রুপালী ব্যাংকের ৫ কর্মকর্তাসহ ১০ জনের বিরুদ্ধে দুদকের চার্জশীট দাখিল

মোজাম্মেল হোসেন সজল: ২০ লাখ ৭০ হাজার টাকা আতœসাতের অভিযোগে মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার মীরকাদিম পৌর শাখা রুপালী ব্যাংকের ৫ কর্মকর্তাসহ ১০ জনের বিরুদ্ধে মুন্সীগঞ্জ জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে পৃথক তিনটি চার্জশীট দাখিল করেছে দুর্নীতি দমন কমশন।

এর দু’টি সম্পুরক ও অপরটি মূল চার্জশীট হিসেবে মুন্সীগঞ্জের চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে দুদকের সমন্বিত জেলা কার্যালয় ঢাকা-২’র সহকারী পরিচালক এম. এইচ. রহমতউল্ল­াহ। মুন্সীগঞ্জ সদর থানায় ২০০৯ সালের ৬ ডিসেম্বর দায়ের করা ব্যাংকের অর্থ-আতœসাতের মামলায় দীর্ঘ তদন্ত শেষে গত ২৩ আগস্ট আদালতে এ চার্জশীট দায়ের করেন। দুদকের নিযুক্ত তদন্তকারী কর্মকর্তা ও ঢাকা-২’এর সহকারী পরিচালক এম এইচ রহমতউল্ল­াহ গতকাল শনিবার সন্ধ্যায় জাস্ট নিউজকে এক মেসেজে বার্তায় এ তথ্য জানিয়েছে। সে সময় রুপালী ব্যাংক মীরকাদিম শাখার ম্যানেজার মো. মোস্তফা হামিদ সদর থানায় এ মামলাটি দায়ের করেন।

তৎকালীন সময়ে অর্থ আতœসাতের সঙ্গে জড়িত একাধিক ব্যাংক কর্মকর্তা ও গ্রাহকের নাম বাদ দিয়ে কেবলমাত্র অফিসার আবদুল আজিজ খন্দকার ও অফিসার রবীন্দ্র কুমার দাসের বিরুদ্ধে এই মামলা দায়ের করা হয়। এতে দুদক এ মামলার তদন্তে নামে। দুদক সূত্রে জানা যায়, রূপালী ব্যাংক লি: মীরকাদিম শাখার ম্যানেজার মো. মোস্তফা হামিদের দায়েরকৃত মামলাটি তদন্তের জন্য দুর্নীতি দমন কমিশনে প্রেরণ করা হলে দুর্নীতি দমন কমিশন, সমন্বিত জেলা কার্যালয়, ঢাকা-২ এর সহকারী পরিচালক এম. এইচ. রহমতউল্লাহ মামলাটি তদন্ত করেন। দুদকের তদন্তে দেখা গিয়েছে, রূপালী ব্যাংক লি: মীরকাদিম এর তৎকালীন ম্যানেজার মো. সাহাবুদ্দিন (বর্তমানে ম্যানেজার, সদরঘাট শাখা, ঢাকা), ম্যানেজার ননী গোপাল দাস (বর্তমানে প্রিন্সিপ্যাল অফিসার, এসকে রোড কর্পোরেট শাখা, নারায়ণগঞ্জ), সেকেন্ড অফিসার মো. আকরাম হোসেন খান (বর্তমানে অফিসার, বাংলাবাজার শাখা, নারায়ণগঞ্জ) ও কয়েকজন গ্রাহক এই অর্থ আত্মসাতের সাথে জড়িত থাকলেও তাদেরকে বাদ দিয়ে ব্যাংক কর্তৃক মামলা করা হয়েছিল।

এতে দুদক তদন্ত শেষে আসামী আব্দুল আজিজ খন্দকার, রবীন্দ্র কুমার দাস, নারায়ণ সূত্রধর ও অজয় সূত্রধর ২০০৮ ১ জানুয়ারি থেকে ৩১ ডিসেম্বরের মধ্যে একে অপরের সহযোগিতায় ইচ্ছাকৃতভাবে ব্যাংকের হিসাবপত্র বিকৃত ও পরিবর্তন করে রূপালী ব্যাংক লিঃ মীরকাদিম শাখার ৩৪৩৩ নং সঞ্চয়ী হিসাবের গ্রাহক আসামী অজয় সূত্রধর ও আসামী নারায়ণ সূত্রধরের হিসাবের বিপরীতে কোন টাকা জমা না হওয়া সত্তেও লেজারে মিথ্যা ৩ লাখ টাকা জমা দেখিয়ে উক্ত টাকা চেকমূলে উত্তোলন করে নিয়ে যান। আবার ৪১৩৭ নং সঞ্চয়ী হিসাবের গ্রাহক আ. ছামাদের জমাকৃত ১ লাখ ৩০ হাজার টাকা তার হিসাবে জমা না করে মোট ৪ লাখ ৩০ হাজার টাকা আত্মসাৎ করে অসাধুভাবে লাভবান হয়েছেন-মর্মে প্রথম সম্পুরক চার্জশীট দায়ের করেন।

এছাড়া দ্বিতীয় সম্পূরক চার্জশীটে বলা হয়েছে যে, ২০০৯ সালের ১ জানুয়ারি থেকে ৫ ডিসেম্বরের মধ্যে বিভিন্ন সময়ে অফিসার আব্দুল আজিজ খন্দকার ও রবীন্দ্র কুমার দাস একে অপরের সহযোগিতায় রূপালী ব্যাংক লি: মীরকাদিম শাখা, মুন্সীগঞ্জ এর ৪৭০৩ নং সঞ্চয়ী হিসাবের গ্রাহক ফাতেমা বেগমের জমাকৃত ১ লাখ ৫০ হাজার টাকা তার হিসাবে জমা না দিয়ে আত্মসাত করেছেন। এই সম্পূরক চার্জশীটে আরো বলা হয়েছে যে, সাক্ষী অফিসার অসীম কুমার সরকারের বক্তব্যে প্রকাশ পায়, ২০০৯’র আগস্টে বিভিন্ন লেজারের ব্যালেন্সিং করার সময় লেজারের সাথে চেক লেজারের ব্যালান্সের অসামঞ্জস্যতা লক্ষ্য করে তিনি তৎকালীন ম্যানেজার ননী গোপাল দাসকে বিষয়টি অবহিত করেন।

কিন্তু ননী গোপাল দাস এই গুরুতর অপরাধের ঘটনা ব্যাংকের উর্ধতন কর্তৃপক্ষকে কিংবা কোন আইন প্রয়োগকারী সংস্থাকে না জানিয়ে সেকেন্ড অফিসার মোঃ আকরাম হোসেন খান, অফিসার রবীন্দ্র কুমার দাস, অফিসার আব্দুল আজিজ খন্দকার প্রমুখসহ নারায়ণগঞ্জের জামতলায় একটি চায়ের দোকানে বসেন এবং সাক্ষী অসীম কুমার সরকারকে সেখানে ডেকে নিয়ে যান। সেখানে আসীম কুমার সরকারের হাতে আসামী আব্দুল আজিজ খন্দকারের একটি স্বীকারোক্তিমূলক অঙ্গীকারনামা লেখানো হয় যাতে আব্দুল আজিজ খন্দকার স্বাক্ষর করেন।

উক্ত অঙ্গীকারনামায় আসামী আব্দুল আজিজ খন্দকার তার আত্মসাৎকৃত ১১ লাখ ৬৬ হাজার টাকার মধ্যে অর্ধেক টাকা ২০০৯ সালের ১৫ নভেম্বরের মধ্যে এবং সম্পূর্ণ টাকা ২০০৯ সালের ৩০ নভেম্বরের মধ্যে জমা দেয়ার অঙ্গীকার করেন। এরপর একই সালের ৫ ডিসেম্বর পর্যন্ত ব্যাংকের ওই শাখায় ম্যানেজার হিসেবে কর্মরত থাকলেও আসামী ননী গোপাল দাস বিষয়টি সম্পর্কে উর্ধতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করেননি কিংবা কোন আইনগত কার্যক্রম গ্রহণ করেননি। এতে স্পষ্টতঃই প্রতীয়মান হয় যে, তদন্তে আগত আসামি ননী গোপাল দাস এই ভয়ানক অনিয়ম ও আত্মসাতের ঘটনা উপযুক্ত কর্তৃপক্ষকে না জানিয়ে সাক্ষ্য-প্রমাণ অপসারণের চেষ্টা করেছেন যা সুস্পষ্টরূপে পাবলিক সার্ভেন্ট হিসেবে অপরাধমূলক বিশ্বাস ভঙ্গ। দন্ড বিধির ৪০৯/৪৭৭ক/১০৯ ধারা তৎসহ ১৯৪৭ সনের দুর্নীতি প্রতিরোধ আইনের ৫(২) ধারায় সর্বমোট ২০ লাখ ৭০ হাজার টাকা আত্মসাতের দায়ে এ চার্জশীট দাখিল করা হয়।

মানবজমিন ও জাস্ট নিউজ

Leave a Reply