মুন্সীগঞ্জে আওয়ামী লীগের দু’গ্রুপে বন্দুকযুদ্ধ

আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার চরাঞ্চলের টরকী গ্রামে পুলিশের উপস্থিতিতে আওয়ামী লীগের দুই গ্রুপের মধ্যে গোলাগুলি ও ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া হয়েছে। এ সময় এক আওয়ামী লীগ কর্মীর ২টি বসতঘর ভাঙচুর করা হয়। গোলাগুলির একপর্যায়ে অন্তত ১৫ আওয়ামী লীগ কর্মী গ্রাম থেকে বিতাড়িত হয়েছে। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত গ্রামের প্রয়াত ইউপি চেয়ারম্যান তমিজউদ্দিন মৃধার ছেলে রাজু মৃধা ও আওয়ামী লীগ কর্মী চাচাতো ভাই আবু তাহের গ্রুপের মধ্যে এ সংঘর্ষ হয়।


এ সময় উভয় গ্রুপেই ১৫-১৬ রাউন্ড গুলি বিনিময় হয়। সূত্র জানায়, আওয়ামী লীগ কর্মী রাজু মৃধার লোকজন সদর থানার এসআই মনিরুজ্জামানের নেতৃত্বে ওই সন্ধ্যায় গ্রামে প্রবেশ করে প্রতিপক্ষ আওয়ামী লীগ কর্মীদের লক্ষ্য করে ফাঁকা গুলি ছুড়লে পাল্টা গুলি ছুড়ে আবু তাহের গ্রুপের লোকজন। পুলিশের নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ কর্মী আবদুল বাসেদের ২টি বসতঘরে রাজু গ্রুপের লোকজন ব্যাপক ভাঙচুর করে। এতে পুরো গ্রামে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়লে কয়েকশ’ নারী-পুরুষ প্রতিরোধ গড়ে তুললে বৃহস্পতিবার রাত সোয়া ৯টার দিকে পুলিশ ও আওয়ামী লীগ কর্মী রাজু মৃধার লোকজন গ্রাম ছেড়ে পালিয়ে আসে। এরই মধ্য দিয়ে আওয়ামী লীগের ১৫ নেতাকর্মী গ্রাম থেকে বিতাড়িত হন। এ ব্যাপারে জানতে সদর থানার এসআই মনিরুজ্জামানকে একাধিকবার তার ব্যবহৃত মোবাইল ফোনে কল করা হলেও তিনি ফোনের কল গ্রহণ করেননি। বর্তমানে গ্রামবাসীর মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করছে।

Leave a Reply