্ট-এর নামে) তখন সে যে মিসইউজ (অশ্লীল বাক্য না হয় না ব্যবহার করি)করবে না তার নিশ্চয়তা কে দিবে ?

“পেটে খেলে পিঠে সয়” প্রবাদটির মতো আগে ‘পরিবেশ গড়ে পরে কারিকুলাম’ চাপিয়ে দিলেই শিক্ষার্থী এবং অভিভাবকদের জন্য্য কল্যাণ হবে।

বাস্তব প্রতিবন্ধকতা দূর না করে কারিকুলাম যতোই পরিবর্তন আনা হউক না কেনো এবং ঢাকঢোল পিটিয়ে প্রচার করা হউক না কেন, কাঙ্ক্ষিত ফল আসবে না।

কথায় কথায় যারা বাংলাদেশী শিক্ষা কারিকুলাম জাপানের কারিকুলাম এর সাথে তুলনা করেন , তাদের কাছে প্রশ্ন রাখি, ১৯৪৭ সালের পর চালু করা জাপানি শিক্ষা কারিকুলাম ৭৬ বছরে কতোবার পরিবর্তন আনা হয়েছে ? পক্ষান্তরে ১৯৭২ সালে জন্ম নেয়া বাংলাদেশের শিক্ষা কারিকুলাম ৫২ বছরে এ পর্যন্ত কতোবার পরিবর্তন আনা হয়েছে ?

rahmanmoni@gmail.com

Leave a Reply