অনন্ত উৎসব – জসীম উদ্দীন দেওয়ান

অনন্ত উৎসব রাতে,
সে মাতে মোর সাথে।
চান্দের পহর গতরে মেখে।
তারার আলোয় দেখে দেখে। বিস্তারিত… »

সুহৃদ খোঁজে – জসীম উদ্দীন দেওয়ান

হিয়া দিয়া রাইখো তারে, ডাইকো না তব বারে বারে, রাইখো তবে নজরে।
কোথা থাকে? কোন বা বাঁকে? কেমনে বসছে পাঁজরে।
সে যে সুখের লগন, স্বপ্নের গগন, আপন করে চায়।
দু:খের সনে, বিরান বনে মুখ তাঁর ফিরায়। বিস্তারিত… »

নীতির ভীতি – জসীম উদ্দীন দেওয়ান

রাজনীতিতে কিসের ধারা দিয়া?
বি চৌধুরী, কামাল, কাদের সিদ্দিকীরে নিয়া।
কেন এতো ঝড় ? আলোচনার পর, কাঁপে বড় দলীয় দুটো ঘর।
কে কার সাথে? ডান-বাম হাতে.বামও ডানে মাতে। বিস্তারিত… »

বাংলার আমি – জসীম উদ্দীন দেওয়ান

ইচ্ছে গুলো বারে বারে,
পাখির ডানায় ঘুরে ফিরে,
নীল আকাশ পথ ধরে।
সিগ্ধ বায়ূ গায়ে মেখে,
সুখের স্নান করে। বিস্তারিত… »

মানুষ – জসীম উদ্দীন দেওয়ান

শান্ত মানুষটা দুষ্ট চক্রের ঘূর্নিবাকে, ক্লান্ত হয়ে এঁকে বেঁকে, শান্তির হারায় পথ।
জীবন সাজাতে, সুখ বাজনা বাজাতে বাঁধ সাধে দুষ্ট মানুষের অভিমত।
প্রজন্ম থেকে প্রজন্ম, সমাজ থেকে রাষ্ট্র,
ওদের আলামত ছিল স্পষ্ট। বিস্তারিত… »

কবিতা – জসীম উদ্দীন দেওয়ান

একটি কবিতার গাঢ় তীব্র গভীরত্বে,
নিশি জেগে মানে পাইনি বলে মন দু:খ চিত্তে,
নীল আকাশের বিশালত্বে তাকিয়ে রই।
গভীর সাগরের জলের তরঙ্গের ছোঁয়া লই। বিস্তারিত… »

মানুষ ও দেশ – জসীম উদ্দীন দেওয়ান

আমি হাঁটতে শিখেছি সেই কবে। বলতে শিখেছি বহু আগে ভাগে।
দেখেছি মায়ের নি:স্বার্থ আদর, আর সন্তানের প্রতি বাবার বুক থেকে মেলা ধরা দায়িত্বরত চাদর।
দেখেছি সমাজের রন্ধে রন্ধে নির্যাতন, নীপিড়নের মহা গ্রাস। বিস্তারিত… »

অপনা – জসীম উদ্দীন দেওয়ান

দক্ষিণা দ্বারে বারে বারে,
ফুর ফুরে চুলে দেখেছিলুম তারে।
জানান দিতে মোরে, অজানারে।
আপন বাহুতে লুকাতে অপনারে। বিস্তারিত… »

জননী ও সাঁঝ – জসীম উদ্দীন দেওয়ান

বিশ্ব ধরায় তোমায় সড়ায়, এই ভূবনে থাকবেনা।
হাতে গোনা দিন ফুরালে, কেউ যে মনে রাখবেনা।
বৃদ্ধা হয়ে আছো বেঁচে, মৃত সারির তরে।
নেপথ্যে সব ঝঞ্চা ভেবে, ঠাঁই দিতে কার দায় পরে ? বিস্তারিত… »