আজও ঠাঁয় দাঁড়িয়ে আছে কালের সাক্ষী বিউটি বোর্ডিং! (ভিডিও)

দুর থেকে দেখে আপনি আকৃষ্ট না হতেই পারেন। পুরনো জরাজীর্ণ অবস্থা। বলছি পুরান ঢাকার ১ নং শ্রীশ দাস লেনের বিউটি বোর্ডিং-এর কথা। এর প্রতি ইটের পরতে পরতে মিশে আছে ইতিহাস-ঐতিহ্য। বিস্তারিত… »

খনা ও খনার বচন: লোকসংস্কৃতির আকর্ষণীয় উপাদান

কখনও কখনও আধুনিক যুগে এসেও প্রাচীন সময়ের কিছু মানুষকে বর্তমানের চাইতেও বেশি আধুনিক বলে মনে হয়, তেমনই একজন- খনা। কী খুব পরিচিত লাগছে তো নামটা? প্রাচীন ভারতের এই নারীর নাম ভারতীয় উপমহাদেশের কারোরই অজানা নয়। বিস্তারিত… »

বইমেলায় মলাটবন্দি ‘গজারিয়ার গণহত্যা’

রাজধানীর পাশে মেঘনা পাড়ের উল্লেখযোগ্য জনপদ গজারিয়া। মহান মুক্তিযুদ্ধে ঢাকার পাশের এবং ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের উল্লেখযোগ্য পয়েন্ট গজারিয়ায় মুক্তিবাহিনী ও পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর কাছে গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠেছিলো। বিস্তারিত… »

পায়ে হেঁটে কলকাতা থেকে ঢাকা : চতুর্দশ পর্ব

আজ আমার পদযাত্রার শেষদিন। আজকের পথটাও বেশ কম। তাই একটু বেলা করেই হাঁটা শুরু করেছি। গতকালও মুন্সীগঞ্জ জেলাতেই হেঁটেছি। এখনো এ জেলাতেই আছি। আজকের অনেকটা পথও হাঁটবো এ জেলাতেই। মুন্সীগঞ্জ জেলা প্রাচীন বাংলার গৌরবময় বিস্তারিত… »

মুন্সীগঞ্জে দেশের প্রথম পতাকা ভাস্কর্যের কাজ শুরু

মোজাম্মেল হোসেন সজল: মুন্সীগঞ্জে দেশের প্রথম পতাকা ভাস্কর্য “পতাকা ’৭১” এর কাজ শুরু হয়েছে। বুধবার দুপুরে শহরের লিচুতলায় এর আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন জেলা প্রশাসক সায়লা ফারজানা। স্থান নির্ধারণ করে ভাস্কর্যটি স্থান লে-আউট করা হয়েছে। সেই অনুযায়ী বেইজমেন্ট কাজ চলছে। বিস্তারিত… »

বিক্রমপুর অঞ্চলে প্রত্নতাত্ত্বিক খননে আবিস্কার হলো দেশের সর্ববৃহৎ পিরামিড আকৃতির স্তুুপ

জসীম উদ্দীন দেওয়ান : এবার মুন্সীগঞ্জের নাটেশ্বরে প্রত্নতাত্ত্বিক খননে আবিস্কৃত হলো বাংলাদেশের সর্ববৃহৎ পিরামিড আকৃতির বিশাল নান্দনিক স্তুুপ। এর আগে ২০১৩ সালে অগ্রসর বিক্রমপুর ফাউন্ডেশন এর উদ্যোগে এই অঞ্চলে প্রত্নতাত্ত্বিক উৎখনন কাজের সূচনা করলে বিস্তারিত… »

‘৭ মার্চের ভাষণে অনুপ্রাণিত হয়ে যুদ্ধে অংশগ্রহণ করি’

‘খালেদ মোশাররফের অধীনে ২ নং সেক্টরে যুদ্ধ করি। খালেদ মোশাররফ শেষের দিকে আহত হন। ওআইসি ছিলেন হায়দার সাহেব। তিনিই যুদ্ধ পরিচালনা করতেন। দেশকে স্বাধীন করার জন্য বঙ্গবন্ধুর ডাকে, ৭ মার্চের ভাষণে অনুপ্রাণিত হয়ে যুদ্ধে অংশগ্রহণ করি। বিস্তারিত… »

১১ ডিসেম্বর ১৯৭১ সালে পাক হানাদার মুক্ত হয় মুন্সিগঞ্জ

গোলাম আশরাফ খান উজ্জ্বল: ১৯৭১ সালের ২৬ শে মার্চ থেকেই মুন্সিগঞ্জের মুক্তিযুদ্ধারা পাক বাহিনীর বিরুদ্ধে প্রবল প্রতিরোধ করতে থাকে। কখনো মুন্সিরহাট, কখনো কেওয়ার, আবার টঙ্গীবাড়ি, আব্দুল্লাহাপুর, লৌহজং, শ্রীনগর, গজারিয়া ও সিরাজদিখান প্রভৃতি স্থানে বিস্তারিত… »

সম্মুখযুদ্ধে পরাস্ত পাকবাহিনী, ১১ ডিসেম্বর মুক্ত হয় মুন্সীগঞ্জ

মোজাম্মেল হোসেন সজল: ১৯৭১-এর রক্তঝরা মাস ডিসেম্বর। রক্ষক্ষয়ী মুক্তিযুদ্ধ আর বিভীষিকাময় অবরুদ্ধ জীবনের পর ১৯৭১ সালের ১১ই ডিসেম্বর হানাদারমুক্ত হয় মুন্সীগঞ্জ। জেলার বিভিন্নস্থানে সম্মুখযুদ্ধ আর মুক্তিযোদ্ধাদের একের পর এক বিস্তারিত… »