শ্রীনগরে অবৈধভাবে মাছের ঘের স্থাপনের প্রতিবাদ করায় হামলার অভিযোগ

শ্রীনগর উপজেলার কুকুটিয়া-সুরুদীয়া চকে অবৈধভাবে মাছের ঘের দিতে নিষেধ করায় হামলার অভিযোগ উঠেছে। মঙ্গলবার (২৫ জুন) সন্ধ্যার দিকে কুকুটিয়া গ্রামে এই ঘটনা ঘটে।

অভিযোগ উঠেছে সুরুদীয়া গ্রামের আসাদুল, মো. মিজান, সিরাজ শেখ, হৃদয়, কাজলপুরের শামীম, পুর্ব-মুন্সীয়ার রাজিবসহ একটি ঘের সিন্ডিকেট চক্র বর্ষা মৌসুমে কুকুটিয়া-সুরুদীয়ার চকে অবৈধভাবে মাছের ঘের দিতে গেলে কুকুটিয়া গ্রামের নুর জামানসহ স্থানীয়রা বাঁধা প্রদান করে। এতে ঘের সিন্ডিকেট চক্রের সদস্যরা ক্ষিপ্ত হয়ে নুর জামানের বাড়িতে হামলা চালায়।

অপরদিকে, বুধবার সকালের দিকে কুকুটিয়া-সুরুদীয়া সেতুর সামনে ঘের দেয়ার প্রতিবাদে প্রায় অর্ধশতাধিক নারী-পুরুষকে সেতুর ওপরে অবস্থান করতে দেখা গেছে।

জানা গেছে, গত ১১ জুন সুরুদীয়া সেতুর সামনে যাতে অবৈধভাবে কেউ মাছের ঘের দিতে না পারে এলাকাবাসীর পক্ষে নুর জামান একটি অভিযোগপত্র দাখিল করেন স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানের কাছে।

স্থানীয়রা জানায়, এলাকার একটি বিশেষ প্রভাবশালী মহলের কারসাজিতে গত কয়েক বছর ধরে উন্মুক্ত জলাশয়ে মাছ চাষের নামে নিষিদ্ধ ঘের বাণিজ্য করে আসছে। এনিয়ে স্থানীয়দের মাঝে চাপা ক্ষোভ বিরাজ করছে।

ভুক্তভোগী নুর জামান জানান, ঘের চক্রের সদস্যরা ক্ষিপ্ত হয়ে বাড়িতে এসে আমার ভাই, বোন, মা-বাবাকে মারধর করেন ও গালি গালাজ করে। আমাকে প্রাণে মারার হুমকি দিয়ে যায়। উপায় না পেয়ে শ্রীনগর থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করি। অভিযুক্ত মো. মিজানের কাছে এ বিষয়ে জানতে চাইলে সাংবাদিক পরিচয় পেয়ে ফোনের লাইন কেটে দেন।

সিরাজ শেখের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, নিজের জায়গায় ঘের দিচ্ছি। ঘের সংক্রান্ত এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ঘের স্থাপনের ছাড়পত্র আছে।

ঘের সিন্ডিকেটের অন্যতম সদস্য স্থানীয় বিএনপি নেতা মো. আসাদুলের কাছে এ বিষয়ে জানতে একাধিকবার ফোন করা হলে তিনি ফোন রিসিভ করেনি।

স্থানীয় ইউপি সদস্য মো. তোফায়েল আহমেদ জানান, কিছুদিন আগে আমাদের চেয়ারম্যান চক আটকিয়ে ঘের দিতে নিষেধ করেছেন। এক প্রশ্নে জবাবে তিনি বলেন, এই ঘেরের সাথে আমার ভাই কিভাবে জড়িত হলো আমি বুঝতে পারছি না।

সিনিয়র উপজেলা মৎস্য অফিসার সমীর কুমার বসাক জানান, কুকুটিয়া-সুরুদীয়া মাছের ঘের স্থাপনের বিষয়ে কোনো প্রকার ছাড়পত্র দেয়া হয়নি। উন্মুক্ত খাল-বিলে অবৈধভাবে মাছের ঘের দেয়া যাবে না। কেউ অবৈধভাবে ঘের স্থাপন করে থাকলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে। কুকুটিয়া ইউপি চেয়ারম্যান বাবুল হোসেন বাবু জানান, জনগণের স্বার্থে কোন প্রকার ঘের বাণিজ্য চলবে না। একটি কুচক্রিমহল আর্থিক সুবিধা নিয়ে সেতুর মুখ বন্ধ করে চকে অবৈধভাবে ঘের স্থাপন করতে সহযোগিতা করছে। এখানে ঘের না করার জন্য আমি সবার কাছে নোটিশ পাঠিয়েছি।

অভিযোগের তদন্তকারী কর্মকর্তা শ্রীনগর থানার এসআই আব্দুল আলীম জানান, ঘটনাস্থলে এসেছি। সামান্য হাতাহাতির ঘটনা ঘটেছে। উভয় পক্ষই পাল্টাপাল্টি অভিযোগ দায়ের করেছে। তদন্ত চলমান চলছে।

নিউজজি

Leave a Reply