কী লিখছি

রাবেয়া খাতুন
আমার গ্রামের বাড়ি বিক্রমপুরে। সেখানকার তাঁতিদের জীবন-জীবিকাকে উপজীব্য করে সেই কবে লিখেছিলাম প্রথম উপন্যাস ‘মধুমতী’। ১৯৬৫ সালে এই উপন্যাসটি প্রকাশের পর থেকে লিখে চলছি অবিরাম। জীবনের নানা বাঁকে নানান অভিজ্ঞতায় ঋদ্ধ হয়ে একজন লেখক লিখে চলেন তার দেখা না দেখার অনেক কিছু, হয়তো একেবারে জীবনের শেষ দিন পর্যন্ত। আগে যেমন লেখার প্রেরণা অনুভব করতাম, এখনও করি, ঠিক আগের মতোই।

গত মাসে চ্যানেল আইয়ের নিমন্ত্রণে শ্রীলংকায় গিয়েছিলাম রবীন্দ্রনাথের ওপর একটি অনুষ্ঠানে অংশ নিতে। আফজাল হোসেন, রেজওয়ানা চৌধুরী বন্যাসহ মোট ৭ জন ছিলাম সেই সফরে। সব মিলিয়ে ৯ দিন ছিলাম শ্রীলংকায়। আমার শ্রীলংকা ভ্রমণের অভিজ্ঞতা নিয়ে ক’দিন আগে শেষ করলাম একটি ভ্রমণ কাহিনী। একটি সাপ্তাহিক পত্রিকার ঈদ সংখ্যার জন্য মূলত এই ভ্রমণ কাহিনী লিখেছি।

বাংলাদেশ যে বছর স্বাধীনতা লাভ করে শ্রীলংকাও ঠিক একই বছর স্বাধীন হয়। ভৌগোলিক কারণে আমাদের সঙ্গে শ্রীলংকা কিছু মিল রয়েছে। তাদের রাস্তাঘাট অনেকটাই আমাদের মতো। বাংলাদেশের চেয়ে আয়তনে ছোট হলেও শ্রীলংকার শিক্ষিতের হার অনেক বেশি। এ দেশে শতকরা ৯০ ভাগ মানুষই শিক্ষিত। দেশটা ছোট হলেও অনেক সুন্দর। সমুদ্রতট, তার পাশে সারিবদ্ধ নারকেল গাছ, হরেক রকমের ফুল_ বসন্তমুখর শ্রীলংকাকে উপভোগ করেছি ভীষণভাবে। আরও একটি ব্যাপার বেশ লক্ষ করেছি, তা হলো আমাদের পার্বত্য চট্টগ্রামের ভাষার সঙ্গে ওদের ভাষার কিছু মিল রয়েছে। তাদের গানের সুরের সঙ্গে আমাদের গানেরও কিছু মিল পেয়েছি। দেশটি স্বাধীনতা লাভের পর থেকেই তামিল বিদ্রোহীদের সঙ্গে যুদ্ধ চালিয়ে এসেছে। কিন্তু সাম্প্রতিককালে তামিল বিদ্রোহের অবসানের পর শ্রীলংকা সরকার বিদেশি অতিথিদের সে দেশে ভ্রমণের ব্যাপারে উৎসাহ দিচ্ছে। ফলে আমাদের ভ্রমণটিও বেশ আনন্দময় হয়ে উঠেছে। কিন্তু ভ্রমণ কাহিনী লিখে শেষ করলেও এখনও নাম ঠিক করতে পারিনি। বরাবরই আমি নাম নিয়ে বিভ্রাটে পড়ি।

গত বইমেলায় বিভিন্ন বিষয়ের ওপর আমার ৫টি বই প্রকাশিত হয়েছিল। আগামী মেলায়ও ইচ্ছা আছে আরও কিছু বই প্রকাশ করার। এ মুহূর্তে বিভিন্ন ঈদ সংখ্যার জন্য লিখে ব্যস্ত সময় পার করছি। আমার লেখার সময় মূলত সকাল সাড়ে ১০টা থেকে দুপুর আড়াইটা। অনেক দিন থেকেই এ সময়ের মধ্যে নিয়ম করে লিখছি। বর্তমানে আমার লেখার তালিকায় আরও বেশকিছু বিষয় জমে আছে। একটি মাসিক সাহিত্য কাগজের জন্য ছোট গল্প লিখতে হবে। এ ছাড়াও মধ্যবিত্ত শ্রেণীকে মাথায় রেখে একটি উপন্যাস লেখার ইচ্ছা রয়েছে অনেক দিন থেকে। এবার হয়তো লিখেই ফেলব। পাশাপাশি ভিয়েতনাম ভ্রমণের ওপরও একটি ভ্রমণ কাহিনী লিখব। আর একটি প্রেমের উপন্যাস লেখার চিন্তা করছি। নামও ঠিক করে রেখেছি_ ‘শুধু তোমার জন্য ঐ অরণ্যে পলাশ হয়েছে লাল’।

কয়েক মাসের মধ্যে ইন্দোনেশিয়ার বালিদ্বীপ যাব। ফিরে এসে হয়তো তার ওপরও আরেকটি ভ্রমণ কাহিনী লিখব।

আপাতত এগুলোই লিখছি। সামনের দিনগুলোতে আরও অনেক কিছু লেখার ইচ্ছা আছে। জানি না কতটুকু লেখা হবে। তবুও লিখব। লেখার চেয়ে আনন্দের আর কিছু নেই আমার কাছে।

Leave a Reply