প্রকৃতপক্ষে সংবাদপত্র পুরো স্বাধীনতা পাবে না

ফয়েজ আহমেদ
পঞ্চাশ দশকের সাংবাদিকতার সাথে আজকের বিংশ শতাব্দীর সাংবাদিকতার কোনো তুলনাই হয় না। আমরা যখন দেশ বিভাগের পর (১৯৪৭ সাল) ঢাকায় এসে সাংবাদিকতা শুরু করি, তখন ঢাকায় কোনো দৈনিক পত্রিকা ছিল না। ক্রমেই (১৯৪৮) রাজনৈতিকভাবে কোনো কোনো দৈনিক শুরু হয়। অবজারভার পত্রিকা বের হবার পর ঢাকায় কলকাতার বিখ্যাত দৈনিক আজাদ পত্রিকা ঢাকা থেকে প্রকাশ শুরু করে। তখন ঢাকায় ইনসাফ, ইনসান, বাইউইকলি ঢাকা থেকে প্রকাশিত হয়। ইনসাফ কাগজটি বিস্তৃতি লাভ করে। আজাদ পত্রিকার একই সময়ে প্রায় কেন্দ্রীয় সরকারের তত্ত্বাবধানে একটি দৈনিক বের হয়। তার নাম সংবাদ। তখনকার দিনে পরিচ্ছন্ন এই কাগজটি সুনাম অর্জন করেছিল।

৫০ সালে আমিও এই পত্রিকাটিতে সাংবাদিকতা শুরু করি। তার আগে আমি মাসিক কিশোর ম্যাগাজিন, মাসিক হুল্লোড়ে ছিলাম। আরও কয়েকটি দৈনিক তখন প্রকাশে উদ্যোগ নেয়। সাপ্তাহিক ইত্তেফাক, যুগের দাবি তখন প্রতিপত্তিশালী সাপ্তাহিক।

‘৫৪ সালের নির্বাচনের পূর্ব থেকে ঢাকায় কয়েকটি পত্রিকা প্রকাশের আয়োজন চলে। এই সময়ের শেষের দিকে সাধারণ নির্বাচনের পূর্বে (১৯৫৪) প্রখ্যাত ইত্তেফাক পত্রিকা প্রকাশিত হয়। ইত্তেফাক প্রকাশিত হবার পর বাংলাদেশের সাংবাদিকতায় নতুন দিগন্ত উন্মুক্ত হয়। এই সাধারণ নির্বাচনে যুক্ত ফ্রন্টের বিজয়ের পর (১৯৫৪) আরও অনেকগুলো সাপ্তাহিক আত্মপ্রকাশ করে এবং ইত্তেফাক সেই সময় শ্রেষ্ঠ দৈনিক বলে বিবেচিত হয়।

আমাদের দেশে এভাবেই সাংবাদিকতার দিগন্ত উন্মোচিত হয়। বিভিন্ন মতামতের এবং শ্রমিক সাধারণের দাবি-দাওয়া নিয়েও সেই সময় পত্রিকা প্রকাশিত হয়েছিল। এই সময়টায় বিভিন্ন সাপ্তাহিক ও দৈনিক পত্রিকা মোটামুটিভাবে উন্মুক্ত বক্তব্য রাখতে সক্ষম হচ্ছিল।

কিন্তু আইয়ুব খান সামরিক শাসক হিসেবে ক্ষমতা দখলের পর পাকিস্তানের রাজনীতি বিড়ম্বনার মধ্যে পতিত হয়। পাকিস্তানের দু্ই অংশেই সাংবাদিকতার ওপরে খ্তগ নেমে আসে। দেশের কোনো পত্রিকাতেই সরকারি দৃষ্টির বাইরে কোনো সংবাদ প্রকাশিত হতো না। দীর্ঘ এক বছর পর্যন্ত (১৯৫৪) পূর্ব পাকিস্তান প্রকৃতপক্ষে সামরিক শাসনের অধীনে ছিল। একজন লে. জে. ইস্কান্দার মির্জাকে ঢাকায় আধাসামরিক শাসক হিসেবে (৯২/অপঃ) নিয়োগ দেয়া হয়। সমগ্র বাংলাদেশে সেই সময়ে ২০ থেকে ৩০ হাজার রাজনৈতিক কর্মীকে গ্রেফতার করা হয়েছিল। মওলানা ভাসানী তখন ওয়ারেন্ট নিয়ে লন্ডনে ছিলেন। শেরেবাংলা এ কে ফজলুল হক ঢাকায় হাটখোলা রোডে নিজবাড়িতে গৃহবন্দি ছিলেন। শেখ মুুজিব ও অন্যান্য রাজনৈতিক কর্মীরা তখন কারাগারে। এই রাজনৈতিক অস্থিরতা ও নির্যাতনের মধ্যে প্রধানত আওয়ামী লীগকে নিষ্ঠুর সরকারের শিকারে পরিণত হতে হয়।

এই রাজনৈতিক অবস্থায় ঢাকার পত্রিকাগুলো স্বাভাবিকভাবে জনগণ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে। এবং জনগণের আশা-আকাঙ্ক্ষার কোনো খবর আইয়ুব শাসনের সময় প্রকাশ করতে পারেনি বললেই চলে।

এমত রাজনৈতিক উত্থান-পতনের কঠোর নিয়ন্ত্রণের মধ্যে সংবাদপত্র দেশে প্রায় অচল হয়ে পড়ে। আইয়ুব খানের শাসনে দশ বছর আমলে সংবাদপত্রগুলো সরকারমুখী হয়ে পড়েছিল।

তখনকার দিনের সাংবাদিকতা নিশ্চিতভাবে কঠোর নিয়ন্ত্রণের মধ্যে নিক্ষিপ্ত হয়। সেই থেকে সাংবাদিক জগতে নানা ধরনের পরিবর্তন পরিলক্ষিত হয়।

তখন থেকেই সরকারবিমুখী ও সরকারপন্থী কাগজ সমগ্র পাকিস্তানে বিস্তৃতি লাভ করে। দেশে অর্থনৈতিক সংকট দেখা দেয়। বভিন্ন ধরনের রাজনৈতিক ও শ্রমিক দলগুলো ক্রমান্বয়ে মুখর হয়ে ওঠে। একই সময় সমগ্র পাকিস্তানে দৈনিকগুলো আবার মাথাচাড়া দিয়ে ওঠে। এবং সাংবাদিকদের কথা বলার সুযোগ বৃদ্ধি পায়। তখন থেকেই মুক্ত সাংবাদিকতার পথ বিস্তৃত হতে থাকে। লড়াই শুরু হয় সাংবাদিকতার বিস্তৃত দিগন্তের পরিধিতে।

আমাদের এই অঞ্চল স্বাধীন হয় মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে। তখন থেকে সাংবাদিকতার দিগন্তে এ দেশে এক নতুন যুগের সূচনা হয়।

এখন যে মুক্ত সাংবাদিকতার কথা বলা হয় তার মূল্যায়ন হওয়া উচিত। দেখা যাচ্ছে পত্রিকা এজেন্সি ও নতুন চ্যানেলগুলো পরোক্ষভাবে অনেকেই সরকারের পায়েবন্ধ করতে বাধ্য হন অথবা সরকারের নির্দেশের বাইরে চলে না। যদি কোনো কারণে (রাজনৈতিক বা অন্য কোনো চেতনায়) সরকারের পরিবর্তন ঘটে তবে আমরা যে খুব একটা পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন সাংবাদিকতা পাবো তা না। এই সরকার বা অন্য কোনো সরকারের শাসনের ওপর নির্ভর করে সকল সংবাদপত্র সরকারের নির্দেশমালার বিরুদ্ধে বিদ্রোহ করবে এরকম একটা কার্যক্রম অদূর ভবিষ্যতে দেখা যাচ্ছে না। যেই ক্ষমতায় আসে চ্যানেলগুলো অধিকাংশ সময় তার কথা মতো চলে।

প্রকৃতপক্ষে কোনোদিনই সংবাদ মাধ্যমগুলো সরাসরি স্বাধীনতা পাবে না; এই স্বাধীনতা অর্জনের স্বাধীনতা। অর্জনের সাথে অর্থের সম্পর্ক। অর্থের বিরুদ্ধে যাওয়ার মতো শক্তি কোনো মাধ্যমের নাই। অবশ্য ফাঁকে ফাঁকে দু-চার কথা বলা যায়, জনগণের ইচ্ছা-আকাঙ্ক্ষার ভিত্তিতে।

Leave a Reply