পুরনো দিনের কথা বেশি মনে পড়ে

জন্মদিনে সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী
প্রখ্যাত শিক্ষাবিদ, প্রাবন্ধিক, রাষ্ট্র ও সমাজচিন্তক অধ্যাপক সিরাজুল ইসলাম চৌধুরীর ৭৬তম জন্মদিন ছিল গতকাল। বরাবরের মতো এবারও কোনো আড়ম্বরপূর্ণ আয়োজন ছিল না দেশবরেণ্য ও সর্বজন শ্রদ্ধেয় এই ব্যক্তিত্বের জন্মদিনে। তবে তার শুভাকাঙ্ক্ষী, সতীর্থ ও শিষ্যরা তার ধানমণ্ডির বাসায় গিয়ে ফুলেল শুভেচ্ছা আর অকৃত্রিম ভালোবাসায় সিক্ত করেন তাকে। দিনটি অধ্যাপক সিরাজুল ইসলাম চৌধুরীর কেটেছে বাসায় অভ্যাগতদের সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় এবং দুই মেয়ে, নাতি ও পরিবারের অন্য সদস্যদের সঙ্গে গল্প করে। অভ্যাগতদের বাসায় রান্না করা মিষ্টান্ন ও খাদ্যদ্রব্য দিয়ে আপ্যায়ন করা হয়। তার দুই মেয়ে রওনক আরা চৌধুরী ও শারমিন চৌধুরী এসবের তত্ত্বাবধান করেন।

জন্মদিনের অনুভূতি ব্যক্ত করে অধ্যাপক সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী বলেছেন, বয়স যত বাড়ে তখন পুরনো দিনের কথা বেশি করে মনে পড়ে এবং পুরনো দিনের কথা ও স্মৃতি বড় হয়ে দেখা দেয়। কিন্তু সময়ের সঙ্গে তাল মিলিয়ে আমাদের সমষ্টিগত উন্নয়ন বয়স্ক হচ্ছে না। এ জায়গাটায় স্থবির হয়ে আছে। এ ক্ষেত্রে আমরা একটি বৃত্তের মধ্যে আটকে আছি। এটা আমাদের প্রত্যাশিত ছিল না। আমাদের প্রত্যাশা ছিল, শুধু সময়ের বদল হবে না—সময় এগিয়েও যাবে। কিন্তু সময় এগিয়ে যেতে পারল না। ফলে এ ক্ষেত্রে আমার মধ্যে এই অনুভূতি জাগে যে, আমরা বোধকরি আমাদের দায়িত্ব পালন করতে পারিনি। এ ব্যাপারে আমি আমার নিজের কথাও ভাবি। আমার মনে হয়, সময় এবং চারদিকের বাস্তবতার প্রতি আমার দায়িত্বটা আরও বেশি ছিল। এ দায়িত্ব আমি নিজেও পালন করতে পারিনি, অন্যরাও করেননি। ফলে সময় এগোয়নি।

তিনি বলেন, আমার চেয়ে বয়োজ্যেষ্ঠদের ঘনিষ্ঠতা এখনও আমাকে উজ্জীবিত করে। তাদের একজন আজ টেলিফোনে আমাকে বলেছেন, আমি যেন আমার পথ থেকে বিচ্যুত না হই। আমাদের সমাজে দেখা যায়, মানুষ যে রাস্তায় চলতে চায় সে রাস্তায় চলতে পারে না। টেলিফোনে তিনি আমাকে আরও বলেন, বাংলাদেশে এখন সমাজ বলতে কিছু নেই। এখানে অনেক মানুষ আছে, কিন্তু মানুষের মধ্যে কোনো সামাজিক দায়িত্ববোধ, সামাজিক শৃঙ্খলা, সামাজিক শিষ্ঠাচার, সামাজিক সহনশীলতা নেই। সহিংসতা এখন এত প্রবলভাবে বিস্তৃতি লাভ করেছে যে, এটা এখন পরিবারের মধ্যে ঢুকে পড়েছে, দাম্পত্য জীবনে প্রবেশ করেছে আর রাজনৈতিক দলের মধ্যে তো আছেই। সমাজের এই যে দুর্দশা এটা আমিও উপলব্ধি করি।

সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী বলেন, এ সমাজটাকে আমরা পরিবর্তন করতে পারলাম না। যে আকাঙ্ক্ষা নিয়ে আমরা মুক্তিযুদ্ধ করেছিলাম বা মুক্তিযুদ্ধের মধ্য দিয়ে যে পরিবর্তন আসবে বলে আমরা আশা করেছিলাম সে পরিবর্তন এলো না। বরং সমাজের মধ্যে বিশৃঙ্খলা, সমাজের মধ্যে ভাঙন, সমাজের মধ্যে সহিংসতা, পরস্পরের প্রতি বিদ্বেষ এগুলো প্রধান হয়ে দাঁড়াল। কেন এমন হলো তাঁর ব্যাখ্যা আমি যেভাবে পাই তা হলো— পুঁজিবাদের দৌরাত্ম্য আগের চেয়ে এখন অনেক বেড়ে গেছে। এর ফলে মানুষের মধ্যে বিচ্ছিন্নতা, সহিংসতা, নিজের স্বার্থ দেখা, সমষ্টিগত স্বার্থ ভুলে যাওয়া ইত্যাদি অত্যন্ত প্রবল হয়েছে। দেশপ্রেম ক্রমাগত নিচের দিকে নামছে। মানুষের সঙ্গে মানুষের অর্থনৈতিক বৈষম্য কেবল শ্রেণীর মধ্যে নয়—একই শ্রেণীর মধ্যে, পরিবারের মধ্যে, এমনকি ভাইবোনের মধ্যেও এই বৈষম্য অনেক বেড়ে যাচ্ছে। এই দুর্গতির কারণ হচ্ছে, পুঁজিবাদ গোটা বিশ্বে একটি বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করছে; কিন্তু আমাদের দেশে এটা যেন বিশেষভাবে মুক্তি পেয়ে গেছে। স্বাধীনতা যেন এই পুঁজিবাদকে মুক্ত করে দিয়েছে, তার দৌরাত্ম্যকে সর্বত্রগামী করে দিয়েছে, তাঁর দৌরাত্ম্যকে অপ্রতিহত করে দিয়েছে। এই সর্বত্রগামী ও অপ্রতিহত দৌরাত্ম্য আজ আমরা সমাজের সর্বত্র দেখছি। এ অবস্থা থেকে পরিত্রাণের জন্য মানুষকে সংঘবদ্ধ হতে হবে। যারা মনে করেন এ ব্যবস্থাটা অন্যায়, সমাজে পরিবর্তন আনা দরকার, সমাজকে মানবিক করা দরকার, সমাজকে গণতান্ত্রিক করা দরকার, অর্থাত্ রাষ্ট্র ও সমাজে মানুষের অধিকার ও সুযোগের সাম্য প্রতিষ্ঠা করা দরকার, ক্ষমতার বিকেন্দ্রীকরণ দরকার, সত্যিকার জনপ্রতিনিধিদের শাসন প্রতিষ্ঠা করা দরকার—তাদের আজকে ঐক্যবদ্ধ হওয়া প্রয়োজন। তাহলে মুক্তির আকাঙ্ক্ষাকে আমরা আরও এগিয়ে নিয়ে যেতে পারব এবং এটাকে বাস্তবায়ন করতে পারব। সমাজের মৌলিক পরিবর্তন যদি আমরা না আনতে পারি তাহলে পরিস্থিতি আরও ভয়াবহ আকার ধারণ করবে।

তিনি বলেন, সমাজের বিত্তবান মানুষ এখন মনে করেন, এ দেশে তাদের কোনো ভবিষ্যত্ নেই। তারা তাদের সন্তানদের বিদেশে চলে যেতে দেন বা বিদেশ যেতে উত্সাহী করেন। তারা নিজেরাও বিদেশে সম্পদ পাঠিয়ে দেন এবং বছরের একই সময়ে দেশের বাইরে থাকেন। তারা মনে করেন, এ দেশের কোনো ভবিষ্যত্ নেই, তাই এ দেশ থেকে যতটা পারা যায় সম্পদ সংগ্রহ করা দরকার। স্থূল অর্থে তাদের এই সম্পদ সংগ্রহকে লুণ্ঠন বলা যায়। এর মাধ্যমে তারা ব্যক্তিগত স্বার্থ হাসিল করছে। তারা এই ব্যক্তিগত স্বার্থ যতই হাসিল করছে ততই দেশে ক্ষতি হচ্ছে, দেশ অন্ধকারাচ্ছন্ন হয়ে যাচ্ছে। এ অবস্থা থেকে পরিত্রাণের জন্য আমাদের উচিত হবে সমষ্টিগত মুক্তির স্বপ্নকে সামনে নিয়ে আসা। এ স্বপ্ন বাস্তবায়ন করার জন্য দেশপ্রেমিক ও গণতান্ত্রিক মানুষকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। রাজনৈতিকভাবে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে এবং সাংস্কৃতিকভাবেও ঐক্যবদ্ধ হতে হবে।

তিনি বলেন, আমি আন্দোলন সংগ্রামে অংশ নিয়েছি। কিন্তু এ অংশগ্রহণের পরিমাণগত দিকটি ঠিক আছে, কিন্তু গুণগতমান আরও গভীর হওয়া উচিত ছিল। আমার কাজের ক্ষেত্রটা হচ্ছে লেখালেখির। আন্দোলনে আমার অংশগ্রহণের বিষয়টি আনুষঙ্গিক। কিন্তু আমার লেখার মধ্যেও বোধকরি অঙ্গীকারের ব্যাপারটি গুণগতভাবে বিকশিত করতে পারিনি। অঙ্গীকারটি খুবই জরুরি । কিন্তু এটা খুব স্থূলভাবে আসবে না, আসবে শিল্পগতভাবে। কিন্তু শিল্পের মধ্যে গভীরতা আনতে পারিনি বলে আমরা মনে হয়।

তিনি বলেন, আমাদের দেশে একটি সামাজিক বিপ্লবের প্রয়োজন ছিল। এ কথা আগে অস্পষ্টভাবে বুঝেছি। বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে এ বোধটা এখন স্পষ্ট হয়ে উঠেছে এবং তীব্র হচ্ছে। রাজনৈতিক ক্ষেত্রে আমাদের বৈপ্লবিক পরিবর্তন ঘটেছে। এ ক্ষেত্রে রাষ্ট্রের ভাঙাগড়া পর্যন্ত হয়ে গেছে। কিন্তু রাষ্ট্রের ভেতরের সমাজটা পরিবর্তিত হলো না। মুক্তিযুদ্ধ যে আকাঙ্ক্ষা তৈরি করেছিল তা চরিতার্থ হলো না। সমাজটা আগের মতোই বৈষম্য ও নিপীড়নমূলক রয়ে গেল। তবে সাম্প্রতিক সময়ে বিভিন্ন ইস্যুতে তরুণদের মধ্যে ঐক্যবদ্ধ হয়ে প্রতিবাদ করার যে চেষ্টা দেখছি তা আমাকে আশান্বিত করছে।

তিনি বলেন, সমাজ সম্পর্কে আরেকটি কথা হচ্ছে, আমাদের সমাজে পিতৃতান্ত্রিকতা অত্যন্ত পুরনো। পুঁজিবাদ বিকশিত হওয়ার আগে সামন্ততান্ত্রিক সমাজব্যবস্থায় পিতৃতান্ত্রিকতা ছিল। এখন পুঁজিবাদ বিকশিত হয়েছে এবং এখনও পিতৃতান্ত্রিকতা রয়ে গেছে। পিতৃতান্ত্রিকতার লক্ষণ হলো ক্ষমতার এককেন্দ্রিকতা। এটা পরিবারে যেমন আছে, তেমনি রাষ্ট্রেও আছে। সব বিষয়েই একজন সিদ্ধান্ত নেয় এবং সবাই তা মান্য করে। কেউ তার বিরুদ্ধে কিছু বলতে পারে না—এটাকে স্বৈরাচারীও বলা যায় এবং একনায়কত্বও বলা যায়। এটা আমাদের সমাজ ও রাষ্ট্রে প্রতিষ্ঠিত। এ ব্যবস্থার বিরুদ্ধে আমাদের দাঁড়ানো দরকার। সমাজে মায়ের ভূমিকাকে আমরা কখনও যর্থাথভাবে মূল্যায়ন করিনি। মা যে কত গুরুত্বপূর্ণ এর মূল্যায়ন আমরা যেমন পারিবারিকভাবে করিনি তেমনি ব্যক্তিগতভাবেও করিনি। বাবাকে আমরা আদর্শায়িত করেছি, এমনকি জাতির জন্যও আমরা মনে করি একজন জাতির পিতা প্রয়োজন। কিন্তু সমাজে, ব্যক্তিগত ও পারিবারিক জীবনে মায়ের যে ভূমিকা তার মূল্যায়ন যথার্থভাবে হয়নি। বরং অবমূল্যায়ন হয়েছে। এ উপলব্ধিটাও বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে আমার কাছে নতুনভাবে উন্মোচিত হচ্ছে।

অধ্যাপক সিরাজুল ইসলাম চৌধুরীর জন্ম বিক্রমপুরে, ১৯৩৬ সালে। সাহিত্যে বিশেষ অবদানের জন্য তিনি বাংলা একাডেমী পুরস্কার এবং শিক্ষকতার জন্য পেয়েছেন একুশে পদক। তার রচিত বইয়ের সংখ্যা সত্তর ছাড়িয়েছে। এর মধ্যে প্রবন্ধ ছাড়াও রয়েছে অনুবাদ ও কথাসাহিত্য। তাঁর সাম্যবাদী রাজনৈতিক দর্শন সবার কাছেই স্পষ্ট। তিনি সবসময়ই সেই অবস্থানে অবিচল ও অনড়। কোনো রাষ্ট্রীয় প্রলোভন অবিচল অবস্থান থেকে টলাতে পারেনি তাকে। সমাজ বিপ্লবের প্রয়োজনীয়তার কথা তাঁর প্রতিটি প্রবন্ধের মধ্যে যেমন অ্যাছে তেমনি রয়েছে প্রবন্ধগুলোর সমষ্টিগত উপস্থাপনার মধ্যেও। তিনি যে বিষয়েই লেখেন না কেন তাতে আদর্শিক বিবেচনাকে কখনোই উপেক্ষা করেন না। তার লেখা ও বক্তব্য যেমন গভীর, তেমনি উপস্থাপনায় প্রীতিপদ।

তিনি ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের অধ্যাপক। সে পদ থেকে অবসর গ্রহণ করেছেন। বর্তমানে সাহিত্য ও সংস্কৃতি বিষয়ক ত্রৈমাসিক পত্রিকা ‘নতুন দিগন্ত’ সম্পাদনা ও প্রকাশ করছেন এবং ‘সমাজ রূপান্তর অধ্যয়ন কেন্দ্র’ প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে সমাজে যে রূপান্তর ঘটছে তা পর্যবেক্ষণ করছেন। পত্রিকা প্রকাশ ও সমাজ রূপান্তর অধ্যয়ন কেন্দ্র—এই দুইয়ের লক্ষ্য সমাজের পরিবর্তনকে প্রভাবিত করা এবং এ আন্দোলনকে একটি গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র বা সমাজ গঠনের দিকে নিয়ে যাওয়া। অর্থাত্ তাঁর সাহিত্য ও সংস্কৃতিচর্চা এবং জীবন তপস্যা একই ধারায় প্রবহমান। তাঁর ব্যক্তিজীবন, কর্মজীবন ও লেখকজীবনের মধ্যে নেই কোনো ব্যবধান। সিরাজুল ইসলাম চৌধুরীর স্ত্রী নাজমা জেসমিন চৌধুরীও ছিলেন অসাধারণ মেধাসম্পন্ন ব্যক্তিত্ব। তারও পেশা ছিল শিক্ষকতা ও লেখালেখি। মাত্র ৪২ বছর বয়সে ১৯৮৯ সালে তিনি মৃত্যুবরণ করেন।

জাকির হোসেন

Leave a Reply