শ্রীনগরে রাতের আঁধারে সড়ক গায়েব

মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগরে রাতের আঁধারে গায়েব হয়ে গেছে প্রায় চার বছর আগে নির্মাণ করা দুই কিলোমিটার সড়কের মাঝের অংশ। গত বুধবার গভীর রাতে সড়কটির মাঝের প্রায় দেড় শ ফুট অংশ ভেকু দিয়ে কেটে ফেলা হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে স্থানীয় একটি পরিবারের বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় স্থানীয়দের মনে তীব্র ক্ষোভ বিরাজ করছে।

স্থানীয় সূত্র জানায়, প্রায় চার বছর আগে উপজেলার বীরতারা সাগির মার্কেট থেকে আটপাড়া কোল্ড স্টোরেজ পর্যন্ত প্রায় ২.২ কিলোমিটার সড়কটি নির্মাণ করা হয় উপজেলা স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অফিসের অর্থায়নে।

বুধবার গভীর রাতে সড়কটির মাঝের প্রায় দেড় শ ফুট অংশ ভেকু দিয়ে কেটে ফেলা হয়।
সূত্র জানায়, কেটে ফেলা অংশের ২০ শতক জমির মালিক ছিল উপজেলা বিএনপির সভাপতি শহিদুল ইসলামের পরিবার। ছয় মাস আগে হল্যান্ডপ্রবাসী মো. জসিম জমিটি কিনে নেন। এর পর সেখান থেকে রাস্তাটি সরিয়ে দেওয়ার পাঁয়তারা শুরু হয়।

স্থানীয়দের অভিযোগ, উপজেলার সালেপুর গ্রামের (তিনগাঁওসংলগ্ন) শামু ব্যাপারীর ছেলে ইয়ামিন ও তাঁর ভাইয়েরা রাতের আঁধারে রাস্তাটি সরিয়ে দেওয়ার উদ্দেশ্যে কেটে ফেলেন। রাতের আঁধারে কেউ যাতে বাধা দিতে না পারে সে জন্য ভারাটে বাহিনী প্রস্তুত রাখে অভিযুক্তরা।

স্থানীয়রা জানায়, প্রায় ১২ ফুট প্রস্ত সড়কটি ব্যবহার করে এই অঞ্চলের আলু চাষিরা তাঁদের সার-বীজ আনা নেওয়া ও হিমাগারে আলু সংরক্ষণের কাজে ব্যবহার করে থাকেন।

আটপাড়া গ্রামের নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ষাটোর্ধ্ব এক অবসরপ্রাপ্ত চাকরিজীবী বলেন, ‘এভাবে এলজিইডির রাস্তা রাতের আঁধারে কেটে ফেলার ঘটনা শ্রীনগরে বিরল।

কোন অদৃশ্য শক্তিতে তাঁরা এটা করছেন তা বোধগম্য নয়।’
বৃহস্পতিবার দুপুরে ঘটনাস্থল পরিদর্শনে আসেন শ্রীনগর উপজেলা প্রকৌশলী মো. মহিফুল ইসলাম। তিনি ঘটনার সত্যতা পেয়ে শামু ব্যাপারীর ছেলে ইয়ামিনের সঙ্গে ফোনে কথা বলার চেষ্টা করেন। তবে ইয়ামিন কথা না বলেই লাইন কেটে দেন বলে জানান উপজেলা প্রকৌশলী।

শ্রীনগর উপজেলা প্রকৌশলী মো. মহিফুল ইসলাম বলেন, আইডিভুক্ত সড়ক এভাবে কেটে ফেলা অন্যায়।

এই বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে। শ্রীনগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোশারেফ হোসাইন বলেন, চলাচলের রাস্তা কোনোভাবেই কাটা যাবে না। যাঁরা এটা করেছেন ঠিক করেননি। খোঁজ নিয়ে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

কালের কন্ঠ

Leave a Reply