বনানী থেকে লুট হওয়া স্বর্ণের ভাগাভাগি হয়েছে মুন্সীগঞ্জ পুলিশ ফাঁড়িতে

রাজধানীর বনানী থেকে লুট হওয়া স্বর্ণের ভাগবাটোয়ারা হয়েছে মুন্সীগঞ্জ জেলা সদরের পুলিশ ফাঁড়িতে। পুলিশ ও ডাকাতের ভাগবাটোয়ারা শেষে পুলিশের গাড়িতেই ডাকাত দলের এক সদস্যের পালানোর ঘটনা ঘটেছে। এ অভিযোগের সত্যতা খুঁজে পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে জড়িত পুলিশ কর্মকর্তাকে বরখাস্ত করা হয়েছে। র‌্যাব ও পুলিশের হাতে সংঘবদ্ধ ডাকাত দলের ৯ সদস্য গ্রেপ্তারের পর গতকাল এসব তথ্য ফাঁস হয়েছে।

পরে একই ঘটনায় গ্রেপ্তারকৃতদের নিয়ে র‌্যাব ও মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের পৃথক দু’টি সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। বিকাল ৩টায় রাজধানীর মিন্টু রোডস্থ গোয়েন্দা কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে গোয়েন্দা পুলিশের ডিসি (উত্তর) মো. মাহবুবুর রহমান বলেন, মুন্সীগঞ্জ জেলা হাইওয়ে পুলিশ সার্জেন্ট বুলবুলের কাছ থেকে লুট হওয়া স্বর্ণের এক ভাগ উদ্ধার করা হয়েছে। এ অভিযোগে ওই পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। তাকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। তবে জড়িত অন্য কোন পুলিশ সদস্যকে এখন পর্যন্ত শনাক্ত করা সম্ভব হয়নি। তিনি বলেন, বনানী নিউ হীরা জুয়েলার্সে চাঞ্চল্যকর স্বর্ণ ডাকাতির সঙ্গে জড়িত ৪ জনকে গ্রেপ্তার করেছে গোয়েন্দা পুলিশ। তাদের কাছ থেকে প্রায় ৫০ ভরি স্বর্ণালঙ্কার উদ্ধার করা হয়েছে। বাকি স্বর্ণ উদ্ধারের চেষ্টা চলছে। গোয়েন্দাদের হাতে গ্রেপ্তারকৃতরা হচ্ছে- ডাকাত সর্দার ইয়াকুব, আমির, মিলন ও স্বর্ণ ক্রেতা চান্দু কর্মকার। গোয়েন্দারা দাবি করেছেন, বুধবার দিবাগত রাত ২টার দিকে রাজধানীর শেওড়াপাড়া, বাকেরগঞ্জ ও বরগুনা জেলা থেকে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়।

এ সময় তাদের কাছ থেকে আনুমানিক ৫০ ভরি স্বর্ণালঙ্কার, ১টি পিস্তল, ১টি সিএনজি, ২টি চাপাতি, ১টি দা ও স্বর্ণালঙ্কার রাখার কয়েকটি ব্যাগ উদ্ধার করা হয়েছে। গোয়েন্দা পুলিশের দু’টি দল অভিযান চালিয়ে প্রথমে বরগুনা জেলার পরীর খাল থেকে ডাকাত সর্দার ইয়াকুব, কাকছিড়া এলাকা থেকে চান্দু কর্মকার, বরিশালের বাকেরগঞ্জ থেকে আমির হামজা ও রাজধানীর শ্যাওড়াপাড়া থেকে মিলনকে গ্রেপ্তার করে। এর আগে সকাল ১১টায় র‌্যাব সদর দপ্তরে অনুষ্ঠিত অপর সংবাদ সম্মেলনে র‌্যাবের লিগ্যাল অ্যান্ড মিডিয়া উইংয়ের পরিচালক কমান্ডার এম সোহায়েল বলেন, বনানীর নিউ হীরা জুয়েলার্সে ডাকাতির সঙ্গে জড়িত ৫ জনকে বুধবার সন্ধ্যায় গ্রেপ্তার করা হয়েছে। গ্রেপ্তারকৃতরা হলো- সিএনজি চালক সগির (২৬), জুয়েল মৃধা (২৬), কবির হোসেন (৩৮), ফারুক সিকদার (৪৫) ও রোকেয়া বেগম (৫৫)। গ্রেপ্তারের সময় তাদের কাছ থেকে ৭০ ভরি স্বর্ণালঙ্কার ও ডাকাতি হওয়া স্বর্ণ বিক্রয়ের ২,২৪,৯১৭ টাকা উদ্ধার করা হয়।

র‌্যাবের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে সগির, জুয়েল ও ফারুক সিকদার ডাকাতির কথা স্বীকার করেছে। একই সঙ্গে সংবাদ সম্মেলনে ডাকাতির কথা স্বীকার করে ডাকাত জুয়েল জানায়, ডাকাতি করা স্বর্ণ ১৪ ভাগ হয়েছে। তার নিজের ভাগ নিয়ে পালানোর সময় মুন্সীগঞ্জ জেলা সদরের পুলিশ ফাঁড়ি ইনচার্জের হাতে ধরা পড়ে। পুলিশের ওই কর্মকর্তা স্বর্ণালঙ্কারসহ তাকে আটক করে ফাঁড়িতে নিয়ে যায়। স্মাগলিংয়ের স্বর্ণ মনে করে তার কাছে ৫ লাখ টাকা দাবি করে। পরে ৪ লাখ টাকা মূল্যের স্বর্ণালঙ্কার দিয়ে তার কাছ থেকে সে ছাড়া পায়। পরে ফাঁড়ি থেকে বের হওয়ার পর আরও দু’পুলিশ সদস্য দ্বিতীয় দফায় পাকড়াও করে। তারাও তাদের ভাগের অংশ দাবি করে। পরে ওই দু’পুলিশ সদস্যকে দু’টি স্বর্ণের চেইন দিয়ে ছাড়া পায়।

এ সময় ফাঁড়ির পুলিশ সদস্যরা পুলিশের একটি গাড়ি দিয়ে তাকে রাজধানীর গাবতলীতে নামিয়ে দেয়। র‌্যাবের গোয়েন্দারা জানান, স্বর্ণালঙ্কারসহ ডাকাত জুয়েল পুলিশ সার্জেন্টের হাতে ধরা পড়ার পর পুরো বিষয়টি তারা নজরদারি করেন। ফাঁড়িতে ভাগাভাগিসহ পুলিশের গাড়িযোগে গাবতলীতে আসা পর্যন্ত সবকিছুই তাদের নজরে ছিল। একপর্যায়ে পুলিশের গাড়ি থেকে নামার পর পরই জুয়েলকে তারা গ্রেপ্তার করেছে। ডাকাত জুয়েল আরও জানায়, তারা পেশাদার ডাকাত। দীর্ঘদিন ধরে এ পেশায় যুক্ত। নিউ হীরা জুয়েলার্সের দোকানে ডাকাতির এক মাস আগে থেকেই পরিকল্পনা হয়েছে। এজন্য মিরপুর শেওড়াপাড়ায় একটি মেস ভাড়া নেয়া হয়েছিল। ২৪শে জুন পূর্ব পরিকল্পনা অনুযায়ী দু’টি সিএনজি যোগে ৯ জন বনানীর ইকবাল সেন্টারের সম্মুখে নামে। সিএনজি চালকদের সিটে বসিয়ে রেখে তারা ৩টি চাপাতি, একটি দেশী বন্দুক, একটি রিভলবার ও একটি পিস্তল নিয়ে ‘নিউ হীরা জুয়েলার্সে’ ঢুকে পড়ে। অস্ত্র উঁচিয়ে দোকানের সব কর্মচারীকে জিম্মি করে ফেলে।

পরে ১০-১২ মিনিটের মধ্যে প্রায় হাজার ভরি স্বর্ণালঙ্কার নিয়ে পালিয়ে যায়। প্রথমে মিরপুরস্থ শেওড়াপাড়ার বাসায় যায়। সেখানে ডাকাতিকৃত স্বর্ণালঙ্কার ১৪টি ভাগে ভাগ করে এবং নিজেদের অংশ নিয়ে বিভিন্ন স্থানে পালিয়ে যায়। এ সময় তাদের সঙ্গে ছিল ইয়াকুব, ফারুক, সগীর (ড্রাইভার), মিলন (ড্রাইভার) জুয়েল, আমীর, কালু, আজিজ ও বুর্গিয়া। র‌্যাবের জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেপ্তারকৃতরা জানায়, জুয়েল ও ফারুক সিকদার তাদের সর্দার। আগেও তারা কয়েকটি ডাকাতির ঘটনা ঘটিয়েছে। জুয়েল একটি ডাকাতির মামলার সাজাপ্রাপ্ত আসামি। ৪ বছর ১৯ দিন জেল খেটেছে। অন্যদিকে ফারুক সিকদার প্রায় ৫ বছর কারাভোগ করে ফের ডাকাতির পেশায় নেমে পড়েছে। উল্লেখ্য, গত ২৪শে জুন রাজধানী বনানীর ইকবাল সেন্টারের গ্রাউন্ড ফ্লোরে অবস্থিত নিউ হীরা জুয়েলার্স থেকে ১১৬৬ ভরি স্বর্ণালঙ্কার লুট হয়েছিল। এ ঘটনায় দোকানের মালিক মোশাররফ হোসেন গুলশান থানায় মামলা করেন।

Leave a Reply