নীরবে ২০ কেন্দ্রের নিয়ন্ত্রণ ব্যালট কেড়ে নিয়ে সিল

কাজী সাব্বির আহমেদ দীপু: হৈহুল্লোড় করে দখলবাজি নয়, নীরবে কেন্দ্রের নিয়ন্ত্রণ নিয়ে ভোটারের কাছ থেকে চেয়ারম্যান পদের ব্যালটই শুধু কেড়ে নেওয়া হয়। এর পর সেই ব্যালটে ‘সিল মারো ভাই সিল মারো, কাপ পিরিচ প্রতীকে সিল মারো’।

মুন্সীগঞ্জের গজারিয়ার উপজেলা নির্বাচনে অন্তত ২০ কেন্দ্রে এমন সিল মারার ভোট হয়েছে। পাশাপাশি উপজেলার ৬০ কেন্দ্রে জাল ভোটের মচ্ছব চলেছে। সকাল ৮টা থেকে ভোট শুরুর পর বিকেল ৪টা পর্যন্ত কেন্দ্রগুলোতে ভোটার উপস্থিতি ছিল একবারেই কম। তবু প্রতি কেন্দ্রেই গড়ে ৩৫ থেকে ৪০ শতাংশ ভোট পড়েছে বলে দাবি করা হয়েছে। তবে এ জাল ভোটকে প্রার্থীর কর্মী-সমর্থকরা ‘নীরব ভোট’ বলছেন।

এদিকে জাল ভোট, কেন্দ্র নিয়ন্ত্রণ নেওয়ার চেষ্টা ও তা প্রতিহত করা নিয়ে কেন্দ্রের বাইরে ইসমানিরচর গ্রামে দুই চেয়ারম্যান প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ ও গোলাগুলিতে ছয়জন আহত হয়েছেন। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশ এ সময় ৬ রাউন্ড রাবার বুলেট ছোড়ে। হোসেন্দী বিদ্যালয় কেন্দ্রে ব্যালট পেপারে সিল মারার চেষ্টায় বাধা দেওয়া হয়েছে। এ নিয়ে দু’পক্ষের মধ্যে উত্তেজনা দেখা দিলে পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

গজারিয়ার একাধিক কেন্দ্রে দেখা গেছে, ভোট শুরুর পর উপজেলার ৬০ কেন্দ্র ছিল ভোটারশূন্য। প্রথম ৪০ মিনিটে হোসেন্দী ইউনিয়নের জামালদি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে মাত্র পাঁচটি ভোট পড়ে বলে নিশ্চিত করেন প্রিসাইডিং অফিসার। এ কেন্দ্রে ভোটার ১ হাজার ৭১৬ জন। মহিলা কেন্দ্রের সহকারী প্রিসাইডিং কর্মকর্তা মাহমুদা আক্তার জানান, সকাল ৮টা ২০ মিনিট পর্যন্ত মহিলা বুথে কোনো ভোট পড়েনি। বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে আওয়ামী লীগের দুই প্রার্থীর কর্মী-সমর্থকরা কেন্দ্র নিয়ন্ত্রণে নিয়ে নিজ নিজ প্রার্থীর প্রতীকে সিল মারতে থাকে। পাশাপাশি জাল ভোটের কার্যক্রমেও তারা নেমে পড়ে।

বেলা ১১টার দিকে ইমামপুর ইউনিয়নের বাঘাইকান্দি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে গিয়ে দেখা যায়, বাইরে ভোটারের সারি। ভেতরে চেয়ারম্যান প্রার্থী মনসুর আহমেদ জিন্নাহর কাপ পিরিচ প্রতীকের লোকজন দাঁড়িয়ে আছে। তারা ভোটারদের কাছ থেকে চেয়ারম্যান প্রার্থীর ব্যালট নিয়ে কাপ পিরিচ প্রতীকে সিল মেরে বাক্সে রাখছে, আর ভোটার ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থীদের ব্যালট নিয়ে গোপন বুথে ঢুকে পছন্দের প্রার্থীকে ভোট দিচ্ছে।

অভিন্ন ছবি দেখা গেছে গুয়াগাছিয়া ইউনিয়নের নতুন চরচাষী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে। এখানে প্রকাশ্যে সিল মারা হয়েছে কাপ পিরিচ প্রতীকে। চেয়ারম্যান প্রার্থী জিন্নাহর স্ত্রী অ্যানি এ কাজে নেতৃত্ব দেন। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, প্রিসাইডিং অফিসার, পোলিং অফিসার, পুলিশসহ দায়িত্বে থাকা পুরো টিমকে সেটিংয়ের মাধ্যমে কেন্দ্র নিয়ন্ত্রণ নিয়ে সিল মারা হয়েছে। এর আগে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীর এজেন্টকে বের করে দেওয়া হয়েছে। এ কেন্দ্রের প্রিসাইডিং অফিসার মোহাম্মদ শাহিন বলেন, কাপ পিরিচ প্রতীকের প্রার্থীর লোকজন ছাড়া এ কেন্দ্রে আনারস প্রতীকের এজেন্ট ছিলেন না। এ সময় প্রকাশ্যে ব্যালট পেপারে সিল মারার বিষয়টি জানতে চাইলে তিনি সদুত্তর দিতে পারেনি।

একাধিক কেন্দ্রে আনারস প্রতীকের চেয়ারম্যান প্রার্থী আমিরুল ইসলামের কোনো এজেন্ট পাওয়া যায়নি। কিছু কেন্দ্রে হামলার কবলে পড়ার ভয়ে এজেন্টের দায়িত্ব পালনে সাহস পায়নি।

চেয়ারম্যান প্রার্থী আমিরুল ইসলাম বলেন, ইমামপুর ও গুয়াগাছিয়া ইউনিয়নের ১৮ কেন্দ্রে প্রভাব বিস্তার করে কাপ পিরিচ প্রতীকে সিল মেরে ভোট ডাকাতি করেছে। একাধিক কেন্দ্র থেকে আমার এজেন্টকে প্রাণনাশের ভয় দেখিয়ে তাড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। চেয়ারম্যান প্রার্থী মনসুর আহমেদ জিন্নাহ বলেন, আনারস প্রতীকের প্রার্থীর সমর্থকরা একাধিক কেন্দ্রে প্রকাশ্যে সিল মেরেছে। এমনকি তারা কেন্দ্র দখলেরও চেষ্টা চালিয়েছে।

গজারিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কোহিনূর আক্তার বলেন, বিচ্ছিন্ন দু-একটি ঘটনা ছাড়া নির্বাচন সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ হয়েছে। গজারিয়ায় চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন চারজন। এর মধ্যে আওয়ামী লীগের দুই নেতার মধ্যে ভোটের লড়াই হয়েছে। আর ভাইস চেয়ারম্যান পদে চারজন এবং মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদেও প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন চারজন।

সমকাল

Leave a Reply