ঘাটতি পূরণ করাই হবে বড় চ্যালেঞ্জ

ড. সালেহ উদ্দিন আহমেদ
অর্থমন্ত্রী আগামী অর্থবছরের জন্য যে বাজেটটি ঘোষণা করেছেন তার আকার গতবারের চেয়ে প্রায় ৩৩ হাজার কোটি টাকা বেশি। বার্ষিক উন্নয়ন প্রকল্পও বেশ বড়। বাজেট ঘাটতি যদিও জিডিপির ৫ শতাংশের মধ্যে আছে, তবু ঘাটতি পূরণ করা একটা বড় চ্যালেঞ্জ হবে। কারণ রাজস্ব আয়ের বাইরে যে ঘাটতি থাকবে তার জন্য আমাদের বৈদেশিক সাহায্যের দিকে তাকিয়ে থাকতে হবে। একই সঙ্গে রপ্তানি আয়ের ওপর নির্ভর করতে হবে। এ ছাড়া অভ্যন্তরীণ ঋণ নিতে হবে। সে ক্ষেত্রে ক্ষতিগ্রস্ত হবে বেসরকারি খাত। এ ছাড়া ব্যাংকগুলোতে এমনিতেই তারল্য সংকট চলছে। এসব বিষয়ও বিবেচনায় রাখতে হবে।

মূল্যস্ফীতি কমানো কঠিন হবে : অর্থমন্ত্রী বাজেটে প্রবৃদ্ধির হার নির্ধারণ করেছেন ৭ শতাংশ। আর মূল্যস্ফীতির লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছেন ৭.৫ শতাংশ। পরিকল্পনা অনুযায়ী এগোলে প্রবৃদ্ধির লক্ষ্যমাত্রা অর্জন করা সম্ভব হবে। তবে মূল্যস্ফীতি অর্জন করা সম্ভব হবে না বলেই আমার ধারণা। বর্তমানে মূল্যস্ফীতির ৮ দশমিক ৫। সেটাকে ৭ দশমিক ৫-এ নামিয়ে আনা বেশ কষ্টসাধ্য বিষয় হবে। বর্তমানে দেশের অভ্যন্তরীণ উৎপাদন ও বিনিয়োগের যে অবস্থা তাতে সেটা আশা করা যায় না। এ ছাড়া বৈদেশিক মুদ্রার ওপর চাপ বাড়ছে, টাকার মূল্যমান কমে যাচ্ছে। সেখানে কিন্তু মূল্যস্ফীতির একটা চাপ আসবে। আর সে কারণে মূল্যস্ফীতির লক্ষ্যমাত্রা অর্জন করা কঠিন হবে।

বিদ্যুতের কতটা উন্নতি হবে সেটা প্রশ্নসাপেক্ষ : বাজেটে কতগুলো বিশেষ দিকে অর্থমন্ত্রী বিশেষ গুরুত্বারোপ করেছেন। সেগুলো হচ্ছে জ্বালানি, যোগাযোগ, শিক্ষা ও স্বাস্থ্য। জ্বালানির ক্ষেত্রে দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনার মাধ্যমে সমস্যার সমাধান করতে হয়। স্বল্প মেয়াদে তা সম্ভব হয় না। এ জন্য বিশাল অঙ্কের অর্থ দরকার। এ বাজেটের মধ্যে সরকার তা করতে পারবে কি না সেটা বিবেচনার বিষয়। এ ছাড়া স্বল্প মেয়াদে কুইক রেন্টাল পাওয়ার তৈরি করা যেতে পারে। এত টাকা খরচ করে বিদ্যুতের অবস্থার কতটা উন্নতি হবে, সেটাও প্রশ্নবিদ্ধ। তবে যে করেই হোক সরকারকে জ্বালানি ও বিদ্যুৎ সমস্যার সমাধান করতেই হবে।

ব্যক্তিশ্রেণীর করমুক্ত আয়সীমা বাড়ানো উচিত : বাজেটে বেশ কিছু ইতিবাচক দিক রয়েছে। তবে এগুলো আরো ইতিবাচক হতে পারত। ব্যক্তিগত করের ক্ষেত্রে আয়সীমা এক লাখ ৮৫ হাজার টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। আগের থেকে মাত্র ১৫ হাজার টাকা বাড়ানো হয়েছে। এটা নূ্যনতম দুই লাখ টাকা করা উচিত ছিল। এটা অনেকটা সাধারণ মানুষের ওপর করের বোঝা চাপানোর সহজ উপায়। যেটা মোটেও কাম্য নয়।

এ ছাড়া অর্থমন্ত্রী কয়লানীতি ও ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক হবে বলে তাঁর বক্তৃতায় জানিয়েছেন। কিন্তু এগুলোর বাস্তবায়ন সরকার কতটুকু করতে পারবে, তা নিয়ে যথেষ্ট সন্দেহ রয়েছে। কারণ এসব ক্ষেত্রে আমাদের অতীত অভিজ্ঞতা তেমন ভালো নয়। সরকারের এডিপি ও অন্যান্য প্রকল্প বাস্তবায়নের যে গতি তা হঠাৎ করে বেড়ে যাবে_এমন আশা করার কিছু নেই। সে ক্ষেত্রে এ বাজেটেও এডিপির বাস্তবায়ন গতবারের মতো হবে।
অর্থমন্ত্রী বারবার জেলা পরিষদের কথা বলছেন, আমার ধারণা এটা ইতিবাচক কিছু নিয়ে আসবে না। এর পরিবর্তে ইউনিয়ন বা উপজেলা পরিষদকে দায়িত্ব দিয়ে স্থানীয় পর্যায়ের প্রকল্পগুলোর দায়িত্ব দেওয়া যেতে পারে।

শেয়ারবাজারের মুনাফা করমুক্ত রাখা ইতিবাচক : শেয়ারবাজারে মুনাফার ক্ষেত্রে কর না রাখার সিদ্ধান্ত ইতিবাচক। সম্প্রতি শেয়ারবাজারে বড় ধরনের বিপর্যয় ঘটেছে। সে কারণে এখন এ ধরনের সিদ্ধান্তই কাম্য। কিন্তু এ ধরনের সুবিধা যুগ যুগ ধরে দেওয়া যাবে না। শেয়ারবাজারে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা আনতে হবে। নিয়ন্ত্রকদের ভূমিকা ভালো করতে হবে।

এবারের বাজেটে সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের করের আওতায় আনার যে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে, সেটা খুবই ইতিবাচক উদ্যোগ। এ ছাড়া প্রধানমন্ত্রী, মন্ত্রী ও এমপিরাও যে কর দেবেন এর ফলে তাঁদের একটি জবাবদিহিতা থাকবে।

কর্মসংস্থান বাড়ানোর উদ্যোগ নেই : এবারের বাজেটে অর্থমন্ত্রী অনেক প্রতিশ্রুতি ও প্রস্তাব দিয়েছেন। এগুলোর বাস্তবায়ন কতটা সম্ভব তা নিয়ে আমার যথেষ্ট সন্দেহ রয়েছে। পিপিপিতে গত দুই বছর বড় অঙ্কের অর্থ বরাদ্দ দিয়েও সুফল পাওয়া যাচ্ছে না। এবারের বাজেটেও দুই হাজার ৫০০ কোটি টাকা বরাদ্দ রাখা হয়েছে। কিন্তু কাজের কাজ কিছু হবে বলে মনে হয় না। বরং এ অর্থ অন্য খাতে ব্যয় করা হলেই ভালো হতো। এ ছাড়া কর্মসংস্থান বাড়ানোর বিষয়ে স্পষ্ট উদ্যোগ নেই। অর্থমন্ত্রী বলছেন, কর্মসংস্থান বাড়ানো হয়েছে। আমি কিন্তু তেমনটি দেখছি না। দেশে দিন দিন শিক্ষিত বেকারের সংখ্যা বাড়ছে। বেকারত্ব কমানো সরকারের জন্য একটা বড় চ্যালেঞ্জ। সরকার পল্লী উন্নয়নের কথা বলছে। গ্রামে শুধু সুপেয় পানি দেওয়ার মাধ্যমে উন্নয়ন করলে হবে না। গ্রামে কর্মসংস্থান বাড়াতে হবে। না হলে গ্রাম থেকে সবাই কাজের সন্ধানে শহরে এসে ভিড় করবে। সরকারের উন্নয়ন পরিকল্পনার মধ্যে বিকেন্দ্রীকরণের আগ্রহ প্রতীয়মান হচ্ছে না। বাজেটের একটা বড় দুর্বলতা হচ্ছে গ্রামপর্যায়ে কর্মসংস্থান সৃষ্টির কোনো উদ্যোগ তেমনভাবে নেই। ভৌত অবকাঠামোগুলো সরকারকে গড়ে দিতে হবে, না হলে বেসরকারি খাত বিনিয়োগ করবে না। ফলে গ্রামপর্যায়ে কর্মসংস্থানের সৃষ্টিও হবে না।

অসম বণ্টন : সরকারকে অঞ্চলভেদে উন্নয়ন করতে হবে। এ বিষয়টিতে সরকারের নজর কম। উন্নয়নের ক্ষেত্রে আঞ্চলিক অসম বণ্টন লক্ষ করছি। একইভাবে ব্যক্তিগত আয়ের অসম বণ্টনও বাংলাদেশে বিদ্যমান। যারা অপেক্ষাকৃত ছোট পুঁজির ব্যবসায়ী, তাঁরা বিনিয়োগ ও ঋণ সহযোগিতা কম পাচ্ছেন।

নতুনত্ব নেই : প্রাথমিক পর্যালোচনায় এ বাজেটকে আমার গতানুগতিক একটি বাজেটই মনে হয়েছে। বাজেটে নতুনত্ব কিছু খুঁজে পাইনি। কৃষিতে ভর্তুকি অব্যাহত আছে। কিন্তু কৃষিপণ্য বাজারজাতকরণের বিষয়ে কিছু বলা হয়নি। বাজার মনিটরিংয়ের বিষয়েও বাজেটে তেমন কিছু নেই। স্বাস্থ্যসেবায় গুরুত্ব দেওয়া হলেও সেবার বিকেন্দ্রীকরণ সম্ভব হয়নি। গ্রামপর্যায়ে স্বাস্থ্যসেবা পেঁৗছায়নি। যদিও গ্রামে কমিউনিটি হাসপাতাল গড়ে তোলা হচ্ছে, কিন্তু সেখানে চিকিৎসক থাকছেন না। স্বাস্থ্য খাতকে একটু বেশি গুরুত্ব দেওয়া উচিত। নীতি ও পরিকল্পনাগুলো ভালো, কিন্তু বাস্তবায়নের এসে সব গুলিয়ে যাচ্ছে।

জ্বালানি, খাদ্য, শিক্ষা, যোগাযোগ, স্বাস্থ্যসহ কয়েকটি খাতে বিশেষ গুরুত্ব দেওয়া উচিত ছিল বলে আমার মনে হয়েছে। এ ছাড়া সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনী, দারিদ্র্য বিমোচন, আয়ের সমবণ্টন কিভাবে করা হবে, সেগুলোর সুস্পষ্ট বিবরণ দরকার ছিল। তাহলে কী পরিমাণ কর আদায় করতে হবে সেই বিষয়টি আরো পরিষ্কারভাবে সামনে আসত। এ ক্ষেত্রে আরেকটি বড় সমস্যা হচ্ছে, এনবিআর শুধু ট্যাঙ্ আদায় করে, নন-ট্যাঙ্ নিয়ে কাজ করে না। নন-ট্যাঙ্ রেভিনিউ কিভাবে বাড়ানো যাবে, সেগুলোর দিকে নজর দিতে হবে। সরকারের পাবলিক সেক্টরে অনেক এন্টারপ্রাইজ আছে, সেগুলোর মাধ্যমে আয় বাড়াতে হবে।

বিদেশনির্ভরতা কমাতে হবে : আমাদের অর্থনীতিতে একটি বড় দুর্বলতা হচ্ছে রিসোর্স ঘাটতি। ঘাটতি পূরণ করার জন্য বৈদেশিক সাহায্য ও ঋণ নেওয়া হয়। এ ঋণ কিভাবে কমানো যায় সেদিকে নজর দিতে হবে। একই সঙ্গে অভ্যন্তরীণ উৎপাদন কিভাবে বাড়ানো যায়, সে বিষয়ে সরকারকে পদক্ষেপ নিতে হবে। ফরেন এঙ্চেঞ্জ ঘাটতি ও আমদানি-রপ্তানি ঘাটতি কমাতে হবে। একবারে সম্ভব না হলেও আস্তে আস্তে বিদেশনির্ভরতা কমাতে হবে।

বাজেট নিয়ে অনেক তর্ক-বিতর্ক হবে। পরিমার্জন, পরিবর্ধন হবে; তবে সার্বিকভাবে সুষ্ঠু আর্থিক ব্যবস্থাপনার দিকে নজর দিতে হবে। এ ছাড়া সব সরকারি সংস্থাকে সমন্বিত হয়ে কাজ করতে হবে। সমন্বয়টা খুব বেশি প্রয়োজন। সমন্বয় না থাকলে প্রকৃত উন্নয়ন সম্ভব হবে না। সমন্বয় করতে হবে মন্ত্রী, সচিব থেকে শুরু করে মাঠপর্যায়ের দায়িত্বরত ব্যক্তির সঙ্গেও। তবেই পরিকল্পনার বাস্তবায়ন সম্ভব।

লেখক : বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর

Leave a Reply