জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে ভোগান্তি, প্রকাশ্য ঘুষ লেনদেন

মোঃ আল মামুন: “আগের সিস্টেমই ভাল ছিল, ডিজিটাল সিস্টেমে আরও ঝামেলা বেশি”, এমন করেই ক্ষোভ প্রকাশ করছিলেন সইমুহুরী পর্চা তুলতে আসা আড়িয়ল, টঙ্গিবাড়ির নূর মোহাম্মদ। এক থেকে দেড় মাসে পর্চা তুলে দেখেন তাতে ভুলে ভরা। এমন আরও কয়েকজন একই ধরনের কথা বললেন।

মুন্সীগঞ্জ জেলা প্রশাসকের কার্যালয় থেকে জেলার বিভিন্ন মৌজার সি.এস, এস.এ, আর.এস পর্চা তুলতে এসে ভোগান্তির শেষ নেই। নতুন ডিজিটাল সিস্টেমে একটি সইমুহুরী পর্চা তুলতে সময় লাগে নূন্যতম ৭-১৫ দিন। খরচ লাগার কথা ১২-২২টাকা কিন্তু বাস্তবে এখানে যার কাছ থেকে যেমন রাখা যায় ভঙ্গিতে পর্চা তুলতে টাকা নেয়া হয় আর সময় লাগে এক থেকে দুই মাস। দালাল ছাড়া পর্চা তোলা সাধারণের জন্য সম্ভব হয়না।


কয়েকদিন সরেজমিনে দেখে জানা গেল মানুষের ভোগান্তির বর্ননা। পর্চার দরখাস্ত জমা নেয়া হয় জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের ফ্রন্ট ডেক্সে। সাধারন দরখাস্তকারী হিসেবে অফিস সূত্রে জানা গেল, সাধারন ১২ টাকার কোর্ট ফি দিয়ে দরখাস্ত জমা দিলে ১৫ দিন এবং জরুরী ২২ টাকার কোর্ট ফি দিয়ে দরখাস্ত জমা দিলে ৭ দিনে পর্চা পাওয়া যায়। আইনত এর বাইরে কোন টাকার দরকার হয়না।

দরখাস্ত গ্রহনকারী থেকে জানা গেল, ৭-১৫ দিনের মধ্যে পর্চা ডেলিভারী দেয়ার কথা থাকলেও সম্ভব হয়না। লোকবল সংকট ও অদক্ষতা এর প্রধান কারণ। ৬ টি উপজেলার পর্চা কম্পোজ করা হয় ৪ টি কম্পিউটারে। তার মধ্যেও দুই-একটা প্রায় নষ্ট হয়ে পড়ে থাকছে, থাকেনা প্রিন্টারের কালিও। সরকারী বরাদ্দের উপর ভিত্তি করে এত পর্চা ডেলিভারী দেয়া সম্ভবনা তাই উপরি টাকা নেয়া হয়। তাছাড়া সব টেবিলেই নির্দিষ্ট হারে টাকা দিতে হয়। “ভাই, অতিরিক্ত টাকা ছাড়া আপনি সময়মত পর্চা পাবেন না” আন্তরিকভাবে পরামর্শ দিচ্ছিলেন অফিসের এই কর্মচারী।

পর্চার দরখাস্তকারীদের সাথে কথা বলে জানা গেল ডিজিটাল সিস্টেমের আগে একটি সইমুহুরী পর্চা তুলতে লাগত সাধারনভাবে এক সপ্তাহ তবে জরুরী ভিত্তিতে একদিনেই উঠানো সম্ভব ছিল। সরকারী খরচ ও উপরি সহকারে টাকাও লাগত কম। এখন নূন্যতম ৭ দিন বললেও এক থেকে দেড় মাসের আগে পর্চা হাতে পাওয়া সম্ভবনা। অফিস ম্যানেজ করে টাকা লাগে উপরি সহ পর্চাপ্রতি নূন্যতম ৩০০- ৫০০ টাকা বা তারও বেশী। জরুরীভাবে তোলার ব্যাবস্থা নাই। ভুল পর্চার সংশোধনের কোন ব্যাবস্থা নেই। ভুল সংশোধন করতে নতুন করে আবার দরখাস্ত জমা দিয়ে ও উপরি খরচ দিয়ে নতুন পর্চা তুলতে হয়। সেক্ষেত্রে এক পর্চায় টাকা লাগে দ্বিগুন।

অগণিত ভুল দেখা গেল এখানে। টঙ্গিবাড়ির নূর মোহাম্মদ তার উত্তেলন করা কিছু ভুল পর্চার বর্ননা দিলেন। সময়মত পর্চা না পেয়ে রেকর্ডরুমের অফিস কর্মচারীদের সাথে জনসাধারনের কথা কাটাকাটি, উচ্চ বাক্য বিনিময় আর হই-হট্টোগল যেন একটি সাধারন বিষয়। কর্মকর্তারাও এসব নিয়ে মাথা ঘামায় না।

পর্চা তুলতে এখন দালাল ছাড়া উপায় নাই। দালালের কাছে জিম্মি এখানে সুবিধা নিতে আসা মানুষ। যার কাছ থেকে যেমন পারে তেমনই পর্চা তুলতে টাকা রাখছে। কখনও টাকা নিয়ে পর্চার দরখাস্তও জমা দিচ্ছেন না। প্রতারিত লোকজন প্রতিবাদও করতে পারেন না কারন এখানকার দালালদের একতা খুব শক্তিশালী। দালালদের সাথে অফিসের যোগাযোগ ভাল। জেলার বিভিন্ন স্থান থেকে আসা লোকজন ভোগান্তি থেকে বাঁচতে অতিরিক্ত টাকা দিয়ে যে কোন এক দালালের কাছেই পর্চা তুলতে দিচ্ছে।

একজন দালালের সাথে কথা বলে জানা গেল, “পর্চা তোলা এখন খুব ঝামেলার বিষয় কিন্তু আমাগো লগে অফিসের সম্পর্কটা ভাল তাই টাকা একটু বেশি লাগলেও আপনেগো পর্চা সময়মত তুইলা দিতে পারি।” আরও কয়েকজন দালালের সাথে কথা বলে প্রায় একই রকম মন্তব্য পাওয়া গেল। শ্রীনগরের বাতেন জানালেন, দালালের কাছে না গিয়া অফিসের স্টাফদের সাথে মিল করলে একটু লাভ পাওয়া যায়। আমি অফিসের একজনকে খতিয়ান প্রতি ২০০ টাকা দিয়া কয়েকটা পর্চা তুলতে দিছি, ৩০০ কইরা চাইছিল বুঝাইয়া শুনাইয়া দিছি। কিন্তু ১ মাস হইয়া গেল পর্চা পাই নাই।

ভুলেরও কোন শেষ নাই এখানে। সদর উপজেলার সৈয়দপুর গ্রামের জৈনদ্দিন বেপারী জানালেন- তার কেনা একটি জায়গার আর.এস পর্চা খুজে না পাওয়ায় একজন দালালকে ৫০০ টাকা দিয়ে প্রায় ২মাস সময় ব্যয় করে একটি আর.এস পর্চা তুলেন। পর্চা তুলে তিনি যখন রেজিষ্ট্রি করতে গেলেন তখন দেখলেন দলিলের সাথে পর্চার কোন মিল নেই। পর্চা অনুয়ায়ী দাগ তার দখলে নেই এবং পর্চা অনুযায়ী তর্ক করতে গিয়ে ঝগড়ার সৃষ্টি হয়। আরেকটি পর্চা জোগার করে মিলিয়ে দেখলেন ৬৮ দাইমি সৈয়দপুর মৌজার ৬৩৯ খতিয়ানের আর.এস ৩০৭৯ দাগের জায়গায় ৩০৯৭ দাগ সইমুহুরী পর্চায় উঠেছে। পর্চায় দেখা গেল নকলকারী- মোঃ শহিদ উল্লাহ, তুলনাকারী- ফারহানা চৌধুরী, রেকর্ড কিপার- গিয়াস উদ্দিন আহম্মেদ ও জেলা প্রশাসকের কার্য়ালয়ের সহকারী কমিশনার বিজন কুমার সিংহ পর্চায় স্বাক্ষর করেছেন। এতগুলো মানুষ ভুল করল কিভাবে তিনি বুঝলেন না। এর বিচার দিবেন কার কাছে তাও এই ভুক্তভুগী খুজে পেলেন না। প্রত্যেক দিনই অগণিত ভুল পর্চার ভুক্তভুগী দেখা যায়।

বর্তমানে রেকর্ড রুমের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ডেপুটি কালেক্টর মো. শেখ শহিদুল ইসলামের সাথে সরাসরি কথা বলতে গেলে তিনি পরে কথা বলবেন বলে এড়িয়ে গেলেন। দির্ঘক্ষণ তর জন্য অপেক্ষা করেও তার দেখা পাওয়া গেলনা। তার অফিসে কোন ফোন নেই। মুঠোফোন নম্বর চাইলে অফিস সহকারীরা জানালেন, স্যারের ফোন নম্বর দেয়া নিষেধ।

প্রতিমুহূর্ত

Leave a Reply