কালো পর্দাই কাল হয়ে দাঁড়ায় লঞ্চ যাত্রীদের জন্য…

ঠান্ডা বাতাস থেকে যাত্রীদের রক্ষার জন্য লঞ্চটির চারদিকে শক্ত করে বেঁধে দেওয়া মোটা কালো কাপড়ের পর্দাই কাল হয়ে দাঁড়ায় লঞ্চ যাত্রীদের জন্য। নিমজ্জিত লঞ্চ থেকে সাঁতরে তীরে উঠতে গিয়ে কালো পর্দার বাধার সম্মুখীন হয়ে অনেকেই বের হতে পারেননি বলে ধারণা উদ্ধারকারী ডুবুরিদের।

তাদের ধারণা, ওই পর্দা না থাকলে যাত্রীদের অনেকেই হয়তো সাঁতরে তীরে উঠতে পারতেন।

এছাড়া জানালার পাশে স্তূপ করে রেখে দেওয়া মরিচের বস্তাসহ অন্যান্য মালামালও যাত্রীদের বের হওয়ার ক্ষেত্রে বাধার সৃষ্টি করেছে বলে জানান ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরি আলাউদ্দিন।

গত সোমবার দিনগত রাত ২টার দিকে শরীয়তপুর থেকে ঢাকাগামী লঞ্চ এমভি শরীয়তপুর-১ মুন্সীগঞ্জের গজারিয়া উপজেলার উত্তর চরমসুরা এলাকায় একটি তেলবাহী জাহাজের ধাক্কায় মেঘনা নদীতে ডুবে যায়।

বুধবার বিকেল ৫টা পর্যন্ত ডুবে যাওয়া লঞ্চ থেকে ১১০ মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়।

দুর্ঘটনার ৩২ ঘণ্টা পর ডুবে যাওয়া লঞ্চটি উদ্ধারকারী জাহাজ রুস্তম ও হামজার যৌথ প্রচেষ্টায় বুধবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে তীরের কাছে টেনে আনা হয়।

রিয়াজ রায়হান, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

Leave a Reply