গজারিয়ায় আ’লীগের বিভক্তি প্রকাশ্য রূপ নিয়েছে

আসন্ন ইউপি নির্বাচনকে ঘিরে মুন্সীগঞ্জের গজারিয়া উপজেলার আওয়ামী লীগে বিভক্তি এখন প্রকাশ রূপ নিয়েছে। দু’ভাগে বিভক্ত নেতাকর্মীদের মধ্যে চাপা ক্ষোভ ও উত্তেজনা বিরাজ করছে। সম্প্রতি জেলা আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দের নির্দেশে উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতিকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেয়ার পর থেকেই নেতাকর্মীদের বিভক্তি প্রকাশ পায়।

তারা এখন একে অপরের প্রতিপক্ষ হিসেবে মুখোমুখি অবস্থানে রয়েছে।

দলীয় সূত্রে জানা গেছে, উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি কামরুল হোসেন ফিরোজ স্থানীয় এমপি এম ইদ্রিস আলীর পক্ষ নিয়ে এক গ্রুপে এবং সাধারণ সম্পাদক সোলেয়মান দেওয়ান জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোহাম্মদ মহিউদ্দিনের পক্ষ নিয়ে অপর গ্রুপের নেতৃত্ব দিচ্ছেন। ফলে তৃণমূল পর্যায়ের নেতাকর্মীদের মধ্যে ক্ষোভ ও উত্তেজনা বিরাজ করছে।

নেতাকর্মীরা জানান, জেলা আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ বর্ধিত সভায় ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনে দলের একক প্রার্থী ঠিক করার প্রক্রিয়া গ্রহণ করেছেন। অন্যদিকে স্থানীয় এমপি এম ইদ্রিস আলী জেলা ও উপজেলা আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দকে উপেক্ষা করে বিভিন্ন ইউনিয়নে সভা করে একক প্রার্থীর ঘোষণা দিচ্ছেন। এতে দলীয় নেতাকর্মীরা দু’ভাগে বিভক্ত হয়ে পড়েছে। ফলে দলীয় একক প্রার্থী ঘোষণার বিষয়টি এখন কঠিন হয়ে পড়েছে। তারা আরও জানান, জেলা ও উপজেলা আওয়ামী লীগ সমন্বয়ে দলীয় একক প্রার্থী ঠিক করা না হলে বিরোধীদলের সমর্থিত প্রার্থীরাই সুফল ভোগ করবে।

উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সোলেয়মান দেওয়ান জানান, বিভিন্ন ইউনিয়নে স্থানীয় এমপি তার পছন্দের ব্যক্তিকে দলীয় একক প্রার্থী হিসেবে নাম ঘোষণা করছেন, যা নিয়ম বহির্ভূত। এছাড়া এমপি’র ইন্ধনে উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি কামরুল হোসেন ফিরোজ দলীয় কর্মকাণ্ডে নানা প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করছেন। তবে এ অভিযোগ অস্বীকার করেছেন কামরুল হোসেন।

[ad#bottom]

Leave a Reply