শিল্পী আজম খান ও মোহাম্মদ কিবরিয়ার প্রতি প্রবাসীদের শ্রদ্ধা

সাপ্তাহিক পাঠক ফোরামের আয়োজন
পপগুরু আজম খান ও চিত্রশিল্পী মোহাম্মদ কিবরিয়ার মৃত্যুতে ‘সাপ্তাহিক পাঠক ফোরাম জাপান’ ১২ জুন এক স্মরণসভার আয়োজন করে। রাজধানী টোকিওর অজি হোকুতোপিআ কানারি হলে আয়োজিত এই সভায় টোকিওস্থ বাংলাদেশ দূতাবাসের রাষ্ট্রদূত, দূতাবাসের কর্মকর্তা, সাংবাদিক মনজুরুল হক, সকল সামাজিক-সাংস্কৃতিক, রাজনৈতিক, ব্যবসায়িক, আঞ্চলিক সংগঠনগুলোর নেতৃবৃন্দ, সংস্কৃতিমনা প্রবাসী দূর-দুরান্ত থেকে উপস্থিত হয়ে এই দুই গুণীর প্রতি শ্রদ্ধা জানান। বিস্তারিত জানাচ্ছেন রাহমান মনি

স্মরণ সভায় সভাপতিত্ব করেন সাপ্তাহিক পাঠক ফোরামের সভাপতি, লেখক, ছড়াকার বদরুল বোরহান এবং পরিচালনা করেন জুয়েল আহসান কামরুল। ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানিয়ে সূচনা বক্তব্য রাখেন সাপ্তাহিক টোকিও প্রতিনিধি রাহমান মনি। বক্তব্য রাখেন এসকে রকি, মীর রেজাউল করিম রেজা, এজেডএম জালাল, আলমগীর হোসেন মিঠু, গোলাম ফারুক মেনন, ফজলে মাহমুদ মুক্তা, তসলিম উদ্দিন, রফিক উদ্দিন ফরাজী, একেএম মানজুরুল হক, সাংবাদিক মনজুরুল হক, রাষ্ট্রদূত একেএম মজিবুর রহমান ভূঁইয়া এবং বদরুল বোরহান, যেরম গোমেজ প্রমুখ।

সূচনা বক্তব্যে সাপ্তাহিক পাঠক ফোরামের ডাকে সাড়া দিয়ে উপস্থিত হওয়ার জন্য কৃতজ্ঞতা জানিয়ে এই প্রতিবেদক বলেন, ‘আজ আমরা একত্রিত হয়েছি একটু ভিন্ন আঙ্গিকে, অত্যন্ত ভারাক্রান্ত এবং স্বজন হারানো বেদনার্ত হৃদয় নিয়ে। আমাদের প্রিয় ব্যক্তি, পপ সম্রাট, বীর মুক্তিযোদ্ধা আজম খানের অকাল প্রয়াণে আমাদের দেশ একজন গুণী শিল্পী, নির্লোভ ব্যক্তি এবং একজন আদর্শ দেশপ্রেমিক হারিয়েছে। যে স্থান কোনো দিনই পূরণ হওয়ার নয়। তাঁর নামের আগে যত বিশেষণেই বিশেষিত করা হোক না কেন, আজম খানকে শুধু গুরু বললেই সবাই চিনে ১৯৫০ সালের ২৮ ফেব্রুয়ারি ঢাকার আজিমপুরে জন্ম নেয়া মোহাম্মদ মাহবুবুল হক খান আজমকে। যিনি মাত্র ২১ বছর বয়সে ১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধে অংশ নিয়ে দেশ স্বাধীন করে স্বাধীন বাংলাদেশের পপ মিউজিকে প্রথম প্রজন্মের অত্যন্ত শীর্ষশিল্পী এবং পপ সম্রাট উপাধি পেয়ে আজম খান হিসেবে সম্যক পরিচিতি লাভ করেন।

আমরা যখন গুরু আজম খানের অকাল প্রয়াণে শোকে মূহ্যমান, বিদেহী আত্মার প্রতি শ্রদ্ধা জানানোর জন্য অজি হোকুতোপিআর এই হলে মিলিত হওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছিলাম তখনই বাংলাদেশের আরেক নক্ষত্র, শিল্পকলা জগতের এক যুগস্রষ্টা, বাংলাদেশের ছবি আঁকিয়েদের পথিকৃৎ, শিক্ষাগুরু মোহাম্মদ কিবরিয়া গত ৭ জুন ৮২ বছর বয়সে মৃত্যুবরণ করেন। চিত্রকলার মাধ্যমে বাংলাদেশকে বিশ্বের কাছে পরিচিত করানো বরেণ্য এই চিত্রশিল্পী, শিক্ষাগুরু ১৯৫৯ সালে বৃত্তি নিয়ে এই জাপানের টোকিও ইউনিভার্সিটি অব ফাইন আর্টস অ্যান্ড মিউজিক থেকে পেইন্টিং ও গ্রাফিক্সে উচ্চতর শিক্ষা গ্রহণ করে দেশে ফিরে গিয়ে শিক্ষকতার মহান পেশায় নিজেকে সম্পৃক্ত করেন। আমরা আজ এই মিলনায়তনে উভয় গুণীজনের স্মৃতির প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জানাব। আমাদের সৌভাগ্য আজকে এই মিলনায়তনে এমন সব ব্যক্তিত্ব রয়েছেন যিনি বা যাঁরা এই উভয় গুণীজনের সান্নিধ্য পাওয়ার সৌভাগ্য অর্জন করেছেন। আমরা তাদের মুখ থেকে স্মৃতিকথা শুনব।’

উভয়ের স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে দাঁড়িয়ে এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়।

এরপর সলিমুল্লাহ কাজল রকি যিনি আজম খানের একজন ঘনিষ্ঠ এবং মোহাম্মদ কিবরিয়ার ছাত্র ছিলেন স্মৃতি রোমন্থন করে বলেন, ‘কিবরিয়া স্যার আমাদের গ্রাফিক্স পড়াতেন। তিনি ব্যতিক্রমধর্মী একজন শিক্ষক ছিলেন। যিনি কথা বলতেন কম কিন্তু কাজ করতেন বেশি। তিনি সত্যিকার অর্থেই একজন গুণী শিল্পী ছিলেন। তিনি বাংলাদেশের চিত্রকলাকে বিশ্বে তুলে ধরেছেন। শিল্প সাহিত্য জগতের প্রথমসারির একজন মানুষ কিবরিয়া স্যার। কাজ ছাড়া স্যার আর কিছুই বুঝতেন না। প্রচারবিমুখ ছিলেন কিবরিয়া স্যার। বেশকিছু কারণেই আমি আজম খানের সঙ্গে ঘনিষ্ঠ ছিলাম। এলাকায় পরিচয় তো আছেই, মুক্তিযুদ্ধে অংশ নেয়ার কারণে তার সঙ্গে আমার পরিচয়টা আরো গভীর হয়। আজম খান আলাদা সারির একজন মুক্তিযোদ্ধা ছিলেন। স্বাধীনতা যুদ্ধের পর তার গান শুনে আমি তার একজন ভক্ত হই, অনুপ্রাণিত হই। ’৭২ সালে বিটিভির মাধ্যমে ফিরোজ সাঁই এবং আজম খান সারা বাংলাদেশে খ্যাতি লাভ করেন। তার মধ্যে আজম খান গানের নতুন ধারা তৈরি করেন বলেই তাকে পপ সম্রাট বলা হয়ে থাকে। তার প্রতিটি গানের পিছনে একটি করে গল্প আছে। যা বাংলাদেশে ব্যতিক্রমী। তার স্নেহময়ী মাতাও ছিলেন একজন কণ্ঠশিল্পী। এরপর জনাব সলিমুল্লাহ কাজল আজম খানের বিখ্যাত গানগুলোর পেছনের গল্প দর্শক-শ্রোতাদের মাঝে উপস্থাপন করলে দর্শক-শ্রোতা মুগ্ধ হয়ে শোনেন এবং বিনম্র চিত্তে আজম খানের প্রতিশ্রদ্ধা জানান।’

মীর রেজাউল করিম রেজা বলেন, ‘আজম খান এমনই একজন ব্যক্তি যিনি গানের মাধ্যমে বাংলাদেশিদের মাঝে অনেকদিন বেঁচে থাকবেন। তিনি সবসময় বাংলাদেশকে ভালোবাসতেন এবং বাংলা গানই গেয়েছেন। পাশ্চাত্যের কিংবা ভারতীয় আকাশ সংস্কৃতির কোনো হাওয়া আজম খানকে দোলা দেয়নি।’

এজেডএম জালাল বলেন, ‘যে দুই মহান ব্যক্তিকে নিয়ে আজকের এই শ্রদ্ধাঞ্জলি সভা তারা বাংলার আকাশে জ্বল জ্বল নক্ষত্র হয়ে থাকবেন যতদিন বাংলাদেশ নামক ভূখ-টি পৃথিবীর মানচিত্রে থাকবে। একজন গানের মাধ্যমে এবং অন্যজন চিত্রকলার মাধ্যমে দেশকে পরিচিত করেছেন। দুজনই শিল্পী সমাজের লোক হলেও নির্লোভ এবং নিরহংকারী এবং বিনয়ী ছিলেন। অন্যের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতেন। আজম খান বাংলাদেশকে খুব বেশি ভালোবাসতেন বলেই তার গানের কথা ছিল আমি বাংলাদেশের আজম খান বাংলাতে গাই পপ গান, জারি, সারি ভাটিয়ালি সব এক মায়ের সন্তান। তিনি পপ সঙ্গীত শিল্পী হলেও অন্যান্য গানের প্রতি সম্মান দেখানো এবং সব ধরনের বাংলা গানকে একই শিকড়ে বাঁধা আখ্যায়িত করে একজন বিনয়ীও বড় মাপের পরিচয় দিয়েছে। আমি তাদের আত্মার শান্তি কামনা করছি।’

কণ্ঠশিল্পী যেরম গোমেজ বলেন, ‘আজম খান বুঝিয়ে দিয়েছেন সঙ্গীতে কোনো বিরোধিতা করা ঠিক নয়। সঙ্গীত সার্বজনীন। গুণীজনদের সম্মান দেয়া জাপান প্রবাসীদের একটি মহত্ত্বের পরিচয়। বিশেষ করে সাপ্তাহিক সবসময় এই মহৎ উদ্যোগ নিয়ে থাকে। এই জন্য সাপ্তাহিককে ধন্যবাদ জানাই।’

আলমগীর হোসেন মিঠু বলেন, ‘আজম খান একজন গুণী শিল্পী ছিলেন। বাংলা গানকে তিনি বিশ্বে পরিচয় করিয়েছেন। মোহাম্মদ কিবরিয়া তার শিল্পকলা দ্বারা এই জাপানেও বাংলাদেশের মান উঁচু করেছে। তিনি জাপান থেকে প্রতিযোগিতায় প্রথম হয়ে নিজ দেশের জন্য বিরল সম্মান এনেছিলেন। আমি তাদের উভয়ের বিদেহী আত্মার শান্তি কামনা করি।’

গোলাম ফারুক মেনন বলেন, ‘আমি আসলে পপসঙ্গীত সম্পর্কে সম্যক ধারণা রাখতাম না। তবে আজম খানের মৃত্যুর পর কেন জানি তার গানের ভক্ত হয়ে যাই নিজের অজান্তে। তার গান আসলে বাস্তব কথা বলে।’
ফজলে মাহমুদ মুক্তা বলেন, ‘এমন একটা মহতী আয়োজনের জন্য প্রথমেই সাপ্তাহিক পাঠক ফোরামের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাই। ছোটবেলা থেকেই আমি আজম খানের গানের মধ্যে ডুবে থাকতাম। আজ তার মহাপ্রয়াণ আমার হৃদয়টিকে শূন্য করে দিয়েছে। আমি তার আত্মার শান্তি কামনা করি। তিনি সফল মুক্তিযোদ্ধা ছিলেন।’

তসলিম উদ্দিন তার বক্তব্যে বলেন, ‘স্বনামধন্য ব্যক্তিদের মৃত্যুর পর আমরা শোকসভা করে থাকি। শুধু শোকসভা নয়, তাদের স্মৃতি ধরে রাখার জন্য আমরা কোনো উদ্যোগ নিতে পারি কিনা ভেবে দেখতে হবে।’

রফিক উদ্দিন ফরাজী বলেন, ‘আজম খান এমনই একজন শিল্পী ছিলেন যার গান থেকে গুলি বের হতো। দুই ভুবনের দুই শিল্পী তাদের শিল্পকর্মের দ্বারা বাংলাদেশকে পরিচিত করেছেন এই জন্য আমরা চির কৃতজ্ঞ।’
জাপান ফরেন প্রেসক্লাবের প্রাক্তন সভাপতি সাংবাদিক মনজুরুল হক বলেন, ‘প্রথমেই আমি সাপ্তাহিক পাঠক ফোরামকে ধন্যবাদ জানাই। আজম খান ছিলেন একজন প্রগতিশীল স্মার্ট মানুষ। স্বাধীনতা যুদ্ধে তার অবদান অপরিসীম। নিজ জীবন বাজি রেখে তিনি যুদ্ধ করে স্বাধীনতা ছিনিয়ে এনেছেন। কিন্তু স্বাধীন দেশে নানা অনিয়ম দেখে সার্বিকভাবে নিজেকে গুটিয়ে নিয়ে গানের মাধ্যমে অনিয়মগুলো তুলে ধরেছেন সুনিপুণভাবে।

চিত্রশিল্পী মোহাম্মদ কিবরিয়া সাহেবের একটি সাক্ষাৎকার নিয়েছিলাম এই জাপানে। ২০০২ সালে। তিনি কথা বলতেন কম, কাজ করতেন বেশি। তার সহকর্মী শিল্পীরা অনেক প্রশংসা করতেন অবলীলায় যা বর্তমান সমাজে বিরল। তিনি ১৯৫৯ সালে জাপানে এসে মাস্টার্স করেছেন। তিনি শিল্পাচার্য জয়নুল আবেদীনের অনুপ্রেরণায় জাপান এসেছিলেন। সারাজীবন তিনি একজন সাদামাটা মানুষের জীবনযাপন করেছেন, যা তার কাজের মধ্যেও লক্ষণীয়।’

দূতাবাসের ইকোনমিক মিনিস্টার একেএম মানজুরুল হক বলেন, ‘বাংলাদেশের দুই দিকপালের মৃত্যুতে আমি শোকাহত এবং তাদের উভয়ের প্রতি শ্রদ্ধা, আত্মার শান্তি কামনা করি। আজম খানের গানের সঙ্গে আমরা কম-বেশি সবাই পরিচিত। কিন্তু কিবরিয়া সাহেবের চিত্রকর্মের অনেকেই পরিচিত নই। তবে ব্যক্তিগতভাবে আমি কিবরিয়া সাহেবের চিত্রকর্মের সঙ্গে পরিচিত ছিলাম। তিনি একজন উচ্চমানের শিল্পী ছিলেন। বাইরের চাকচিক্য তাকে কাছে টানত না। কাজ নিয়েই সবসময় ব্যস্ত ছিলেন। ছিলেন প্রচারবিমুখ। বাংলাদেশের বর্তমান চিত্রশিল্পীদের অনেকেই তার ছাত্র। তিনি শিল্পীদের শিল্পী ছিলেন। আজম খান যেমন গুরুদের গুরু তেমনি কিবরিয়া সাহেবও শিল্পীদের শিল্পী।’

রাষ্ট্রদূত একেএম মজিবুর রহমান ভূঁইয়া বলেন, ‘আমি প্রথমেই জাপান প্রবাসীদের এবং সাপ্তাহিককে আমার নিজ এবং দূতাবাসের পক্ষ থেকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি ত্বরিত এবং গোছালো এরকম একটি অনুষ্ঠান আয়োজন করার জন্য। আপনারা জানেন আজ আমরা যাদের হারিয়ে এখানে সমবেত হয়েছি তাদের স্থান পূরণ হওয়ার নয়। স্ব স্ব ক্ষেত্রে তারা স্বমহিমায় উজ্জ্বল ছিলেন। শিল্পী মাত্রই মানুষকে ও সমাজকে ভালো পথ দেখায়। তারা দুজনেই তাই করেছেন। তারা একই সঙ্গে সাধারণ মানুষ হয়েও আবার অসাধারণ ছিলেন। এখানেই মানবজীবনের সার্থকতা। তাদের জীবনও সার্থক তারা দুজনেই ভিন্ন মাত্রার কাজ করেছেন। একজন সরবে এবং অন্যজন নীরবে। আজম খান মহান মুক্তিযুদ্ধেও অংশ নিয়েছিল মাত্র ২১ বছর বয়সে। দেশের জন্য অস্ত্র ধরেছেন। যুদ্ধ জয় করে হাতের অস্ত্র ছেড়ে গলার অস্ত্র দিয়ে দেশের মানুষের গানের চাহিদা পূরণ করেছেন। আর শিল্পী মোহাম্মদ কিবরিয়ার অস্ত্র ছিল রং-তুলি। রংতুলির কাজ করে তিনি বিশ্বে বাংলাদেশের লাল সবুজের পতাকার মান উপরে তুলেছেন। আমি এই দুই গুণী শিল্পীর বিদেহী আত্মার শান্তি কামনা করি এবং আয়োজকদের আবার ধন্যবাদ জানাই।’

সাপ্তাহিক পাঠক ফোরাম জাপান-এর সভাপতি ছড়াকার, লেখক বদরুল বোরহান উপস্থিত সবাইকে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, ‘আমাদের সঙ্গে একাত্মতা প্রকাশ করার জন্য আমরা আপনাদের কাছে কৃতজ্ঞ। সাপ্তাহিক সবসময় প্রবাসীদের প্রাধান্য দিয়ে থাকে সেই সঙ্গে গুণীজনদেরও সম্মানিত করে।’

গুরু আজম খানের প্রতি সম্মান জানিয়ে সাংস্কৃতিক সংগঠন উত্তরণ আজম খানের গাওয়া জনপ্রিয় গানগুলো গেয়ে শোনালে উপস্থিত দর্শক-শ্রোতা আবেগে আপ্লুত হয়ে পড়ে এবং দাঁড়িয়ে উত্তরণের সঙ্গে কণ্ঠ মেলান। পুরো হল তখন স্টেজ হয়ে যায়। তখন আর কেউ শ্রোতা থাকতে চাননি, সবাই যেন গায়ক, গুরু আজম খানের ভক্ত, শিষ্য।

সহযোগিতায় : সজল বড়–য়া
ছবি : রাহমান আশিক

Leave a Reply