আলুর ফলন ও দাম কম, দিশাহারা কৃষক

গত কয়েক বছর আলুতে লোকসান খেয়ে এবার আশায় বুকবেঁধে আলু চাষে মাঠে নেমেছিলেন মুন্সীগঞ্জের কৃষকরা। এবারো ফলন ও দাম দুটোই খারাপ হওয়ায় দিশেহারা হয়ে পড়েছেন অনেক ঋণগ্রস্ত কৃষক।

রোপণ মৌসুমের প্রথম দিকে সারের দাম কম হলেও পরে সার ব্যবসায়ীরা সরকারের নির্ধারিত মূল্যের বাইরে চড়া দামে সার বিক্রি করেছে। তাছাড়া কীটনাশকের দাম ও কৃষি শ্রমিকের মজুরি বেশি হওয়ায় জমিতেই প্রতি মণ আলুর মূল্য পড়েছে ৫০০ টাকা। অসময়ে বৃষ্টি হওয়ায় কোনো কোনো আবাদি জমির মাটি জমাটবেঁধে গিয়ে আলুর ফলন কম হয়েছে বলেও ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকরা জানিয়েছেন। ওই বৃষ্টির কারণে সময় মতো সেচ কাজে বাধাগ্রস্ত হয়েছে। তাতে আলু আকারে বড় না হওয়ায় উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা অর্জন সম্ভব হয়নি।

স্থানীয় আলুচাষিদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, এ বছর চীন থেকে আমদানি করা ভেজাল সারের কারণে অনেক আলুর জমিতে অর্ধেক ফসল হয়েছে। জেলা কৃষি সমপ্রসারণ অধিদফতরের উপসহকারী কৃষি অফিসার মিয়া আল মামুন দৈনিক ডেসটিনিকে জানিয়েছেন, গত বছরের তুলনায় এ বছর মুন্সীগঞ্জের ৬টি উপজেলায় ৩ হাজার হেক্টর কম জমিতে আলু চাষ করা হয়েছে। মুন্সীগঞ্জের ৬টি উপজেলায় এ বছর ৩৫,৫৭৬ হেক্টর জমিতে আলুর আবাদ হয়েছে বলে জানিয়েছেন জেলা কৃষি সমপ্রসারণ অধিদফতর। এতে মুন্সীগঞ্জ সদরে ৮,৯৫৫, টঙ্গীবাড়ীতে ৯,২০০, গজারিয়ায় ২,১০০, লৌহজংয়ে ৪,১৫০, শ্রীনগরে ২,৫০০ ও সিরাজদিখান উপজেলায় ৮,৬৭১ হেক্টর জমিতে আলুর আবাদ করা হয়েছে।

৩৫,৫৭৬ হেক্টর আবাদি জমিতে আলু উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৬,৩২০৭০ মেট্রিক টন। কৃষি অধিদফতরের বক্তব্য অনুযায়ী মুন্সীগঞ্জ সদরে ১,৫০,১৪৭, গজারিয়ায় ৬৩,৩১৫, টঙ্গীবাড়ীতে ১,৪৫,৩৭১, লৌহজংয়ে ৭৭,৭৮৭, শ্রীনগরে ৪৫,২২৫ এবং সিরাজদিখান উপজেলায় ১,৫০,২২৪ মেট্রিক টন আলু উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ছিল। শতকরা ৯৮ ভাগ ডায়মেন্ট ও ২ ভাগ বেনিলা, ওরিগো ও এসট্রোরিস জাতের আলুর বীজ ৬টি উপজেলায় রোপণ করা হয়েছিল। ৬টি উপজেলায়ই আলুর ফলন ভালো হয়নি বলে চাষিরা আক্ষেপ করে বলেন, এমনিতেই আবহাওয়া অনুকূলে ছিল না তারপর আবার ভেজাল সারের কারণে আলুগাছ ভালো না হওয়ায় ফলন আকারে ছোট ও কম হয়েছে।

জেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা গেছে, জেলার ৬টি উপজেলায়ই লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে এ বছর কম আলু উৎপাদন হয়েছে।

সিরাজদিখান উপজেলার মালখানগরের কৃষক মো. হোসেন জানান, আলুর ফলন কম হয়েছে তার সঙ্গে বাজার দর কম হওয়ায় আগামীতে আলু চাষে চাষিরা উৎসাহ হারাবেন। অপরদিকে কৃষকরা অধিক ভাড়া জেনে দাম পাওয়ার আশায় হিমাগারে আলু রাখার মনোবলও হারিয়েছেন।

খান আবু বকর সিদ্দীক, টঙ্গীবাড়ী

Leave a Reply