অল্পের জন্য বেঁচে গেলেন ২ ফেরির সহস্রাধিক যাত্রী

মাওয়া-কাওড়াকান্দি নৌরুটে মঙ্গলবার রাতে দু’টি ফেরির মুখোমুখি সংঘষের্র পর অল্পের জন্য প্রাণে রক্ষা পেয়েছেন সহস্রাধিক যাত্রী। সংশ্লিষ্টরা জানান, নৌরুটের হাজরা টার্নিংয়ে সরু চ্যানেলের মুখে ফেরি টাপলো ও ফেরি কপোতীর মধ্যে মঙ্গলবার রাত ৮ টার দিকে ওই সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এ সময় ফেরি চালক দক্ষতার সঙ্গে পরিস্থিতি সামাল দেওয়ায় ভয়াবহ পরিস্থিতি এড়ানো সম্ভব হয়।

যাত্রীরা জানান, সংঘর্ষে দু’টি ফেরিই টলে উঠলেও কেউ আহত হননি। ফেরি দু’টোতে থাকা অন্তত ৪০টি ছোট-বড় যানবাহন ও সহস্রাধিক যাত্রী ছিলেন।

বিআইডব্লিউটিসি’র ম্যানেজার বাণিজ্য সিরাজুল হক বাংলানিউজকে জানান, ফেরি টাপলো যাত্রীবাহী বাসসহ প্রায় ২০টি যানবাহন বোঝাই করে কাওড়াকান্দি ঘাট ছেড়ে মাওয়া ঘাটের উদ্দেশ্যে রওনা দেয়। একই সময়ে ফেরি কপোতী আরো ২০-২৫টি ছোট-বড় যানবাহন বোঝাই করে কাওড়াকান্দির উদ্দেশ্যে মাওয়া ঘাট ছেড়ে যায়।

মাওয়াগামী ফেরি টাপলো ও কাওড়াকান্দিগামী ফেরি কপোতী রাত ৮টার দিকে মাওয়া-কাওড়কান্দি নৌরুটের হাজরা টার্নিংয়ে পৌঁছলে ফেরি দু’টোতে মুখোমুখি সংঘর্ষ ঘটে।

এদিকে, বিআইডব্লিউটিসি’র মাওয়া ঘাটের মেরিন অফিসার আব্দুস সোবহান দাবি করেন- চ্যানেল সরু হওয়ায় বিপরীত মুখী ওই দু’টি ফেরির মধ্যে সংঘর্ষ হয়। তবে এতে কোনও হাতাহতের ঘটনাটি ঘটেনি। এ রিপোর্ট লেখার সময় (রাত পৌনে ৯টা) ফেরি টাপলো মাওয়া ঘাটে এসে নোঙর করেছে। অপর ফেরি কপোতীও কিছুক্ষনের মধ্যে কাওড়াকান্দি ঘাটে নোঙর করবে বলে তিনি জানান।

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
———————————

পদ্মায় দুই ফেরির মুখোমুখি সংঘর্ষ, আতঙ্ক

কাওড়াকান্দি-মাওয়া নৌরুটে পদ্মা নদীর হাজরা পয়েন্টের কাছে দুটি ফেরির মুখোমুখি সংঘর্ষে একটির তলা ফেটে পানি ঢুকতে শুরু করে।

মঙ্গলবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে এই সংঘর্ষের পর ক্ষতিগ্রস্ত ফেরিতে থাকা ১৫টি বাস ও যাত্রীরা চরম ঝুঁকির মধ্যে পড়ে যায়। দ্রুত ফেরিটিকে নিরাপদে ঘাটে নিয়ে ভেড়ানো হয়। যাত্রীসহ সকলেই হাফ ছেড়ে বাঁচেন।

মাওয়া ঘাটের মহাব্যবস্থাপক (বাণিজ্য) সিরাজুল হক বলেন, হাজরা পয়েন্টের কাছে কপোতী ও টাপলো ফেরি দুটির মুখোমুখি সংঘর্ষ ঘটে। এতে টাপলোর তলার কিছু অংশ ফেটে পানি ঢুকতে থাকলে যাত্রীরা আহাজারি শুরু করে।

তিনি বলেন, উদ্ধারকারী একটি ফেরিকে ঘটনাস্থলে যাওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়। ওদিকে টাপলোর গতি বাড়িয়ে দিয়ে মাওয়া ঘাটের দিকে নিয়ে আসা হয়। রাত সাড়ে ৯টার দিকে টাপলো নিরাপদে মাওয়া ঘাটে ভিড়তে সক্ষম হয়।

টাপলোয় থাকা যাত্রী মোস্তাফিজুর রহমান সুমন রাত সাড়ে ৮টার দিকে মোবাইল টেলিফোনে বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, আমরা খুব আতঙ্কের মধ্যে আছি। এই মাঝ নদীতে আমাদের উদ্ধার করতে কোন উদ্ধারকারী ফেরি এসে পৌঁছেনি।

টাপলো ঘাটে পৌঁছার পর মোস্তাফিজুর রহমান আবার টেলিফোনে বলেন, আতঙ্কের অবসান ঘটেছে। আমরা সবাই নিরপদে তীরে পৌঁছেছি।

সিরাজুল হক বলেন, ফেরি থেকে যাত্রীরা নেমে গেছে। বাসগুলোও নামানো হচ্ছে। মেরামতের জন্য টাপলোকে মাওয়া ডকইয়ার্ডে নিয়ে যাওয়া হবে।

কাওড়াকান্দি ঘাটের সহকারী ব্যবস্থাপক শাহনেওয়াজ চৌধুরী বলেন, কপোতি ফেরিটিও নিরাপদে কাওড়াকান্দি ঘাটে ভিড়েছে। সংঘর্ষে এর কোন ক্ষতি হয়েছে কিনা তাৎক্ষণিকভাবে তা নির্ণয় করা যায়নি।

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
———————————

কাওড়াকান্দি-মাওয়া রুটে দুই ফেরীর সংঘর্ষ

কাওড়াকান্দি-মাওয়া নৌরুটের পদ্মা নদীর হাজরা পয়েন্টের কাছে দুইটি ফেরীর মুখোমখি সংঘর্ষে একটি ফেরী ফেটে গেছে। এতে ফেরীতে থাকা শতাধিক যাত্রী ও কমপক্ষে ১৫ টি বাস রয়েছে চরম ঝুঁকির মধ্যে। সংঘর্ষের ঘটনাটি ঘটেছে মঙ্গলবার রাত সাড়ে ৮ টার দিকে।

মাওয়া ঘাটের মহাব্যবস্থাপক (বাণিজ্য) সিরাজুল হক বলেন, ‘পদ্মা নদীর হাজরা পয়েন্টের কাছাকাছি কপোতী ও টাপলো ফেরী দুটি মুখোমুখি সংঘর্ষ হলে টাপলো ফেরীটির তলানির কিছু অংশ ফেটে যায়। এতে টাপলো ফেরীতে পানি প্রবেশ করলে যাত্রীরা আহাজারি শুরু করে’।
তবে তিনি বলেন, ‘ফেরীটিতে থাকা যাত্রী ও ফেরীটি উদ্ধার করার জন্য উদ্ধাকারী ফেরী ঘটনাস্থলে পাঠানো হয়েছে’।

টাপলো ফেরীতে থাকা যাত্রী মোস্তাফিজুর রহমান সুমন মোবাইল ফোনে রাত সাড়ে ৮ টায় বলেন, ‘কপোতী ও টাপলো নামে দুটি ফেরীর মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়েছে। আমরা এখন খুব আতঙ্কের মধ্যে আছি। পদ্মার এই মাঝ নদীতে এখনো আমাদের উদ্ধার করতে কোন উদ্ধারকারী ফেরী এসে পৌছেনি’।
সুমন আরো বলেন, ‘ফেটে যাওয়া টাপলো ফেরীতে বাস-ট্রাকসহ কমপক্ষে ১৫ টি যানবাহন ও শতাধিক যাত্রী রয়েছে’।

কাওড়াকান্দি ঘাটের সহকারী ব্যবস্থাপক শাহনেওয়াজ চৌধুরী বলেন, ‘ঘটনাটি সত্য। দুটি ফেরী মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়েছে। ফেরীতে থাকা যাত্রীদের উদ্ধার করার জন্য উদ্ধারকারী ফেরী পাঠানো হয়েছে। আশা করছি বড় ধরনের কোন দুর্ঘটনা ঘটবে না’।

বাংলাটাইমস টুয়েন্টিফোর ডটকম
———————————

Leave a Reply