টংগিবাড়ী উপজেলা চেয়ারম্যান ও ছোট ভাইয়ের জামিন

মুন্সীগঞ্জের সাবেক যুবলীগ নেতা হত্যা মামলায় জেলার টংগিবাড়ী উপজেলার নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান আরিফুল ইসলাম হালদার ও তার ছোট ভাই উপজেলার কামারখাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান লুৎফর রহমান হালদার খুকুর অন্তবর্তীকালীন জামিন মঞ্জুর করে আদেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট।

শপথ পাঠ অনুষ্ঠানে যোগ দিতে হবে মর্মে উপজেলা চেয়ারম্যানের জামিন মঞ্জুর করা হয়েছে।

একই সঙ্গে অপর দুই আসামিকে কেন জামিন দেওয়া হবে না তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেছেন আদালত। তারা হলেন, আহসান কবীর হালদার ওরফে একেএম আহসানুল কবীর ও নজরুল ইসলাম হালদার ওরফে নাজির হালদার।

আদেশের বিষয়টি জাগো নিউজকে নিশ্চিত করেছেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল একেএম আমিন উদ্দিন মানিক।

এ সংক্রান্ত বিষয়ে দায়ের করা আবেদনের শুনানি নিয়ে বৃহস্পতিবার (১৩ জুন) হাইকোর্টের বিচারপতি মো. রহুল কুদ্দুস ও মো. আলী রেজার সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

আদালতে জামিন আবেদনের পক্ষে শুনানি করেন সাবেক রেলমন্ত্রী অ্যাডভোকেট মো. নুরুল ইসলাম সুজন এমপি, সাবকে খাদ্যমন্ত্রী অ্যাডভোকেট মো. কামরুল ইসলাম ও সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সম্পাদক অ্যাডভোকেট শাহ মুঞ্জুরুল হক। অন্যদিকে রাষ্ট্রপক্ষের শুনানিতে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল এ কে এম আমিন উদ্দিন মানিক।

এর আগে গত ৫ জুন মুন্সীগঞ্জ জেলা জজ আদালত উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক কবির হালদারসহ ৯ আসামির জামিন আবেদন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছিলেন। উচ্চ আদালতের দেওয়া জামিনের মেয়াদ শেষে মুন্সীগঞ্জ জেলা ও দায়রা জজ আদালতে হাজির হয়ে আইনজীবীর মাধ্যমে জামিন আবেদন করলে শুনানি শেষে আদালত তাদের কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

পূর্ববিরোধের জের ধরে গত গত ৮ এপ্রিল টংগিবাড়ী উপজেলার দিঘীরপাড় পুলিশ ফাঁড়ির সামনে দুপক্ষের সংঘর্ষে ইউনিয়ন যুবলীগের সাবেক সভাপতি সোহরাব খান (৬৫) নিহত হন। পরে ১৫ এপ্রিল নিহতের বড় ভাই আব্দুল মান্নান খান বাদী হয়ে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী আরিফুল ইসলাম হালদারসহ ১২ জনকে আসামি করে আমলি আদালতে অভিযোগ দায়ের করেন। আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে বিচারক মামলাটি সংশ্লিষ্ট থানায় এজাহার হিসেবে গ্রহণের জন্য নির্দেশ দেন।

এফএইচ/এমএইচআর/জিকেএস

Leave a Reply