মুন্সীগঞ্জে ইউ’পি নির্বাচনে সন্ত্রসী নয় সাংবাদিক ভাড়া চলছে

মুন্সীগঞ্জের ৬টি উপজেলায় ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে প্রার্থীরা প্রতিদ্বন্দিতা করছেন। নির্বাচনে প্রতিটি ইউনিয়নেই বড় দুটি দল আওয়ামী লীগ ও বিএনপির সমর্থিত প্রার্থী রয়েছে। নির্বাচন কেন্দ্র করে জেলার সকল উপজেলার ইউনিয়ন গুলোর সর্বত্র এখন উৎসবের আমেজ বিরাজ করছে। ভোর থেকে শুরু করে গভীর রাত পর্যন্ত প্রার্থীরা নিজ নিজ নির্বাচনী এলাকায় প্রচার চালিয়ে যাচ্ছেন। নির্বাচন কেন্দ্র করে কোনো কোনো এলাকায় প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে উত্তেজনা ও লক্ষ্য করা যাচ্ছে। অন্যদিকে অনেক প্রার্থীর বিরুদ্ধে নির্বাচনী আচরণবিধি লঙ্ঘনের অভিযোগ উঠেছে। মোটরসাইকেলে শোডাউন নিষিদ্ধ হলেও অনেক প্রার্থীকে তা করতে দেখা গেছে।

জানা গেছে, দলীয় নির্বাচন না হলেও দলীয় সমর্থিত প্রার্থী থাকায় উপজেলার সব ইউনিয়নেই লড়াই হবে মূলত আওয়ামী লীগ ও বিএনপি সমর্থিত প্রার্থীদের মধ্যে। তবে দলীয় সমর্থন ছাড়াও ব্যক্তিগত ইমেজ ও নির্বাচনী প্রচারের ফলে ভোটের অঙ্কে দু’এক প্রার্থী এগিয়ে রয়েছেন। নির্বাচনকে কেন্দ্র করে এ জেলায় চলছে টাকার খেলা। প্রত্যেক ইউনিয়নের ধনাঢ্য প্রার্থীরাই নির্বাচনে এগিয়ে রয়েছেন। টাকা উড়াচ্ছেন দেদারসে। প্রার্থীরা ভোটারদের খাওয়ানো, মসজিদ, মন্দিরে ফ্যান সহ নগদ টাকা প্রদান করছেন। বিভিন্ন প্রার্থী বিভিন্ন পন্থায় ভোটার ও কর্মীদের নিজের সমর্থনে রাখছেন। ইউপি চেয়ারম্যানদের কর্মীরা জানান- নির্বাচনে এবার প্রতিটি ভোট কমপক্ষে তিন থেকে পাঁচ হাজার টাকা বিক্রি হবে। স্থানীয় ভোটদের ধারনা ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে এ জেলায় টাকার লড়াই হবে, আর এখন ধনী প্রার্থীরাই নির্বাচনী দৌড়ে এগিয়ে আছেন। টাকা উড়ালে ও প্রার্থীরা সকল অন্যায় হামলা মামলা প্রতিপক্ষের জোর জুলুম ও প্রষাসনের দূনীতির কারনে যাতে ভোটে কোন কারচুপি না হয় সে লক্ষ্যে ঝুকিঁপূর্ন ইউনিয়নের চেয়ারম্যানরা জেলা ও উপজেলা পর্যায়ের সাংবাদিকদের সহায়তা নেন। সরজমিন জেলার সিরাজদিখান ও শ্রীনগর উপজেলায় বিগত ০৪/০৬/২০১১ইং তারিখ গিয়ে দেখা যায় সকল ইউনিয়নেই ৫ থেকে ৭ জন করে সাংবাদিক রয়েছেন, তারা সার্বক্ষনিক ভোটের খবরা খবর নিচ্ছেন আর অনলাইনে নিউজ করছেন। ইউপি নির্বাচনে প্রিন্ট মিডিয়ার সাংবাদিকদের চেয়ে ইলেকট্রিক মিডিয়ার সাংবাদিকদের চাহিদা একটু বেশি। আটপাড়া, শেখের নগর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান প্রার্থীরা জানান- আগে জাল ভোট দিতে আর ব্যালট বাক্স ছিনতাই, প্রতিপক্ষের নেতা কর্মীদের উপর হামলার জন্য সন্ত্রাসী ভাড়া করে আনা হত, বর্তমানে পরিস্থিতি পাল্টেছে সুষ্ঠ নির্বাচনের জন্য সাংবাদিকদের সাহসী ভূমিকার জন্য পাল্টে গেছে নির্বাচন। তাই এখন আর সন্ত্রসী নয় সাংবাদিকদের ভাড়া করি।

জাহাঙ্গীর আলম
০১৮১৯৪৬২০৭৪

Leave a Reply