রক গানে মেয়েরা সাহস করতে পারে না

এদেশে ফিমেল ভোকালে যে দু’একজন রক ঘরাণার গানকে সত্যিকার লালন করছেন তাদের ভেতর আলিফ অন্যতম। সঙ্গীত ঘরাণার বললে কম বলা হয় তাকে বলা যায় সঙ্গীতের ভেতরেই যার বেড়ে ওঠা। নানান প্রসঙ্গে কথা বলেছেন বিনোদন প্রতিদিনের সাথে।

সাক্ষাত্কার নিয়েছেন ঊর্মি হাসান

এখনকার ব্যস্ততা নিয়ে কিছু বলুন-

সর্বশেষ ‘কল্পনাতে’ নামের একটি অ্যালবাম বেরুল গত ভ্যালেন্টাইন ডে’তে। এখন আমি আমার সলো অ্যালবামটি নিয়েই খুব ব্যস্ত। আগামী ১ জুলাই দেশটিভিতে ‘কলের গান’ অনুষ্ঠানটি করবো।

ফিমেল আর্টিস্টদের সংখ্যা বাড়লেও রক গানে খুব একটা দেখা যায় না, আপনি আছেন আর লরা আছে। এটা কি জনপ্রিয়তার অভাব না অন্য কিছু?

আসলে এটা জনপ্রিয়তার অভাব না। জনপ্রিয়তা অবশ্যই আছে এবং এটা খুব ভালোভাবেই আছে। ব্যাপারটা হচ্ছে রক গানে মেয়েরা সাহস করতে পারে না। তারা ভাবে ফোক বা আধুনিক গান করলে হয়তোবা দর্শকরা খুব সহজেই গ্রহণ করবে বা রাতারাতি তারকা হতে পারবো। আমি বলবো রক গান করতে অনেক সাহস প্রয়োজন। জনপ্রিয়তা না থাকার কোন কারণ নেই।

ইদানিং আপনাকে উপস্থাপনায় দেখা যায় না। ফোনো লাইভ কনসার্ট নামক একটি অনুষ্ঠান করতেন সেটাও ছেড়ে দিয়েছেন, এর পেছনে কারণ কি?

ফোনোলাইভ কনসার্টটি একটানা প্রায় ৩বছরের মতো করেছি। নিজে থেকেই একটু ভিন্নতা চেয়েছিলাম যার কারণে অনুষ্ঠানটি ছাড়া হয়েছে। এখনও বেশ কিছু অনুষ্ঠানের অফার রয়েছে, তবে সামনে এর মধ্য থেকে দু-একটা প্রোগ্রাম করবো।

নিজের সন্তান ও সাংসারিক আলিফ কেমন আছে?

সন্তান হওয়ার পর থেকে অন্যরকম একটা জীবন কাটাচ্ছি। সময়টাও খুব অন্যভাবে কেটে যায়। একটা আলাদা অনুভূতি, একজন সঙ্গী পেয়েছি। খুব ভালো সময় কাটছে, সন্তান নিয়ে অনুভূতি প্রকাশ করার মতো তেমন কিছু খুঁজে পাচ্ছি না। বলার ভাষা নেই।

কনসার্ট থেকে টিভি লাইভ শো বেশী হচ্ছে, এ ব্যাপারটাকে আপনি কিভাবে দেখছেন?

দুইটা দুইরকম অনুভূতি। টিভিতে আমরা একটা তারকাকে প্রায়ই দেখে থাকি কিন্তু একটা কনসার্টে একটা শিল্পীকে আমরা সবসময় পাই না। কনসার্টের মাধ্যমেই আমরা একজন শিল্পীকে সরাসরি দেখতে পাই। এটার অনুভূতি সম্পূর্ণ ভিন্ন। টিভি লাইভ শো আমরাই প্রথম শুরু করেছি একুশে টেলিভিশনে। কিন্তু এখন প্রায় সবকটি চ্যানেল প্রচার করছে বলে বিরক্তির দিকে নিয়ে যাচ্ছে। কনসার্ট কম হওয়ার পেছনে একটা বড় কারণ হচ্ছে আউটডোর কনসার্ট ভেন্যু’র একটা অভাব আছে সবসময়ই। এটার জন্য সরকারী সাপোর্ট প্রয়োজন ছিলো যা আমরা পাই নি। এমনিতে বিভিন্ন কর্পোরেট হাউজের ইনডোর প্রোগ্রামগুলো করছি।

আপনি পেন্টাগন-এ দীর্ঘদিন থাকার পর ছেড়ে দিলেন কেন?

অনেকেই ভাবে আমি বোধহয় এখনও পেন্টাগন-এ আছি। কিন্তু এটা আমি পুরোপুরিই ছেড়ে দিয়েছি। নতুন একটি ব্যান্ড দল তৈরি করেছি ‘ফোরটিন্থফ্লোর’ নামে। এই দল থেকে অনেক কিছু করার ইচ্ছে রয়েছে। ধীরে ধীরে এগুবো। পেন্টাগন ছাড়ার পেছনে সবচেয়ে বড় কারণ হলো সেখানে থেকে আমি আমার সলো অ্যালবামে সময় দিতে পারি না। এবার আশা করি নিজের অ্যালবামের কাজগুলো একটু গুছিয়ে করতে পারবো।

ঊর্মি হাসান

Leave a Reply