গজারিয়ায় গার্মেন্টস পল্লী স্থাপনের জন্য জমি অধিগ্রহণের উদ্যোগে ফুঁসে উঠছে কৃষকরা

মুন্সীগঞ্জের গজারিয়া উপজেলার বাউশিয়ায় তিন ফসলি জমিতে গার্মেন্টস পল্লী স্থাপনের জন্য জমি অধিগ্রহণের উদ্যোগে ফুঁসে উঠতে শুরু করেছেন কৃষকরা। উপজেলার ওই অঞ্চলের প্রায় ৫০ হাজার কৃষক তিন ফসলি জমিতে গার্মেন্টস পল্লী স্থাপন বন্ধের দাবিতে এখন একাট্টা হয়ে উঠেছেন।

অন্যদিকে পোশাক শিল্পকে ঢাকার বাইরে নেয়ার অংশ হিসেবে মুন্সীগঞ্জের গজারিয়ার বাউশিয়ায় ৪ শত একর জমির ওপর গার্মেন্টস পল্লী স্থাপনে সরকারের সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত পর্যায়ে বলে জানা গেছে। তবে এ প্রসঙ্গে মুন্সীগঞ্জের জেলা প্রশাসক মো. আজিজুল আলম জানান, ঊর্ধ্বতন পর্যায় থেকে এখনো জমি অধিগ্রহণের কোনো নির্দেশনা পাওয়া যায়নি।

কৃষকরা জানান, গার্মেন্টস পল্লী স্থাপনে তাদের আপত্তি নেই। তাদের দাবি, তিন ফসলি জমিতে গার্মেন্টস পল্লী স্থাপন না করে স্থান পরিবর্তন করে অন্য কোথাও গার্মেন্টস পল্লী স্থাপন করা হোক।

তাছাড়া, ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে বাউশিয়ায় ২ শত একর জমি অধিগ্রহণ করে এপিআই শিল্পপার্ক স্থাপনের কাজ দ্রুত গতিতে এগিয়ে চলছে। এর পাশাপাশি তিন ফসলি জমিতে গার্মেন্টস পল্লী স্থাপনে ৪ শত একর জমি অধিগ্রহণের ঘোষণায় মূলত কৃষকদের হতাশাগ্রস্ত করে তুলেছে। তাদের চোখে এখন ঘুম নেই। মুখের হাসি ম্লান হয়ে পড়েছে। কেননা, তিন ফসলি জমি থেকে তাদের উচ্ছেদ করা হলে গজারিয়া উপজেলার হাজার হাজার কৃষক পরিবার তাদের কৃষি জমি হারানোর পাশাপাশি কর্মহীন হয়ে পড়বে।

কৃষকরা আরো জানান, এ কারণে তারা গার্মেন্টস পল্লী স্থাপন বন্ধের দাবিতে নিয়মিত বৈঠক করে চলেছেন। সেখানে গার্মেন্টস পল্লী ঠেকাতে কৃষকরা এখন ঐক্যবদ্ধ। গামেন্টস পল্লী স্থাপনের নির্ধারিত স্থান পরিবর্তনের দাবিতে কৃষক নেতা মাফুজ মিয়ার সভাপতিত্বে একাধিক সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

কৃষানী জরিমন নেছা (৪৫) বলেন, আমার ১৮ শতাংশ জমিতে আলু চাষ করে গত বছর ১০ হাজার টাকা লাভ হয়েছে। আলুর পর আমন ধান পেয়েছি ১২ মণ। নিজের জমির ধানে ৮ মাস চলে। আর সেই জমিটি চলে গেলে ভিক্ষা করে চলা ছাড়া আর কোনো পথ থাকবে না।

মানবাধিকার কর্মী নাছির উদ্দিন বলেন, শিল্প কারখানা হলে এলাকা উন্নত হবে। তাই সরকারের এমন পদক্ষেপের বিরোধিতা করছি না। তবে তিন ফসলি জমিতে পোশাক পল্লী স্থাপন না করে গজারিয়ার মেঘনা নদীর পার্শ্বে বহু খাস জমি আছে। সেখানে পোশাক পল্লীসহ বিভিন্ন শিল্প কারখানা স্থাপিত করার দাবি জানাচ্ছি।

জানা গেছে, বাউশিয়ার এ বিলে প্রায় ১১শ’ থেকে ১২শ’ একর তিন ফসলি জমি রয়েছে। এখানে সরিষা, ধান, আলু, বাদাম, ভাঙ্গী, তরমুজ, কাউয়ুন, গম, তিলসহ নানা ধরনের ফসলের চাষ করা হয়।

[ad#bottom]

Leave a Reply